চামড়ার বাজারে ধস

সরকারের কঠোর পদক্ষেপই কাম্য

  সম্পাদকীয় ১৫ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চামড়ার বাজারে ধস

কোরবানির পশুর চামড়ার দাম অস্বাভাবিক কমে যাওয়ায় দেশের অন্যতম এ রফতানি পণ্যটি নিয়ে মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন, এর পেছনে ব্যবসায়ীদের কারসাজি রয়েছে। চামড়ার বাজারে ধস নামার প্রেক্ষাপটে সরকার কাঁচা চামড়া রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে ট্যানারি মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কাঁচা চামড়া রফতানি করলে দেশীয় শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আমরা মনে করি, নির্ধারিত দামে কোরবানির পশুর চামড়া কেনাবেচার ব্যাপারে চামড়াশিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যবসায়ীদের দায়িত্বশীল হওয়া প্রয়োজন।

চামড়ার মূল্যহ্রাস এবং কাঁচা চামড়া সংরক্ষণের প্রধান উপকরণ লবণের দাম হঠাৎ কেন দ্বিগুণেরও বেশি বৃদ্ধি পেল- এ রহস্য উদ্ঘাটন এবং এর সঙ্গে জড়িত দুষ্টচক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি। কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে সম্ভাবনাময় চামড়াশিল্পকে ধ্বংস হতে দেয়া যাবে না।

দেখা গেছে, চাহিদার তুলনায় দেশে চামড়ার উৎপাদন কম। চামড়া সংগ্রহের সবচেয়ে বড় মৌসুম কোরবানির ঈদ। এ সময় মোট চামড়ার শতকরা ৮০ ভাগ সংগৃহীত হয়।

ফলে এ সময়টায় ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট চামড়ার দাম নিয়ে কারসাজি শুরু করে। অভিযোগ আছে, শক্তিশালী সিন্ডিকেটের প্রভাবে কয়েক বছর ধরে ঈদের আগেই কোরবানির পশুর চামড়ার দাম কমিয়ে মূল্য নির্ধারণ করা হচ্ছে।

তারপরও দেখা যায়, সাধারণ ও ক্ষুদ্র বিক্রেতারা ন্যায্যমূল্যে চামড়া বিক্রি করতে পারছে না। এ বছর চামড়ার ন্যায্যমূল্য না পেয়ে বিভিন্ন স্থানে সাধারণ ও ক্ষুদ্র বিক্রেতারা ক্রয়কৃত চামড়া মাটির নিচে পুঁতে ফেলেছে বলেও খবর পাওয়া গেছে। এ অবস্থায় চামড়ার ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হলে সরকারকে কঠোর হতেই হবে।

চামড়া খাতে আমাদের রয়েছে অপার সম্ভাবনা। তবে এর কতটুকু আমরা কাজে লাগাতে পারছি, এটাই প্রশ্ন। বিশ্ববাজারে প্রতি বছর ২২ হাজার কোটি মার্কিন ডলারের চামড়াজাত পণ্যের বাণিজ্য হয়।

বাংলাদেশের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের বড় বাজার ইতালি। এর পরেই রয়েছে যুক্তরাজ্য, আমেরিকা, কানাডা, স্পেন ও ফ্রান্স। এর বাইরে জাপান, জার্মানি, সুইডেন ও সুইজারল্যান্ডেও সীমিত আকারে রফতানি হচ্ছে।

এখন ভারত, নেপাল, চীন ও অস্ট্রেলিয়ার পাইকারি ক্রেতারাও বাংলাদেশ থেকে চামড়াজাত পণ্য নিচ্ছেন। এর ফলে ট্যানারি মালিক এবং এ শিল্প খাত সংশ্লিষ্টরা আর্থিকভাবে লাভবান হলেও সাধারণ ব্যবসায়ীরা তাদের প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন, যা মোটেই কাম্য নয়।

কাঁচা চামড়ার দাম খুবই কম হওয়া সত্ত্বেও দেশে চামড়ার তৈরি জুতা, স্যান্ডেল, মানিব্যাগ, লেদারসামগ্রী ও চামড়াজাত অন্যান্য পণ্যের বাজারমূল্য চড়া। এ অবস্থার অবসানে সরকার সঠিক তদারকির পাশাপাশি যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবে, এটাই প্রত্যাশা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×