লিজিং কোম্পানি সংকট: আমানতকারীদের কল্যাণে সমাধান জরুরি

  সম্পাদকীয় ১৯ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খেলাপি ঋণ, জালিয়াতি ও দুর্নীতি-অনিয়মের কারণে ব্যাংকিং খাতের সমালোচনা প্রচুর হলেও একই সমস্যার কারণে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক খাত তথা লিজিং কোম্পানিগুলো তেমন একটি আলোচনায় আসছে না।
ছবি: সংগৃহীত

খেলাপি ঋণ, জালিয়াতি ও দুর্নীতি-অনিয়মের কারণে ব্যাংকিং খাতের সমালোচনা প্রচুর হলেও একই সমস্যার কারণে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক খাত তথা লিজিং কোম্পানিগুলো তেমন একটি আলোচনায় আসছে না।

অথচ এসব প্রতিষ্ঠান আমানতকারীদের হাজার হাজার কোটি টাকা ফেরত দিতে পারছে না খেলাপি ঋণ, দুর্নীতি-অনিয়ম ইত্যাদির কারণে। এমনকি লিজিং কোম্পানিগুলোর পরিস্থিতি এতই নাজুক যে, এরা নিজেদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন পর্যন্ত পরিশোধ করতে পারছে না।

এ অবস্থায় আর্থিক খাত বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব প্রতিষ্ঠান অবসায়ন করে আমানতকারীদের মূলধন ফেরত দেয়া এখন অপরিহার্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যথায় কোম্পানিগুলো ও তাদের আমানতকারীদের ক্ষতি আরও বাড়বে বৈ কমবে না। আমরা মনে করি, অবিলম্বে আমানতকারীদের স্বার্থে নাজুক লিজিং কোম্পানিগুলোর অবসায়নসহ প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া দরকার।

জানা যায়, দেশে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক খাত হিসেবে পরিচিত লিজিং কোম্পানি আছে ৩৪টি। এদের সর্বশেষ ঋণের স্থিতি ৬৫ হাজার কোটি টাকা; যার বেশিরভাগই আবাসন খাতে বিনিয়োগ করা। এসব প্রতিষ্ঠান নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের স্ট্যাবিলিটি রিপোর্টে বলা হয়, কোম্পানিগুলোর মধ্যে ১২টিই অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ লাল তালিকায় রয়েছে।

১৮টি রয়েছে হলুদ বা সহনীয় তালিকায়, আর ৪টি সবুজ বা ভালো তালিকাভুক্ত। অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ লিজিং কোম্পানিগুলোর পরিস্থিতি এমনই নাজুক যে, তাদের নতুন করে আমানত পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। ফলে এগুলোর সম্পদ বিক্রি করে আমানতকারীদের আমানত ফেরত দেয়াসহ প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিয়ে সমস্যা সমাধান করে ফেলাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।

লিজিং কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে শোচনীয় অবস্থা বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন বা বিএফআইসির। এর খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা; যার মধ্যে হাজার কোটি টাকার খেলাপি খোদ কোম্পানির সাবেক চেয়ারম্যানের। এছাড়া পিপলস লিজিংয়ের খেলাপি ঋণ ৬৮ শতাংশ ও ফার্স্ট ফাইন্যান্সের খেলাপি ঋণ ৫০ শতাংশ।

এরই মধ্যে পিপলস লিজিংকে অবসায়ন করা হয়েছে। সবার আগে বিএফআইসিকে অবসায়ন করার কথা থাকলেও সেটি এখনও করা হয়নি। ঝুঁকিপূর্ণ ও বাজে এসব কোম্পানির অস্তিত্বের কারণে যে কেবল আমানতকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তা নয়, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত এসব কোম্পানির কারণে শেয়ারবাজারের বিনিয়োগকারীরাও ক্ষতির শিকার হচ্ছেন।

উদ্বেগের বিষয়, লিজিং কোম্পানিগুলোর সংকটের পেছনে এসব প্রতিষ্ঠানের পরিচালক-উদ্যোক্তারাই দায়ী। ফলে কোনো ধরনের আশ্রয়-প্রশ্রয় না দিয়ে দায়ীদের আইনের আওতায় আনা ও আমানতকারীদের সুরক্ষা দিতে হবে যে কোনো মূল্যে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×