এডিস মশার অস্বাভাবিক বিস্তার রোধে...

সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনাই রক্ষাকবচ

  যুগান্তর ডেস্ক    ২২ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এডিস মশা

এডিস মশার অস্বাভাবিক বিস্তারের জন্য দেশে, বিশেষ করে রাজধানীতে যত্রতত্র পড়ে থাকা কঠিন ও তরল বর্জ্যকে দায়ী করেছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, রাজধানীর আবাসিক এলাকাগুলোর আঙিনা, রাস্তাঘাট, হাটবাজার, নির্মাণাধীন বিভিন্ন স্থাপনা, হাসপাতাল ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ জনসমাগম স্থলে নানা ধরনের বর্জ্য পড়ে থাকা একটি স্বাভাবিক বিষয়ে পরিণত হয়েছে।

উল্লেখ্য, প্রতিদিন রাজধানীতে সৃষ্ট ৭ হাজার টন বর্জ্যরে মধ্যে কমবেশি ৬ হাজার টন অপসারণের সক্ষমতা রয়েছে দুই সিটি কর্পোরেশনের। বাকি ১ হাজার টন বর্জ্য রাজধানীর চারপাশের নদী, ভেতরের খাল, ডোবানালা ইত্যাদি ভরাটের পাশাপাশি খোলা জায়গায় জমে থেকে পরিবেশ নষ্ট করছে।

সন্দেহ নেই, বর্ষা মৌসুমে যত্রতত্র পড়ে থাকা কঠিন বর্জ্যগুলোয় পানি জমে থাকার কারণেই মশার প্রজননক্ষেত্র সৃষ্টি হচ্ছে। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ করতে হলে সর্বপ্রথম যে কাজটি করা দরকার তা হল এডিস মশা নিয়ন্ত্রণ। এজন্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ওপর সর্বাধিক গুরুত্ব দিতে হবে, যা বলাই বাহুল্য।

সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে মশার প্রজননক্ষেত্রগুলো নির্মূলের পাশাপাশি ওষুধ ছিটানো ও ফগিংসহ অন্যান্য কার্যক্রম গ্রহণ করা হলে এডিস ছাড়াও অন্যান্য ক্ষতিকর মশা দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে বলে মনে করি আমরা। দুঃখজনক হলেও সত্য, দেশে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা মোটেও সন্তোষজনক নয়।

আমাদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ঢেলে সাজানো জরুরি। আশার কথা, পরিবেশ মন্ত্রণালয় কোমলপানীয় ও পানির বোতল, ক্যান, চিপসের প্যাকেটসহ পরিবেশ দূষণকারী যে কোনো ক্যান ও পলিব্যাগ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক নির্ধারিত মূল্যে ভোক্তার কাছ থেকে ফেরত নেয়ার বিধান বাধ্যতামূলক করবে বলে জানা গেছে। এ ধরনের বোতল ও ক্যানে জমে থাকা পানি পরীক্ষা করে ৮০ শতাংশ পর্যন্ত ডেঙ্গুর লার্ভা পাওয়া গেছে।

সঠিকভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা দেশের স্বাস্থ্য খাত উন্নয়নের অন্যতম একটি অনুষঙ্গ। এক্ষেত্রে অব্যবস্থাপনা বিরাজ করলে মানুষ শুধু ডেঙ্গু নয়, আরও নানারকম স্বাস্থ্যঝুঁকির মধ্যে নিপতিত হবে, যার প্রভাব জাতীয় উন্নয়নের ক্ষেত্রেও পড়বে। এসব দিক বিবেচনায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মতো জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি দেশের সব নাগরিক সচেতন ও দায়িত্বশীল হবে, এটাই প্রত্যাশা।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×