নিয়ন্ত্রণহীন পেঁয়াজের বাজার

নিরবচ্ছিন্ন নজরদারি প্রয়োজন

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিয়ন্ত্রণহীন পেঁয়াজের বাজার

কিছুদিন আগে ভারত পেঁয়াজ রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পর সারা দেশে পেঁয়াজের বাজারে চরম অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছিল। কর্তৃপক্ষের যথাযথ নজরদারির ফলে পেঁয়াজের বাজারের অস্থিরতা কিছুটা দূর হয়।

তবে জানা যায়, রাজধানীর বাজারগুলোতে পেঁয়াজ নিয়ে আবারও অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি শুরু হয়েছে। পেঁয়াজ নিয়ে অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারসাজি এতটাই ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে যে, বিভিন্ন স্থানে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করতে হচ্ছে।

রাজধানীতে এক সপ্তাহে আগে যে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৭৫-৮০ টাকায়; তা এক সপ্তাহ পর বিক্রি হয়েছে ১১০-১১৫ টাকা কেজি দরে। অথচ একদিন আগেও এ পেঁয়াজ কেজিপ্রতি ১০ টাকা কমে বিক্রি হয়েছে। পেঁয়াজ একটি অত্যাবশ্যকীয় মসলা।

বারবার পেঁয়াজের বাজার অস্থির হওয়ায় সাধারণ ভোক্তাদের দুর্ভোগ বাড়ছে। নিত্যপণ্যের দাম নিয়ে কেউ যাতে কারসাজি করতে না পারে, সেজন্য কর্তৃপক্ষকে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

জানা যায়, মিয়ানমার কয়েকদিনের জন্য পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ রেখেছিল। এ অজুহাতে অসাধু ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ নিয়ে কারসাজির চেষ্টা করে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ রফতানি আবারও শুরু হয়ছে। গত কয়েকদিনে লক্ষ করা গেছে, বিভিন্ন স্থানে বিশেষ অভিযান পরিচালনার পরিপ্রেক্ষিতে পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম কমলেও দেশের অনেক জায়গায় খুচরা বাজারে এর প্রভাব পড়েনি। সারা দেশের সাধারণ ভোক্তারা যাতে ন্যায্য দামে নিত্যপণ্য ক্রয় করতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে।

নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর ওই পণ্য দেশে এসে পৌঁছাতে বেশ কয়েকদিন সময় লেগে যায়। অথচ লক্ষ করা যায়, কোনো দেশ কোনো পণ্য রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার অথবা দাম বাড়ানোর পরপরই দেশের বাজারে ওই পণ্যের দামে চরম অস্থিরতা সৃষ্টি হয়। মানবসৃষ্ট এ অস্থিরতা রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।

বস্তুত দাম বাড়লেও পেঁয়াজের দেশি উৎপাদকরা তা পান না। পচনশীল হওয়ায় কৃষক পেঁয়াজ জমি থেকে ঘরে তোলার পর তা বিক্রি করে দেন। আমরা মনে করি, সারা দেশে কৃষক পর্যায়ে পেঁয়াজ সংরক্ষণের আধুনিক ব্যবস্থা গড়ে তোলা হলে পেঁয়াজের বাজারে আর এমন অস্থিরতা দেখা দেবে না।

পেঁয়াজ ও অন্যান্য মসলার ওপর যতটা সম্ভব আমদানিনির্ভরতা কমানোর উদ্যোগ নেয়া দরকার। অতি মুনাফার লোভে যারা নিত্যপণ্য মজুদ করে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। তা না হলে নিত্যপণ্যের বাজারে এমন অস্থিরতা সৃষ্টির আশঙ্কা থেকেই যায়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

 
×