রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের প্রস্তাব: চীন ও রাশিয়ার দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টাতে হবে

  ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের তৃতীয় কমিটিতে ‘মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিম ও অন্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানবাধিকার পরিস্থিতি’ শীর্ষক একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে ১৪০-৯ ভোটে। এটা নিয়ে তৃতীয়বারের মতো গৃহীত হল এ ধরনের প্রস্তাব।

এবারের প্রস্তাবে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে কী কী পদক্ষেপ নিতে হবে তা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রস্তাবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে সুস্পষ্ট পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে, যা নিরাপত্তা পরিষদের ওপর সরাসরি চাপ সৃষ্টি করবে বলে মনে করা হচ্ছে।

দুঃখজনক হল, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের তৃতীয় কমিটিতে যে প্রস্তাবটি বিপুল ভোটে গৃহীত হয়েছে, ৯টি দেশ, বিশেষত চীন ও রাশিয়া তার বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে এবং ভারত ভোটদানে বিরত থেকেছে। উল্লেখ করা যেতে পারে, চীন ও রাশিয়া এর আগেও এ ধরনের প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দিয়েছিল। অর্থাৎ এটা এখন স্পষ্ট হয়েছে যে, চীন ও রাশিয়া রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান চাচ্ছে না। গত দুই বছরের অধিককাল থেকে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে রোহিঙ্গা ইস্যুটি ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি রাষ্ট্র ও আন্তর্জাতিক সংস্থা রাখাইনে রোহিঙ্গা গণহত্যার নিন্দা জানিয়েছে এবং বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের ব্যাপারে একমত পোষণ করেছে। এমনকি জাতিসংঘের বিচারিক আদালতে (আইসিজে) রোহিঙ্গা গণহত্যার দায়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ওআইসির সমর্থনে গাম্বিয়া মামলা করেছে এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) রোহিঙ্গা নিপীড়নের পূর্ণ তদন্ত শুরু হয়েছে।

এমন অবস্থায় চীন ও রাশিয়ার বিপক্ষে ভোট প্রদান এবং ভারতের ভোটদানে বিরত থাকার বিষয়টি আমাদের অবাক করে বৈকি। এই তিন দেশের সঙ্গে মিয়ানমারের সম্পর্ক ভালো যেমন, বাংলাদেশের সঙ্গেও তেমন ভালো সম্পর্ক রয়েছে। তাছাড়া রোহিঙ্গা ইস্যুটি একটি বড় ধরনের মানবিক বিষয়, যা ইতিমধ্যেই বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত হয়েছে। রোহিঙ্গারা শুধু যে বাংলাদেশের ওপর সামাজিক ও অর্থনৈতিক চাপ সৃষ্টি করেছে তা-ই নয়, তাদের স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের বিষয়টিও অতি জরুরি। ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মাসের পর মাস, বছরের পর বছর বাংলাদেশে অবস্থান করতে পারে না। গণহত্যা ও নিপীড়নের মুখে রোহিঙ্গাদের মানবিক কারণে বাংলাদেশে আশ্রয় দেয়া উচিত ছিল এবং সেটাই করা হয়েছে। কিন্তু এর মানে এই নয় যে, এই বোঝা অনন্তকাল ধরে বয়ে বেড়াতে হবে আমাদের।

আমরা বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র চীন, ভারত ও রাশিয়ার দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টানোর অনুরোধ জানাব। আগামী দিনগুলোয় মিয়ানমারের ওপর কার্যকর চাপ সৃষ্টিতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সঙ্গে এই তিন দেশও যথাযথ ভূমিকা রাখবে বলে আমরা আশাবাদী হতে চাই।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত