ভয়াবহ বিস্ফোরণ: সবার জন্যই সতর্ক সংকেত

  সম্পাদকীয় ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আবাসিক ভবনে বিস্ফোরণ
আবাসিক ভবনে বিস্ফোরণ। ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় রোববার সকালে একটি আবাসিক ভবনে বিস্ফোরণে অন্তত সাতজন নিহত ও ২৫ জন আহত হয়েছেন। বিস্ফোরণের ভয়াবহতা এতটাই তীব্র ছিল যে, এর ফলে পাশের ভবনের দেয়াল পর্যন্ত ধসে পড়েছে। ভবনটির প্রধান গেট ঢুকে পড়েছে পাশের একটি ওষুধের দোকানে।

চূর্ণ-বিচূর্ণ ইটের আঘাতে পাশের কয়েকটি ভবনের জানালার কাচ ভেঙে গেছে। এ সম্পাদকীয় লেখা পর্যন্ত দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ স্পষ্ট নয়। জানা যায়, দুর্ঘটনাকবলিত ভবনটির নিচতলার বাসায় রান্নার জন্য চুলায় আগুন দিতে দিয়াশলাইয়ের কাঠি জ্বালানোর সঙ্গে সঙ্গে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

এ কারণে বিস্ফোরণটি ভূগর্ভস্থ গ্যাস লাইন থেকে ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে গ্যাস বিতরণকারী প্রতিষ্ঠান কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি বলেছে, তাদের লাইন ও রাইজার অক্ষত রয়েছে।

গ্যাস লাইনে বিস্ফোরণ হলে আগুন লাগত। কিন্তু সেখানে আগুন লাগেনি। এ অবস্থায় বিস্ফোরণের প্রকৃত কারণ চিহ্নিত করা জরুরি। দুর্ঘটনার পর গঠিত তদন্ত কমিটিকে সেটা দ্রুত উদ্ঘাটন করতে হবে।

দেশে গ্যাস বিস্ফোরণের ঘটনা নতুন নয়। ফায়ার সার্ভিস, তিতাস গ্যাস, বিস্ফোরক পরিদফতর এবং বিভিন্ন হাসপাতালের তথ্য থেকে জানা যায়, গত ১০ বছরে সারা দেশে গ্যাস বিস্ফোরণজনিত দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ৫০০ জন প্রাণ হারিয়েছেন। এর মধ্যে চলতি বছরই এ পর্যন্ত সংঘটিত এ ধরনের দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন শতাধিক।

এ থেকে বোঝা যায় দেশে গ্যাস বিস্ফোরণে দুর্ঘটনা এবং এতে হতাহতের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। ফ্ল্যাট বাড়িতে গ্যাসের চুলার আগুনে সংঘটিত দুর্ঘটনা সমগ্র দেশের গ্যাসের চুলা ব্যবহারকারীদের জন্য একটি সতর্ক সংকেত। শহরাঞ্চলে উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত, নিুমধ্যবিত্ত নির্বিশেষে প্রায় সব পরিবারই গ্যাসের চুলা ব্যবহার করে থাকে।

এসব চুলার আগুন যে-কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটাতে পারে, ঘন ঘন দুর্ঘটনা সেটাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে আমাদের। তাই গ্যাসের চুলার ঝুঁকির দিকগুলো সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে প্রতিটি পরিবারকেই। গ্যাসের পাইপ লাইনের কোথাও ত্রুটি আছে কিনা, তা সময়ে সময়ে পর্যবেক্ষণ করতে হবে অবশ্যই।

কারণ কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও উদাসীনতার কারণেও ঘটছে দুর্ঘটনা। দেশে নতুন স্থাপিত গ্যাস লাইন যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে ৪০ বছরের পুরনো গ্যাস লাইনও। পুরনো গ্যাস লাইনগুলোর সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামতের অভাবে যে কোনো সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। কাজেই সারা দেশের পুরনো গ্যাস লাইন অপসারণ করে যত দ্রুত সম্ভব নতুন গ্যাস লাইন প্রতিস্থাপন করা জরুরি।

চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় সংঘটিত রোববারের ভয়াবহ বিস্ফোরণের কারণ উদ্ঘাটন করে এর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। অভিজ্ঞতা বলে, এ ধরনের দুর্ঘটনার পর কর্তৃপক্ষ সাধারণত মামলা, তদন্ত কমিটি ইত্যাদির আয়োজন করে কিছুদিন বেশ সরব ভূমিকা পালন করলেও পরে বিষয়টি বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে যায়।

ফলে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা আর হয়ে ওঠে না। মানুষও আর এ ব্যাপারে সতর্ক ও সচেতন হয় না। আমরা আশা করব, চট্টগ্রামে বিস্ফোরণের ক্ষেত্রে এমনটি ঘটবে না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×