প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ: করোনা যুদ্ধে জয়ী হতে হবে

  সম্পাদকীয় ২৭ মার্চ ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ: করোনা যুদ্ধে জয়ী হতে হবে

স্বাধীনতা দিবসের প্রাক্কালে এবং করোনা বিপর্যয় চলাকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশে এক গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ দিয়েছেন।

এ ভাষণে তিনি বলেছেন, ১৯৭১ সালে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করে আমরা যেভাবে বিজয়ী হয়েছি, করোনাভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধে সেভাবেই জয়ী হতে হবে।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলা করাও একটি যুদ্ধ এবং এই যুদ্ধে সবার দায়িত্ব ঘরে থাকা। তিনি আরও বলেন, কয়েকটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সহজ হবে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- ঘন ঘন সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়া, হাঁচি-কাশির সময় রুমাল অথবা টিস্যু পেপার দিয়ে নাক-মুখ ঢেকে রাখা, যেখানে-সেখানে থুতু-কফ না ফেলা, করমর্দন অথবা কোলাকুলি থেকে বিরত থাকা ইত্যাদি। আমরা মনে করি, প্রধানমন্ত্রীর এসব উপদেশ-পরামর্শ প্রত্যেক নাগরিকেরই মেনে চলা উচিত। পরামর্শগুলো ইতিমধ্যেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক প্রচারিত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী যথার্থই বলেছেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলা করা যুদ্ধেরই নামান্তর। এই যুদ্ধে আমাদের অবশ্যই জয়ী হতে হবে এবং এজন্য সবচেয়ে যা জরুরি তা হল, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। এ প্রসঙ্গে ইউরোপ-আমেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ভয়াবহ অবস্থার কথা উল্লেখ করা যায়। আমাদের পরিস্থিতি এখনও ততটা খারাপ হয়নি। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চললে এবং সামাজিক দূরত্ব তৈরি করতে না পারলে আমাদের অবস্থাও শোচনীয় পর্যায়ে যেতে পারে বৈকি।

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে দুটি অতি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন। এর একটি হল, নিম্ন আয়ের ব্যক্তিদের ‘ঘরে-ফেরা’ কর্মসূচির আওতায় নিজ নিজ গ্রামে সহায়তা প্রদান করা হবে। গৃহহীন ও ভূমিহীনদের জন্য বিনামূল্যে ঘর, ৬ মাসের খাদ্য এবং নগদ অর্থ প্রদান করা হবে। এ ব্যাপারে ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বলতে হবে, এ সিদ্ধান্ত খুবই ইতিবাচক। করোনাভাইরাসের বর্তমান সংকটকালে নিম্ন আয়ের নাগরিকদের বেশিরভাগই হারিয়েছেন কাজ। এই দুঃসময়ে রাষ্ট্র তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে, এটা এক বড় সুসংবাদ।

প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় যে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন তা হল, তিনি রফতানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। এ তহবিলের অর্থ দ্বারা কেবল শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধ করা হবে।

বলা বাহুল্য, করোনাভাইরাসের কারণে রফতানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠান, বিশেষত গার্মেন্ট শিল্প মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়েছে। ইতিমধ্যেই গার্মেন্ট খাতের ২০০ কোটি ডলারের ক্রয়াদেশ বাতিল করা হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে এই শিল্পের শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রদানের বিষয়টি প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে পড়েছে। শিল্প মালিকদের সক্ষমতা যখন প্রশ্নের সম্মুখীন, তখনই প্রধানমন্ত্রী এই প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করলেন।

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে আরও অনেক কথাই বলেছেন। সংক্ষেপে বললে তার ভাষণটি জাতিকে আশ্বস্ত করেছে। জাতির মহাদুর্যোগকালে সরকারপ্রধানের কাছ থেকে এমন একটি ভাষণই প্রত্যাশিত ছিল।

'কোভিড-১৯' সর্বশেষ আপডেট

# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৪৮ ১৫
বিশ্ব ৭,১০,৯৮৭১,৫০,৭৮৮৩৩,৫৫৭
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×