মনের পশুকে কোরবানি দিন

  অ আ আবীর আকাশ ৩১ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কোরবানির উদ্দেশ্য হল ত্যাগের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন। এ ধর্মীয় উৎসব ত্যাগের মহিমায় মহিমান্বিত। হালাল পশু কোরবানির মাধ্যমে মুসলমানরা তাদের ধর্মীয় কার্য সম্পাদন করেন।

ঈদুল আজহায় পশু কোরবানি দেয়া ওয়াজিব। যার সামর্থ্য আছে সে কোরবানি দেবে, যার সামর্থ্য নেই দেবে না। সে ঈদের অন্যান্য নিয়মকানুন মেনে চলবে। দেখা গেছে, এ ওয়াজিব পালন করতে গিয়ে আসল ফরজের খবর রাখে না অনেকে।

নামাজের খবর নেই, গরু নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করে। আল্লাহর জন্য, তার সৃষ্টির জন্য, মানবতার জন্য ত্যাগেও যে আনন্দ আছে, তা ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে এ উৎসবে প্রতিফলিত হয়।

কোরবানির উদ্দেশ্য পশু জবাই করে তার মাংস রান্না করে খাওয়া নয়; এর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য হচ্ছে আল্লাহর পথে, তার সৃষ্টির কল্যাণের পথে সর্বোচ্চ ত্যাগের পরীক্ষায় প্রতীকী অর্থে পশু কোরবানি করার মধ্য দিয়ে ত্যাগের শিক্ষা গ্রহণ করা।

মহান আল্লাহ পাক তো আর কোরবানির মাংস চান না। তিনি পরীক্ষা করে দেখতে চান তার বান্দারা তার জন্য, মানুষের জন্য, মানবতার জন্য ত্যাগের পরীক্ষায় পাস করতে পারে কিনা।

সঠিকভাবে কোরবানির জন্য বেশি দাম দিয়ে বড় গরু কিনে শোডাউন করার কোনো প্রয়োজন নেই। এ কাজ যারা করেন, তারা কোরবানির প্রকৃত তাৎপর্য বুঝতে না পেরেই তা করে থাকেন।

‘আল্লাহকে ভালোবেসে তার রাস্তায় ত্যাগের দৃষ্টান্ত হিসেবে আমি কোরবানি করছি’- এমন উপলব্ধি হৃদয়ে স্থান না পেলে সে কোরবানি শুধু পশু জবাই করে মাংস খাওয়ার ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।

আল্লাহ পবিত্র কোরআনে স্পষ্ট বলে দিয়েছেন, কোরবানির পশুর মাংস, রক্ত কিছুই আল্লাহর দরবারে পৌঁছে না; পৌঁছে একমাত্র তাকওয়া। আর এই তাকওয়ার উপস্থিতি না থাকলে পশু কোরবানির কোনো সার্থকতা নেই।

এজন্য নিষ্পাপ পশুর গলায় ছুরি চালানোর আগে নিজের মনের পশুটাকে কোরবানি দিতে হবে। বছরের পর বছর ধরে মনের কোণে ঘাপটি মেরে থাকা অসভ্য পশুটি জবাই না দিতে পারলে গতানুগতিক পশু কোরবানিতে কোনোই ফায়দা নেই।

যারা পশু কোরবানি দিচ্ছেন, তারা কি সূক্ষ্মভাবে লক্ষ করেছেন, যিনি কোরবানি দিচ্ছেন তার টাকায় কোনো ভেজাল আছে কিনা! গরিব, মজলুম, অসহায়ের হক মেরে কোরবানির টাকা জমিয়েছেন কি?

ঘুষ-দুর্নীতির টাকা দিয়ে কোরবানি দিচ্ছেন না তো? কোনো পাওনাদার আপনার কাছে টাকা পায় কি? কাউকে ঠকিয়েছেন কখনও? তাহলে আপনার পশু জবাই হবে; কিন্তু কোরবানি হবে না।

কোরবানির আসল বিষয় হচ্ছে ত্যাগ ও আত্মবিসর্জন। নিজেকে স্রষ্টার সামনে নিঃশর্ত সমর্পণ। আল্লাহ নির্দেশ দিয়েছেন তার সন্তুষ্টির জন্য পশু জবাই করতে, কোনো লাভ-ক্ষতির হিসাব না করে তা বাস্তবায়ন করাই হল আনুগত্য।

নিজের ছেলেকে জবাই করার মতো কঠিন নির্দেশ দেয়া হয়েছিল হজরত ইব্রাহিমকে (আ.)। সেই মহাপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ইব্রাহিম (আ.) খলিলুল্লাহ বা আল্লাহর বন্ধু হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। পশু জবাইয়ের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভ করা সম্ভব। তবে সেটা নির্ভর করে নিয়ত ও ইখলাসের ওপর।

মনের মধ্যে অন্যের ক্ষতি করে নিজে লাভবান হওয়ার পাশবিকতাকে উজ্জীবিত করে পশু কোরবানি করলে কোরবানি হবে না।

মনের মধ্যে পাশবিকতা থাকলে তাকেও কোরবানির পশুর সঙ্গে জবাই করে দিতে হবে। মুসলমান হিসেবে মহান আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে সহিহ্ নেক আমলের মাধ্যমে পরিশুদ্ধ কাজের বিনিময়ে প্রাপ্ত অর্থে অন্তরের সব কালিমা দূর করে মনের পশুকে কোরবানি দেয়ার পাশাপাশি পশু কোরবানি দেয়ার তৌফিক দান করুন।

অ আ আবীর আকাশ : প্রাবন্ধিক

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত