রোহিঙ্গা নিধন ও বিতাড়ন

দায়ীদের বিচারের সম্মুখীন করা জরুরি

  যুগান্তর ডেস্ক    ১২ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রোহিঙ্গা

রোহিঙ্গা নিধন ও বিতাড়নের ঘটনায় মিয়ানমারকে বিচারের সম্মুখীন করার এখতিয়ার আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) আছে কিনা, তা জানতে চেয়ে গত সোমবার আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি ফাতোও বেনসৌউদা আবেদন করেছেন।

উল্লেখ্য, জোর করে কোনো দেশের বাসিন্দাদের আন্তর্জাতিক সীমানার বাইরে ঠেলে দেয়া মানবতাবিরোধী অপরাধের মধ্যে পড়ে। তাছাড়া জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার এ ঘটনাকে জাতিগত নিধন অভিযানের উদাহরণ বলে বর্ণনা করেছেন।

মিয়ানমারবিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূতও রোহিঙ্গা নিধন ও বিতাড়নের ঘটনায় গণহত্যার সব চিহ্ন রয়েছে বলে ইতিপূর্বে মন্তব্য করেছেন। এ প্রেক্ষাপটে রোহিঙ্গা নিধন ও বিতাড়নের ঘটনা যথাযথ তদন্ত করে আইসিসি অভিযোগ উত্থাপন করতে পারে বৈকি!

বলার অপেক্ষা রাখে না, আইসিসি এ উদ্যোগ নিলে রোহিঙ্গা বিতাড়ন ঘটনার পক্ষে আন্তর্জাতিক তদন্তের একটি পথ তৈরি হবে ও অপরাধীদের বিচারের সম্মুখীন করা সম্ভব হবে। আমরা মনে করি- হত্যা, ধর্ষণ, নিপীড়ন ও জোরপূর্বক রোহিঙ্গাদের দেশত্যাগে বাধ্য করার অপরাধে দায়ীদের বিচারের মুখোমুখি করার পথ উন্মুক্ত হওয়া প্রয়োজন।

তবে এখানে আইসিসির এখতিয়ারের প্রশ্নটি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বাংলাদেশ আইসিসির সদস্য হলেও মিয়ানমার নয়। কিন্তু তারপরও আইসিসি বিষয়টিকে এখতিয়ারে নিতে পারে এজন্য যে, আন্তর্জাতিক সীমানা অতিক্রম করে অপরাধটি সংঘটিত হয়েছে এবং আইসিসির সদস্য বাংলাদেশের ভূখণ্ড তার শিকার হচ্ছে।

বস্তুত মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর যা ঘটেছে, এতে গণহত্যার যথেষ্ট নজির রয়েছে। রোহিঙ্গাদের ঘরের ভেতর আটকে রেখে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। খুব কাছ থেকে গ্রেনেড হামলা ও গুলি করে তাদের হত্যা করা হয়েছে।

এছাড়া অমানবিকভাবে মারধর, ছুরিকাঘাত ও ধর্ষণসহ অন্যান্য নিপীড়ন করা হয়েছে, যা রুয়ান্ডার গণহত্যার সঙ্গে তুলনীয়। রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন ও বিতাড়নের ঘটনা মর্মান্তিক ও বর্বর এতে কোনো সন্দেহ নেই।

আমরা মনে করি, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটনের কুশীলবদের বিচারের সম্মুখীন করা জরুরি।

মিয়ানমার থেকে শরণার্থী হিসেবে বাংলাদেশে আসা ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মানবেতর জীবনযাপন করছেন এবং এরই মধ্যে তারা বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছেন।

জাতিসংঘের সংজ্ঞা অনুযায়ী গণহত্যাকে সবচেয়ে বড় মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে দেখা হয়। এ দৃষ্টিকোণ থেকে আইসিসি মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নিধন ও নিপীড়নের জন্য দেশটির সামরিক জান্তাদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবে, এটাই প্রত্যাশা।

ঘটনাপ্রবাহ : রোহিঙ্গা বর্বরতা

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter