রাজধানীর পাঁচ মেট্রোরেল: নির্ধারিত সময়ে বাস্তবায়ন কাম্য
jugantor
রাজধানীর পাঁচ মেট্রোরেল: নির্ধারিত সময়ে বাস্তবায়ন কাম্য

  সম্পাদকীয়  

২০ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রাজধানীতে নির্মীয়মাণ পাঁচ মেট্রোরেল লাইনের কাজের গড় অগ্রগতি দাঁড়িয়েছে ১৫ দশমিক ৩২ শতাংশে। এর মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে আছে ঢাকা মাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (এমআরটি) ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট, মেট্রোলেন লাইন-৬ প্রকল্পটি। এটি তৈরি হচ্ছে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত।

এটির বাস্তবায়নের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে। এমআরটি লাইন-৬ প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৫৮ দশমিক ৭২ শতাংশ। তবে এটির উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশ ২০২২ সালের মধ্যেই চালু হওয়ার কথা রয়েছে। মেট্রোরেলের অন্য প্রকল্পগুলোর কাজের অগ্রগতি খুব বেশি নয়।

মেট্রোরেলের সব কটি প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে রাজধানীর গণপরিবহণ ব্যবস্থায় যুগান্তকারী পরিবর্তন আসবে সন্দেহ নেই। অসহনীয় যানজট থেকেও মুক্ত হবে নগরবাসী। দেশে বর্তমানে বেশ কটি মেগা প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এগুলোর প্রতিটির বিষয়ে মানুষের ব্যাপক আগ্রহ থাকলেও মেট্রোরেল প্রকল্পের প্রতি দেশবাসী, বিশেষ করে রাজধানীবাসীর আগ্রহ স্বভাবতই বেশি। এদিকে রয়েছে সবার বিশেষ দৃষ্টি।

তাই আমরা মনে করি, রাজধানী ও এর আশপাশ এলাকার গণপরিবহণ সংকটের সমাধানে যেসব প্রকল্পের কাজ চলছে, সেসব প্রকল্প নির্ধারিত সময়ে বাস্তবায়নে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। সরকার অবশ্য সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারে থাকা ফাস্টট্র্যাক প্রকল্পের আওতায় রেখেছে একে।

কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয়, করোনা পরিস্থিতির প্রভাব পড়েছে মেট্রোরেল প্রকল্পেও। করোনার আগে তিন শিফটে কাজ চললেও পরে একটি শিফট কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা আশা করব, অন্তত এমআরটি লাইন-৬ প্রকল্পটি নির্ধারিত সময়েই বাস্তবায়িত হবে। অন্য প্রকল্পগুলোও যথাসম্ভব দ্রুত সম্পন্ন করার বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে।

দেশ যখন করোনার প্রথম ঢেউয়ের ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছিল, তখনই এসেছে দ্বিতীয় ঢেউ। ফলে আবারও ‘লকডাউন’-এর কবলে পড়েছে দেশ। মেগা প্রকল্পগুলোর কাজের সঙ্গে অনেক বিদেশি জড়িত। করোনার কারণে তারাও পুরোপুরি কাজে যোগদান করতে পারেননি। এসব বিষয় বিবেচনায় নিতে হবে অবশ্যই।

তবে এটিও সত্য, প্রকল্পের কাজ নিয়ে দীর্ঘসূত্রতার প্রবণতা রয়েছে আমাদের। মেট্রোরেলসহ মেগা প্রকল্পগুলোর ক্ষেত্রে তেমনটি যেন না-ঘটে সেদিকে সরকারকে খেয়াল রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে, চলমান মেগা প্রকল্পগুলোর সঙ্গে দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিষয়টি বিশেষভাবে জড়িত। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে এ প্রকল্পগুলোর সঙ্গে যুক্ত সবাই দায়িত্বশীলতা ও আন্তরিকতার পরিচয় দেবেন-এটাই প্রত্যাশা।

রাজধানীর পাঁচ মেট্রোরেল: নির্ধারিত সময়ে বাস্তবায়ন কাম্য

 সম্পাদকীয় 
২০ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত রাজধানীতে নির্মীয়মাণ পাঁচ মেট্রোরেল লাইনের কাজের গড় অগ্রগতি দাঁড়িয়েছে ১৫ দশমিক ৩২ শতাংশে। এর মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে আছে ঢাকা মাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (এমআরটি) ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট, মেট্রোলেন লাইন-৬ প্রকল্পটি। এটি তৈরি হচ্ছে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত।

এটির বাস্তবায়নের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে। এমআরটি লাইন-৬ প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৫৮ দশমিক ৭২ শতাংশ। তবে এটির উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশ ২০২২ সালের মধ্যেই চালু হওয়ার কথা রয়েছে। মেট্রোরেলের অন্য প্রকল্পগুলোর কাজের অগ্রগতি খুব বেশি নয়।

মেট্রোরেলের সব কটি প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে রাজধানীর গণপরিবহণ ব্যবস্থায় যুগান্তকারী পরিবর্তন আসবে সন্দেহ নেই। অসহনীয় যানজট থেকেও মুক্ত হবে নগরবাসী। দেশে বর্তমানে বেশ কটি মেগা প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এগুলোর প্রতিটির বিষয়ে মানুষের ব্যাপক আগ্রহ থাকলেও মেট্রোরেল প্রকল্পের প্রতি দেশবাসী, বিশেষ করে রাজধানীবাসীর আগ্রহ স্বভাবতই বেশি। এদিকে রয়েছে সবার বিশেষ দৃষ্টি।

তাই আমরা মনে করি, রাজধানী ও এর আশপাশ এলাকার গণপরিবহণ সংকটের সমাধানে যেসব প্রকল্পের কাজ চলছে, সেসব প্রকল্প নির্ধারিত সময়ে বাস্তবায়নে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। সরকার অবশ্য সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারে থাকা ফাস্টট্র্যাক প্রকল্পের আওতায় রেখেছে একে।

কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয়, করোনা পরিস্থিতির প্রভাব পড়েছে মেট্রোরেল প্রকল্পেও। করোনার আগে তিন শিফটে কাজ চললেও পরে একটি শিফট কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা আশা করব, অন্তত এমআরটি লাইন-৬ প্রকল্পটি নির্ধারিত সময়েই বাস্তবায়িত হবে। অন্য প্রকল্পগুলোও যথাসম্ভব দ্রুত সম্পন্ন করার বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে।

দেশ যখন করোনার প্রথম ঢেউয়ের ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছিল, তখনই এসেছে দ্বিতীয় ঢেউ। ফলে আবারও ‘লকডাউন’-এর কবলে পড়েছে দেশ। মেগা প্রকল্পগুলোর কাজের সঙ্গে অনেক বিদেশি জড়িত। করোনার কারণে তারাও পুরোপুরি কাজে যোগদান করতে পারেননি। এসব বিষয় বিবেচনায় নিতে হবে অবশ্যই।

তবে এটিও সত্য, প্রকল্পের কাজ নিয়ে দীর্ঘসূত্রতার প্রবণতা রয়েছে আমাদের। মেট্রোরেলসহ মেগা প্রকল্পগুলোর ক্ষেত্রে তেমনটি যেন না-ঘটে সেদিকে সরকারকে খেয়াল রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে, চলমান মেগা প্রকল্পগুলোর সঙ্গে দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিষয়টি বিশেষভাবে জড়িত। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে এ প্রকল্পগুলোর সঙ্গে যুক্ত সবাই দায়িত্বশীলতা ও আন্তরিকতার পরিচয় দেবেন-এটাই প্রত্যাশা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন