জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলার রায়
jugantor
জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলার রায়
উচ্চ আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করুন

  সম্পাদকীয়  

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলাগুলোয় সুপ্রিমকোর্টের উভয় বিভাগ যুগান্তকারী নির্দেশনা বা রায় দিলেও তা যথাযথভাবে বাস্তবায়ন না হওয়ার বিষয়টি দুঃখজনক। এর ফলে দেশ ও সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মূলত রাজনৈতিক মদদপুষ্ট প্রভাবশালীদের কারণে উচ্চ আদালতের নির্দেশনার বেশিরভাগ তামিল হচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। অবশ্য একইসঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা, নিষ্ক্রিয়তা ও অবহেলার অভিযোগও রয়েছে। এ অবস্থায় দেশের আইন বিশেষজ্ঞরা মনিটরিং সেল গঠনের মাধ্যমে রায় বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়ার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তাদের মতে, যত প্রভাবশালীই হোক, আদালতের নির্দেশনা অমান্যকারীদের আইনের আওতায় আনা জরুরি। উল্লেখ্য, বেসরকারি পর্যায়ে কর্মরত মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন ছাড়াও বিক্ষিপ্তভাবে কিছু সংগঠন জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে মামলা করে থাকে। এছাড়া সুপ্রিমকোর্টের বেশ কয়েকজন আইনজীবী ব্যক্তিগতভাবেও এ ধরনের মামলা করে থাকেন। তবে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে জনস্বার্থে করা মামলার স্বীকৃত কোনো পরিসংখ্যান নেই। এক্ষেত্রে পরিসংখ্যান প্রস্তুতের তাগিদ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা, যা আমলে নেওয়া উচিত বলে মনে করি আমরা।

সংবিধানে স্পষ্টভাবে বলা আছে-প্রশাসন ও জনগণ সবাই উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মানতে বাধ্য। রায় বাস্তবায়ন না হলে সংবিধানের ১০৮ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা যায়। এক্ষেত্রে যে কেউ আদালত অবমাননার অভিযোগে মামলা করতে পারেন; কারণ, সুপ্রিমকোর্ট কোনো রায় দিলে সেটা ‘পাবলিক ডকুমেন্ট’ হয়ে যায়। আশার কথা, জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলার কারণে ইতোমধ্যে অনেক ক্ষেত্রে পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে। তবে এ ধরনের মামলার রায় যাতে পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয়, সেদিকে কঠোর নজরদারি প্রতিষ্ঠা করা প্রয়োজন। বস্তুত জনস্বার্থে করা মামলার নির্দেশনা কঠোরভাবে পালনের ক্ষেত্রে প্রশাসনকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে সর্বাগ্রে। এ বিষয়ে তাদের সঠিকভাবে উদ্বুদ্ধ করা না গেলে কোনো চেষ্টাই সফলতার মুখ দেখবে না। বলার অপেক্ষা রাখে না, জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলাগুলোর যেসব রায় ও নির্দেশনা ইতঃপূর্বে এসেছে এবং এর মধ্যে যেগুলোর বাস্তবায়ন হয়েছে, সেগুলো সমাজে অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে সবারই উচিত উচ্চ আদালতের রায় মানা, যা সবার জন্য বাধ্যতামূলকও বটে। আইন মেনে না চললে দেশে আইনের শাসন প্রশ্নবিদ্ধ হবে, যা মোটেই কাম্য নয়। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলাগুলোর ব্যাপারে সুপ্রিমকোর্টের উভয় বিভাগ কর্তৃক প্রদত্ত নির্দেশনা বা রায় যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা হবে, এটাই প্রত্যাশা।

জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলার রায়

উচ্চ আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করুন
 সম্পাদকীয় 
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলাগুলোয় সুপ্রিমকোর্টের উভয় বিভাগ যুগান্তকারী নির্দেশনা বা রায় দিলেও তা যথাযথভাবে বাস্তবায়ন না হওয়ার বিষয়টি দুঃখজনক। এর ফলে দেশ ও সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মূলত রাজনৈতিক মদদপুষ্ট প্রভাবশালীদের কারণে উচ্চ আদালতের নির্দেশনার বেশিরভাগ তামিল হচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। অবশ্য একইসঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা, নিষ্ক্রিয়তা ও অবহেলার অভিযোগও রয়েছে। এ অবস্থায় দেশের আইন বিশেষজ্ঞরা মনিটরিং সেল গঠনের মাধ্যমে রায় বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়ার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তাদের মতে, যত প্রভাবশালীই হোক, আদালতের নির্দেশনা অমান্যকারীদের আইনের আওতায় আনা জরুরি। উল্লেখ্য, বেসরকারি পর্যায়ে কর্মরত মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন ছাড়াও বিক্ষিপ্তভাবে কিছু সংগঠন জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে মামলা করে থাকে। এছাড়া সুপ্রিমকোর্টের বেশ কয়েকজন আইনজীবী ব্যক্তিগতভাবেও এ ধরনের মামলা করে থাকেন। তবে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে জনস্বার্থে করা মামলার স্বীকৃত কোনো পরিসংখ্যান নেই। এক্ষেত্রে পরিসংখ্যান প্রস্তুতের তাগিদ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা, যা আমলে নেওয়া উচিত বলে মনে করি আমরা।

সংবিধানে স্পষ্টভাবে বলা আছে-প্রশাসন ও জনগণ সবাই উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মানতে বাধ্য। রায় বাস্তবায়ন না হলে সংবিধানের ১০৮ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা যায়। এক্ষেত্রে যে কেউ আদালত অবমাননার অভিযোগে মামলা করতে পারেন; কারণ, সুপ্রিমকোর্ট কোনো রায় দিলে সেটা ‘পাবলিক ডকুমেন্ট’ হয়ে যায়। আশার কথা, জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলার কারণে ইতোমধ্যে অনেক ক্ষেত্রে পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে। তবে এ ধরনের মামলার রায় যাতে পুরোপুরি বাস্তবায়ন হয়, সেদিকে কঠোর নজরদারি প্রতিষ্ঠা করা প্রয়োজন। বস্তুত জনস্বার্থে করা মামলার নির্দেশনা কঠোরভাবে পালনের ক্ষেত্রে প্রশাসনকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে সর্বাগ্রে। এ বিষয়ে তাদের সঠিকভাবে উদ্বুদ্ধ করা না গেলে কোনো চেষ্টাই সফলতার মুখ দেখবে না। বলার অপেক্ষা রাখে না, জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলাগুলোর যেসব রায় ও নির্দেশনা ইতঃপূর্বে এসেছে এবং এর মধ্যে যেগুলোর বাস্তবায়ন হয়েছে, সেগুলো সমাজে অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে সবারই উচিত উচ্চ আদালতের রায় মানা, যা সবার জন্য বাধ্যতামূলকও বটে। আইন মেনে না চললে দেশে আইনের শাসন প্রশ্নবিদ্ধ হবে, যা মোটেই কাম্য নয়। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় জনস্বার্থসংশ্লিষ্ট মামলাগুলোর ব্যাপারে সুপ্রিমকোর্টের উভয় বিভাগ কর্তৃক প্রদত্ত নির্দেশনা বা রায় যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা হবে, এটাই প্রত্যাশা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন