বিনোদন চাই, বৈরিতা নয়

  আহমেদ শরীফ ২৯ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মতামত

ফুটবল বিশ্বকাপকে ঘিরে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মতো দেশ এখন দ্বিধাবিভক্ত। খেলা যত গড়াচ্ছে, ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সমর্থকদের উন্মাদনা ততই বাড়ছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বেশিরভাগ স্ট্যাটাস, কমেন্ট এখন ব্র্রাজিল-আর্জেন্টিনা নিয়ে। এক পক্ষ আরেক পক্ষকে ট্রলের মাধ্যমে ঝাঁজরা করে দিচ্ছে। দেশের কয়েকটি এলাকায় দু’পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি-মারামারির ঘটনাও ঘটেছে।

কোনো ছোট বিষয়কে বড় করে ফেলার অদ্ভুত যে গুণ আমাদের আছে, এটা তারই প্রমাণ। শুধু ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা না, জার্মানিসহ কয়েকটা বড় দলকে ঘিরেও বেড়ে চলেছে উন্মাদনা।

বাংলাদেশ ঠিক কবে বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশ নিতে পারবে, তা নিয়ে আমাদের চিন্তা একটু কমই। কারণ এ মুহূর্তে বিষয়টা প্রায় অসম্ভব বলেই মনে করেন বেশিরভাগ মানুষ। কিন্তু এরই মাঝে রাজধানীসহ দেশের প্রায় সব জেলায় বাড়ির ছাদ ছেয়ে গেছে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, জার্মানির বিশাল সব পতাকায়। কোনো কোনো পতাকা ২০/৩০ ফুট লম্বা।

টিভি রিপোর্টে দেখলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক হলের ছাদ থেকে নিচ পর্যন্ত ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার বিশাল পতাকা ঝোলানো হয়েছে। বাঙালির এই বিদেশি পতাকাপ্রীতি সবসময় পীড়া দেয়। কেউ কেউ বলেন, ‘খেলা তো খেলাই, এর মাঝে এত জটিলতা, রাজনীতি খোঁজেন কেন?’ কিন্তু আসলেই কি খেলায় রাজনীতি নেই?

৩২টি দল তাদের জাতীয় পতাকা নিয়ে হাজির হয়েছে নিজেদের দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে। প্রতিটি খেলার আগে গাইছে যার যার জাতীয় সঙ্গীত। তাহলে বিশ্বকাপ ফুটবল বা ক্রিকেট তো আন্তর্জাতিক রাজনীতিরই অংশ।

নেগেটিভ ভাবতে চাই না। তবে খারাপ লাগে যখন দেখি অন্য দেশকে সমর্থন করতে গিয়ে দেশের তরুণরা মারামারি করতেও দ্বিধাবোধ করছে না। রাস্তায় আর্জেন্টিনার জার্সি পরা এক ভক্তকে ব্রাজিল ভক্তরা ধরে পিটিয়েছে এমন খবরও শুনেছি। ফেসবুকে দেখলাম আর্জেন্টিনা ভক্তরা পতাকা নিয়ে ও জার্সি পরে মোটরসাইকেল র‌্যালি করছে! এসব কি বাড়াবাড়ি নয়?

পৃথিবীর আর কোনো দেশে অন্য দেশের এমন বিশাল পতাকা নিয়ে এত উল্লাস হয় কিনা, অন্য দেশের সমর্থনে হাতাহাতি-মারামারি, বিতর্ক-ট্রল হয় কিনা তা একটা বড় প্রশ্ন। এমনটা করার সময় আমরা কি নিজেদের জাতীয় সত্তাকে সাময়িক সময়ের জন্য হলেও ভুলে যাই না? ধরুন আপনি অন্য কোনো দেশের নাগরিক। বেড়াতে এসেছেন এদেশে। বাড়ির ছাদে বিশাল সব ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার পতাকা দেখে কী ধারণা হবে আপনার?

খেলার উত্তেজনার চেয়ে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার সমর্থকরা দেশ দুটিকে এত বেশি সমর্থন করে যে তা রীতিমতো লজ্জাজনক। বিষয়টা এমন- দলের সঙ্গে সঙ্গে ওই সমর্থকরাও যেন নিজেই জিততে চায়। ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা বা জার্মানির সমর্থকরা কেউ হারতে চায় না।

এটা অনেকটা মনস্তাত্ত্বিক বিষয়। আর দুঃখজনক হল, এক্ষেত্রে রাজনীতিক, সাংবাদিক, ডাক্তার, অভিনয়শিল্পী, গায়ক-গায়িকাসহ সর্বস্তরের সচেতন মানুষও একই স্রোতে গা ভাসায়। আমি খেলা ও যে কোনো দেশের ফুটবল তারকার সমর্থনে বিশ্বাস করি।

কিন্তু অন্য একটি দেশকে সমর্থন করে তার জন্য জানপ্রাণ উৎসর্গ করে দেয়ার মতো অতিমাত্রায় উচ্ছ্বাসের পক্ষপাতী নই। সাধারণ দর্শক হিসেবে ফুটবল খেলাটা উপভোগ করব, এটাই স্বাভাবিক। কোনো দল বা স্টারকে সমর্থন করতেই পারি আমরা।

কিন্তু তার জন্য এক পক্ষ আরেক পক্ষের সঙ্গে অহেতুক মারামারি-ঝগড়া করা- এসব নিশ্চয়ই স্বাভাবিক ঘটনা নয়। বিশ্বকাপ ফুটবলের উত্তেজনা আমাদের জীবনে বিনোদন দিক, বৈরিতা নয়।

আহমেদ শরীফ: সাংবাদিক

ঘটনাপ্রবাহ : বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter