চালকের আসনে কে?

প্রকাশ : ২৮ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  তামান্না আক্তার

অদক্ষ চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালনার কারণে প্রতিদিন অহরহ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। কেউ বেপরোয়া গাড়ি চালিয়ে প্রাণহানি ঘটালেও শাস্তির নজির খুব কম। সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারণ অদক্ষ চালক। সেই সঙ্গে ফিটনেসবিহীন গাড়ি।

যখন কোনো চালকের সহকারী বা হেলপার গাড়ি চালায় তখন দুর্ঘটনা ঘটা খুবই স্বাভাবিক। অতীতেও এমন ঘটনা অনেক ঘটেছে। গত তিন বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় শুধু স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীর মৃত্যুসংখ্যা প্রায় ১ হাজার। সম্প্রতি শহীদ রমিজ উদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী অদক্ষ চালকের কারণে অকালে প্রাণ হারিয়েছে। শুধু রমিজ উদ্দিন কলেজের শিক্ষার্থীই নয়, বিভিন্ন সময়ে অনেকেই এ রকম অপ্রত্যাশিত দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন।

একটু পেছনে তাকালেই এরকম অনেক মর্মান্তিক দুর্ঘটনার ছবি চোখের সামনে ভেসে ওঠে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে টাঙ্গাইলে ট্রাকের সঙ্গে একটি টেম্পোর মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের চারজনসহ ১০ জন নিহত হয়। দুর্ঘটনায় টেম্পোর সব যাত্রীই প্রাণ হারায়। ট্রাকটি চালাচ্ছিল চালকের সহকারী। এই হেলপাররা সহকারী হিসেবে কিছুদিন কাজ করতে না করতেই চালক বনে যায়। চালকরাও আনাড়ি সহকারীর হাতে তুলে দেয় গাড়ির চাবি। গাড়ির মালিকরা বিষয়টি নিয়ে মাথা ঘামান না। তারা একটুও ভাবেন না এসব আনাড়ি লোকজনের হাতে গাড়ির চাবি তুলে দেয়ার পরিণতি কী হতে পারে। এসব সহকারীর না আছে গাড়ি চালানোর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা, না আছে ড্রাইভিং লাইসেন্স। গাড়ির কলকব্জা সম্পর্কেও তাদের তেমন ধারণা নেই। এসব অভিজ্ঞতা ছাড়াই তারা দাপটের সঙ্গে সড়ক-মহাসড়কে বাস-ট্রাক চালিয়ে যাচ্ছেন। অনেকে ভুয়া লাইসেন্স জোগাড় করে নির্ভয়ে গাড়ি চালাচ্ছেন। কী ভয়াবহ ব্যাপার!

এসব সহকারীর অনেকের বয়স খুবই কম। রাজধানীর বিভিন্ন পথে চলছে লেগুনা, টেম্পো, হিউম্যান হলারসহ নানা ধরনের ছোটখাটো যাত্রী বহনকারী যান। একটু খেয়াল করলেই দেখবেন এসব যানের অধিকাংশ চালকের আসনে বসে আছে শিশু-কিশোররা। এসব চালকের বেশিরভাগই আগে চালকের সহকারী হিসেবে কাজ করেছে। প্রশ্ন হচ্ছে, এভাবে আর কতদিন চালকের সহকারীরা গাড়ি চালাবে? তাদের বেপরোয়া গাড়ি চালানোর কারণে আর কত মানুষের জীবন যাবে? এসব অদক্ষ সহকারীর হাতে আর কতদিন আমাদের জীবন জিম্মি হয়ে থাকবে? এ ব্যাপারে কি কারও কিছু করার নেই?

চালকের আসনে কে বসে আছে, এটা আমরা বেশিরভাগ সময় খেয়ালই করি না। আমরা নিশ্চিন্তে আমাদের জীবন অদক্ষ চালকদের হাতে তুলে দেই। আর দুর্ঘটনা ঘটলে ভাগ্যের লিখন বলে সান্ত্বনা খুঁজি। তবে সব দুর্ঘটনার দায় এককভাবে চালকের সহকারীদের নয়। বেহাল সড়ক, ফিটনেসবিহীন গাড়ি রাস্তায় নামানো, চালকের অসতর্কতা বা গাফিলতি, ফাঁকা সড়কে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালনা, সাইড না পেয়ে ওভারটেক করার চেষ্টা, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ও বিরতিহীনভাবে গাড়ি চালনা ইত্যাদিও অনেকাংশে দায়ী।

গাড়ির অদক্ষ চালকদের নিয়ে এ পর্যন্ত বহু কথা হয়েছে। কিন্তু অদক্ষ চালকদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এমনটা কমই দেখা গেছে। এ রকম চলতে থাকলে সড়ক দুর্ঘটনা বাড়তে থাকবে, এটাই স্বাভাবিক। ভুয়া লাইসেন্সধারী চালক আর ফিটনেসবিহীন গাড়ি আটক করতে হবে। কোনো চালক একবার দুর্ঘটনা ঘটালে সে যেন আর সহজে রাস্তায় গাড়ি নামাতে না পারে সে ব্যাপারে প্রশাসনকে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।

তামান্না আক্তার : শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়