তিন প্রকল্পের উদ্বোধন

ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক আরও সৃদৃঢ় হোক

প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক   

বাংলাদেশে বিদ্যুতের চাহিদা দ্রুত বাড়ছে। এ প্রেক্ষাপটে দেশে উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বিদ্যুৎ আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এটিকে সরকারের দূরদর্শী পরিকল্পনা হিসেবেই বিবেচনা করা যায়। গত সোমবার তিনটি প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিদ্যুতের বাড়তি চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে ২০৪১ সাল নাগাদ প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে ৯ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা রয়েছে তার সরকারের। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একযোগে বিদ্যুৎ ও রেল যোগাযোগের তিন প্রকল্প উদ্বোধনকালে ভারত-বাংলাদেশের স্থলসীমানা সমস্যার সমাধানের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন- আশা করি ভবিষ্যতে আরও সহযোগিতার নতুন নতুন ক্ষেত্র নিয়ে আমরা দু’দেশের জনগণের সামনে উপস্থিত হতে পারব। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিদ্যুৎ, যোগাযোগ, অবকাঠামো উন্নয়ন, জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পর্কের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে। দু’দেশের সম্পর্ক যাতে আরও দৃঢ় হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী তার বক্তৃতায় বলেন, আজ থেকে আমরা আরও কাছে এলাম, আমাদের সম্পর্ক আরও গভীর হল। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তার বাসভবন গণভবন থেকে এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নয়াদিল্লির তার কার্যালয় থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী কলকাতা থেকে এবং ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী আগরতলা থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। ই-সুইচ টিপে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী একযোগে প্রকল্প তিনটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। সোমবার যে প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন করা হয়েছে সেগুলো হল- কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় নবনির্মিত ৫০০ মেগাওয়াট এইচভিডিসি (২য় ব্লক) প্রকল্প, বাংলাদেশ রেলওয়ের ‘কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশন পুনর্বাসন’ এবং ‘আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েল গেজ রেল সংযোগ নির্মাণ (বাংলাদেশ অংশ)।’

আমরা আশা করব, তিস্তা চুক্তিসহ ভারতের সঙ্গে অমীমাংসিত বিষয়গুলোর দ্রুত নিষ্পত্তি ঘটবে। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ দেশের লক্ষ্যে পৌঁছার ক্ষেত্রে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে যৌগ উদ্যোগে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলে দ্রুত ভালো ফল মিলবে। এক্ষেত্রে মহাকাশ গবেষণার কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করা যায়। স্বল্প ব্যয়ে মহাকাশ গবেষণায় সফল হয়ে ভারত বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। ভারতের সহযোগিতায় বাংলাদেশও মহাকাশ গবেষণায় এগিয়ে যেতে পারে।