সুপারিশ উপেক্ষা

সংসদীয় স্থায়ী কমিটি থাকার সার্থকতা কী?

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

অর্থ মন্ত্রণালয়

দশম জাতীয় সংসদের অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বেশিরভাগ সুপারিশই বাস্তবায়িত হয়নি। শুধু তা-ই নয়, ১২২টি সুপারিশের মধ্যে যে ৪০টি সুপারিশ বাস্তবায়িত হয়েছে, সেগুলো ছিল তুলনামূলক কম গুরুত্বপূর্ণ।

অতি গুরুত্বপূর্ণ এবং দেশের ব্যাংক ও আর্থিক খাতের উন্নয়নের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত সুপারিশগুলো রয়ে গেছে উপেক্ষিত। এমনকি যিনি সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করবেন, সেই অর্থমন্ত্রীই নিয়মিত হাজির হতেন না বৈঠকে।

দেখা গেছে, মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠক বাদ দিয়ে মন্ত্রী কোনো সামাজিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হচ্ছেন। মন্ত্রী যদি বৈঠকে উপস্থিত না হন, তবে গুরুত্বপূর্ণ সুপারিশগুলো উপেক্ষিত থেকে যাওয়াই স্বাভাবিক এবং হয়েছেও তাই।

অথচ সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন হলে দেশের আর্থিক খাতে ইতিবাচক পরিবর্তন আসতে পারত। ভবিষ্যতে যেন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীসহ মন্ত্রণালয়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে উপস্থিত থাকেন এবং গুরুত্বপূর্ণ সুপারিশ দ্রুত বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেন, তা নিশ্চিত করতে হবে।

জানা যায়, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির যে ৮২টি সুপারিশ আলোর মুখ দেখেনি, সেগুলোর মধ্যে ঋণের সুদহার হ্রাস, বহুল আলোচিত রিজার্ভ চুরির প্রতিবেদন প্রকাশ, বিনিয়োগ ও শিল্প তথা সার্বিক উন্নয়নের স্বার্থে সিঙ্গেল ডিজিটে সুদহার নামানো, আর্থিক অনিয়ম দূর করতে ব্যাংকিং খাতে সংস্কার, পাচার হওয়া টাকা উদ্ধার এবং বিদেশে সেকেন্ড হোম নির্মাণে নেয়া টাকা কীভাবে গেছে তার তদন্ত, সর্বোপরি মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন রোধে আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিটকে সুনির্দিষ্ট ঘটনার তদন্ত এবং দুদক, রাজস্ব বোর্ড ও বাংলাদেশ ব্যাংককে সমন্বিত কার্যক্রম গ্রহণের বিষয়ও রয়েছে।

এসব সুপারিশ যদি মন্ত্রণালয় আমলে নিয়ে ইতিবাচক পদক্ষেপ নিত, তাহলে দেশের আর্থিক খাতে শৃঙ্খলা ফেরানো এবং ব্যাংকের অনিয়মকারীদের জবাবদিহিতার আওতায় আনা যেত।

দুর্ভাগ্যজনক, কেবল অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিই নয়, অন্যান্য স্থায়ী কমিটির সুপারিশও আমাদের দেশে বাস্তবায়িত হয় না। অথচ সংসদীয় ব্যবস্থার অন্যান্য দেশে এ ধরনের কমিটিকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেয়া হয় এবং তাদের কাছে মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টদের জবাবদিহি করতে হয়।

এ কারণে খাতওয়ারি উন্নয়নে ভালো ফল পাওয়া যায়। আমরা মনে করি, বিদ্যমান অবস্থার পরিবর্তন ঘটিয়ে ভবিষ্যতে সংসদীয় স্থায়ী কমিটিগুলোকে শক্তিশালী করা, সুপারিশ বাস্তবায়ন না হলে জবাবদিহিতার ব্যবস্থা করা এবং মন্ত্রীসহ সদস্যদের বৈঠকে উপস্থিতি নিশ্চিত করা দরকার। সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকেই এ সংক্রান্ত উদ্যোগ নিতে হবে।

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter