সিলেট-৬: নির্বাচিত হলে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার করবেন সালেহ
jugantor
সিলেট-৬: নির্বাচিত হলে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার করবেন সালেহ

  গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি  

২৪ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেট-৬ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী চৌধুরী সালেহ আহমদ

সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ও ফ্রান্স আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা চৌধুরী সালেহ আহমদ। তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে এ দুই উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার নির্মাণ করব।

যাতে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে পারে। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার আওয়ামী লীগসহ অঙ্গসংগঠনের অবহেলিত তৃণমূল নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে।

সুরমা এবং কুশিয়ারা নদীর ভাঙন রোধে কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হবে। তিনি মঙ্গলবার গোলাপগঞ্জের পৌর শহরের একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে যুগান্তরের সঙ্গে একান্ত আলাপকালে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমি দলের নিবেদিত প্রাণ।

ছাত্রজীবন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বর্তমানে ফ্রান্স-বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি।তিনি বলেন, এলাকার সঙ্গে রয়েছে আমার হৃদয়ের সম্পর্ক। আমি দীর্ঘদিন থেকে নির্বাচনী মাঠে রয়েছি।

দুই উপজেলায় গণসংযোগ, মতবিনিময় সভা, উঠোন বৈঠক ও সভা অব্যাহত রেখেছি। এসব সভায় আমি ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি।

তিনি বলেন, নির্বাচিত হলে আমি গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার উপজেলার বেকারত্ব দূরীকরণের ব্যবস্থা, সুরমা-কুশিয়ারা নদীর ভাঙন রোধে বেড়িবাঁধ নির্মাণ, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত লোকদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। দুর্নীতি রোধে মুক্ত সালিশি ব্যবস্থা করা হবে। যাতে নাগরিকদের অধিকার নিশ্চিত হয়।

সুরমা নদীর ওপর বাঘা মাদ্রাসা ঘাটে ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করব। তাছাড়া এ দুই উপজেলায় ভাঙাচোরা রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ করে একটি মডেল জোন হিসেবে গড়ে তুলব। তিনি বলেন, দুই উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করব।

সিলেট-৬: নির্বাচিত হলে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার করবেন সালেহ

 গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি 
২৪ অক্টোবর ২০১৮, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
সিলেট-৬ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী চৌধুরী সালেহ আহমদ
সিলেট-৬ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী চৌধুরী সালেহ আহমদ। ছবি: যুগান্তর

সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ও ফ্রান্স আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা চৌধুরী সালেহ আহমদ। তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে এ দুই উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার নির্মাণ করব।

যাতে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে পারে। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার আওয়ামী লীগসহ অঙ্গসংগঠনের অবহেলিত তৃণমূল নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে।

সুরমা এবং কুশিয়ারা নদীর ভাঙন রোধে কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হবে। তিনি মঙ্গলবার গোলাপগঞ্জের পৌর শহরের একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে যুগান্তরের সঙ্গে একান্ত আলাপকালে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমি দলের নিবেদিত প্রাণ।

ছাত্রজীবন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। বর্তমানে ফ্রান্স-বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি।তিনি বলেন, এলাকার সঙ্গে রয়েছে আমার হৃদয়ের সম্পর্ক। আমি দীর্ঘদিন থেকে নির্বাচনী মাঠে রয়েছি।

দুই উপজেলায় গণসংযোগ, মতবিনিময় সভা, উঠোন বৈঠক ও সভা অব্যাহত রেখেছি। এসব সভায় আমি ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি।

তিনি বলেন, নির্বাচিত হলে আমি গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার উপজেলার বেকারত্ব দূরীকরণের ব্যবস্থা, সুরমা-কুশিয়ারা নদীর ভাঙন রোধে বেড়িবাঁধ নির্মাণ, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত লোকদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। দুর্নীতি রোধে মুক্ত সালিশি ব্যবস্থা করা হবে। যাতে নাগরিকদের অধিকার নিশ্চিত হয়।

সুরমা নদীর ওপর বাঘা মাদ্রাসা ঘাটে ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করব। তাছাড়া এ দুই উপজেলায় ভাঙাচোরা রাস্তাঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ করে একটি মডেল জোন হিসেবে গড়ে তুলব। তিনি বলেন, দুই উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করব।