কিশোরগঞ্জ-৬: আ’লীগের দুর্গ ভাঙার চেষ্টায় বিএনপি

  আসাদুজ্জামান ফারুক, ভৈরব ২১ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কিশোরগঞ্জ
নাজমুল হাসান পাপন, শরীফুল আলম, মো. গিয়াসউদ্দিন ও ইফতেখার হোসেন বেনু (বাঁ থেকে)

কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়ারচর) আসনে নির্বাচনী বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীরা মাঠে প্রচারণা ও নির্বাচনী মিছিল ও জনসভা শুরু করেছে। তবে এ আসনে দলীয় প্রার্থী নিয়ে যতটা না আলোচনা, তার চেয়ে বেশি আলোচনা ভোটের ইস্যু নিয়ে।

কারণ, বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দলীয় মনোনয়ন অনেকটাই চূড়ান্ত। সম্ভাব্য প্রার্থীদের গণসংযোগ, সভা-সমাবেশ আর প্রচারণায় এ আসনে ভোটযুদ্ধের তৎপরতা বেশ জোরেশোরেই এগিয়ে চলেছে। ভোটারদের মাঝেও চলছে এ নিয়ে নানা হিসাব-নিকাশ।

এ আসনটি আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিত। স্বাধীনতার পর অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান নির্বাচনে পাঁচবার ভৈরব কুলিয়ারচর আসন থেকে নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালে মো. জিল্লুর রহমান রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলে উপ-নির্বাচনে তার ছেলে নাজমুল হাসান পাপন এমপি হন। নাজমুল হাসান পাপন বিসিবির সভাপতি।

ভৈরব উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবদুল হেকিম রায়হান বলেন, নাজমুল হাসান পাপন এমনিতেই সজ্জন মানুষ। সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি তার মার্জিত ব্যবহার ও সদালাপি আচরণ দিয়ে ক্রমেই জিতে নেন এলাকাবাসীর হৃদয়।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি পিতার সততার রাজনীতির আদর্শ হিসেবে কাজ করছেন তার নির্বাচনী এলাকায়। অন্যদিকে, বিএনপি থেকে অষ্টম সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়া দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কিশোরগঞ্জ জেলা সভাপতি শরীফুল আলমকে এবারো মনোনয়ন দেয়া হবে বলে সবার প্রত্যাশা।

তিনি এবারও মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন বলে জানা গেছে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে এ আসনে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের বিপক্ষে চারদলীয় জোট প্রার্থী হিসেবে প্রথমবারের মতো প্রার্থী হন বিএনপি নেতা মো. শরীফুল আলম। নাজমুল হাসান পাপনের নিজ উপজেলা ভৈরব এবং মো. শরীফুল আলমের উপজেলা কুলিয়ারচর।

এই আসনের দুই উপজেলা থেকে দুই প্রধান দলের প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় দলীয় হিসাবের বাইরে নির্বাচনে আঞ্চলিকতাও ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়ায়। এছাড়াও বিএনপি থেকে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন দল থেকে বহিষ্কৃত ভৈরব উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও ভৈরব উপজেলা চেয়ারম্যান মো. গিয়াসউদ্দিন।

এর আগে গিয়াসউদ্দিনকে দু’বার মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল। তিনি বলেন, আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে আমার দল বিএনপি থেকে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছি। যদি আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয় তাহলে আমি এ আসন থেকে বিপুল ভোটে বিজয়ী হব।

এদিকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশায় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন ভৈরব পৌর আওয়ামী লীগ সাবেক সভাপতি ইফতেখার হোসেন বেনু । তিনি গত পৌর নির্বাচনে ও দলীয় মনোনয়ন চেয়ে পাননি। ইফতেখার হোসেন বেনু জানান, আমি ভৈরব পৌর আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিন সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছি। দেশনেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে ভৈরব-কুলিয়ারচর আসনে মনোয়ন দেয় তাহলে বিপুল ভোটে জয়ী হবে।

ভৈরব উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম জানান, শরীফুল আলমের পক্ষে বিভিন্ন গ্রাম-গঞ্জে গণসংযোগ, জনসভা ও কর্মিসভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, নির্বাচনী আচরণবিধি রক্ষায় শরীফুল আলম নির্বাচনী প্রচারণায় মাঠে নামছেন না। তবে মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার পরই তিনি প্রচারণায় অংশগ্রহণ করবেন। ভৈরব উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সেন্টু জানান, নাজমুল হাসান পাপন দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন, এটা নিশ্চিত। তিনি নিয়মিতই নির্বাচনী এলাকায় আসছেন এবং ভৈরব-কুলিয়ারচরের বিভিন্ন গ্রামগঞ্জে জনসংযোগসহ জনসভা করছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : কিশোরগঞ্জ-৬: জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×