নরসিংদী-২: ফুরফুরে মেজাজে আ’লীগ উৎকণ্ঠায় বিএনপি

প্রকাশ : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  নরসিংদী প্রতিনিধি

নরসিংদী-২ পলাশ উপজেলার রাজনৈতিক অঙ্গন মাকিং আর পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে পাল্লা দিয়ে চালানো হচ্ছে মিটিং-মিছিল, গণসংযোগ ও উঠান বৈঠক।

সাত ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র ও উপজেলা চেয়ারম্যানসহ দলীয় নেতারা একাট্টা হয়ে নৌকার ভোট চেয়ে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। প্রচারণা ও গণসংযোগ চালাতে বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন বিএনপি নেতারা। বিএনপি নেতাকর্মীদের অভিযোগ, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান প্রচারণায় নামলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বাধার মুখে পড়তে হচ্ছে। গণসংযোগ চালানোর সময় হামলার শিকার হতে হচ্ছে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিএনপি উৎকণ্ঠায় থাকলেও ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে আওয়ামী লীগ।

নির্বাচন কমিশনারের কাছে ভোটারদের দাবি, তারা যেন সুষ্ঠু পরিবেশে নিজের ভোট নিজে দিতে পারেন। নির্বাচন কমিশন ও দলীয় সূত্রে জানা যায়, চারটি ইউনিয়ন, একটি পৌরসভা ও নরসিংদী সদরের তিনটি ইউনিয়নের একাংশ নিয়ে গঠিত নরসিংদী-২ পলাশ উপজেলার নির্বাচনী এলাকা। এখানে মোট ভোটার ২ লাখ ৩৪ হাজার ৩৭৩ জন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নরসিংদী-২ পলাশ আসনে নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়ছেন পলাশ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক এমপি ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ। ধানের শীষের প্রতীক নিয়ে লড়ছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দলের হাতপাখা নিয়ে লড়ছেন মো. আরিফুল ইসলাম। বিএনপির প্রার্থী ড. আবদুল মঈন খান অভিযোগ করে বলেন, আওয়ামী লীগের লোকজন পলাশ উপজেলাকে সন্ত্রাসীদের জনপদ তৈরি করেছে। আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা দা, চাইনিজ কুড়াল ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে আমাদের ওপর হামালা করার প্রস্তুতি নিয়েছে। নির্বাচন কমিশন ও পুলিশ প্রশাসনকে জানিয়েও কোনো লাভ হচ্ছে না। অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ বলেন, বিএনপির লোকজনের কমন একটি অভিযোগ, তাদের প্রচারণায় বাধা দেয়া হচ্ছে। বাস্তবে এটি সত্য নয়।