বিচিত্র

শরণার্থীদের জন্য অভিনব অস্থায়ী বাড়ি

  একদিন প্রতিদিন ডেস্ক ১২ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শরণার্থীদের জন্য অভিনব অস্থায়ী বাড়ি

শরণার্থী শিবিরে অস্থায়ী তাঁবুতে অসহায় মানুষদের সমস্যার সমাধান করতে জার্মান বিজ্ঞানীরা এক অভিনব বাড়ি তৈরি করেছেন।

ফোল্ডিং এই বাড়ি পরিবহন করাও সহজ।

বর্তমানে সারা বিশ্বে প্রায় ৫ কোটি মানুষ ভিটেমাটি ছাড়া। হিংসা, যুদ্ধ, অত্যাচার থেকে বাঁচতে তারা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বসবাস করছেন শরণার্থী শিবিরে তাঁবুর মধ্যে। নিরাপত্তাহীন ও মর্যাদাহীন সেই জীবন।

ডার্মস্টাট প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আরিয়েল আউসলেন্ডার দুই বছর আগে কয়েকজন ছাত্রছাত্রী ও সহকর্মীকে নিয়ে একটি ফোল্ডিং বাড়ি তৈরি করেছিলেন।

এটি সহজেই পরিবহন করা যায়। দ্রুত তৈরি করা যায় যন্ত্রপাতি ছাড়াই। কার্ডবোর্ড দিয়ে তৈরি হলেও এটি একটি বাড়ি তো বটে। সহজ উপায়ে মানুষকে তার হারানো জীবনযাত্রা যতটা সম্ভব ফিরিয়ে দেয়ার প্রচেষ্টা।

এই বাড়ি তৈরি করা সত্যি খুব সহজ। চারজন মিলে দুটি প্রায় ৬ মিটার উঁচু প্রাচীর টেনে ধরে। ক্রিসমাস কার্ডের মতো বাড়িটি তখন সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে ওঠে। সেই কাঠামোয় ফোল্ড করা ভেতরের দেয়াল, ঘর ভাগ করার দেয়াল ও র‌্যাক বাড়িটিকে স্থিতিশীল করে তোলে।

হাতে করে ফোল্ডেড জানালা-দরজার ভাঁজ খুলে দিতে হয়। বাসিন্দাদের আসবাবপত্রও কার্ডবোর্ড দিয়ে তৈরি। দুটি বেঞ্চ ছাড়াও বাড়িতে একটি খাটও রয়েছে।

এই বাড়িকে ফোল্ডিং করে তোলা ছিল সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। এক অরিগামি-বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিয়ে অবশেষে সাফল্য এসেছে। এখন ৬টি ফোল্ডিং বাড়ি একটি কন্টেনারে করে পরিবহন করা সম্ভব।

শুধু ছোট আকার নয়, এই বাড়িটি টেকসই করতে নানা ধরনের কাগজ ও কার্ডবোর্ড দিয়ে অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাতে হয়েছে। ফলে বাড়ির প্রতিটি দেয়াল মাত্র ৩ সেন্টিমিটার পুরু হওয়া সত্ত্বেও মিটার-প্রতি প্রায় ৭০০ কিলোগ্রাম ওজন বহন করার ক্ষমতা রয়েছে। সব মিলিয়ে হালকা করতে করুগেটেড বোর্ড ব্যবহার করা হয়েছে। এই বোর্ডের ওপর ও নিচের স্তরে পুরু কাগজ থাকে।

মাঝে থাকে ঢেউ খেলানো একটা স্তর যা দুটি স্তরকে আলাদা রাখে। ফলে সেটি খুব মজবুত হয়। এক্ষেত্রে এই হানিকোম্ব প্লেটের ধারে করুগেটেড বোর্ড বসানো আছে। ফলে ওজন হালকা হলেও খুব টেকসই।

কিন্তু কার্ডবোর্ড পানি আটকাতে পারে না। এটাও বড় সমস্যা। কার্ডবোর্ড সেলুলোজ ফাইবার দিয়ে তৈরি, যা সাধারণ অবস্থায় তরল শুষে নেয়। তবে এর সমাধানও করেছেন বিজ্ঞানীরা।

কার্ডবোর্ডের ওপর টেকসই উপাদান দিয়ে তৈরি এক ধরনের অরগ্যানিক প্লাস্টিকের পাতলা স্তর স্প্রে করে দিতে হয়। এর ওপর পানি ঢাললে দেখা যাবে, সেই পানি বিন্দু হয়ে সরে যাচ্ছে।

এই স্তর কিন্তু এক মিলিমিটারের কয়েক হাজার ভাগ কম পুরু। কয়েক ঘণ্টা ধরে পানি ঢাললেও কার্ডবোর্ড ভিজবে না। এটি বেশ স্থিতিশীল, বসবাসের জন্যও উপযোগী। দরজা বন্ধ করে দিলে বাসিন্দারা নিজস্ব এক চার-দেয়াল পেয়ে স্বাভাবিক জীবনের কিছুটা স্বাদ পান বৈকি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×