জীবনকথা

সাড়া জাগানো রূপসী অভিনেত্রী গাল গাদোত

  সেলিম কামাল ০১ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সাড়া জাগানো রূপসী অভিনেত্রী গাল গাদোত
সাড়া জাগানো অভিনেত্রী গাল গাদোত

গাল গাদোত। ইতিমধ্যেই পুরো বিশ্বকে নিজের রূপ আর গুণে নাড়িয়ে দিতে সক্ষম হয়েছেন। ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস দিয়ে হলিউডে পা রেখে জনপ্রিয়তা অর্জন করা এ রূপসী স্থায়ীভাবে নিজের আসন পাকাপোক্ত করেছেন নিখুঁত অভিনয় করে।

১৯৮৫ সালের ৩০ এপ্রিল ইসরায়েলের রোশ হায়োয়াইন শহরে জন্ম হয়েছিল গাল গাদোতের। মা আইরিত গাদোত ছিলেন শিক্ষিকা এবং বাবা মাইকেল গাদোত ছিলেন একজন প্রকৌশলী।

স্কুলে বায়োলজি ছিল তার প্রধান পছন্দের বিষয়। তার উচ্চতা তাকে বরাবরই বাস্কেটবল খেলায় একজন দারুণ খেলোয়াড় হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করেছিল, যার জন্যে স্কুলজীবনে বাস্কেটবলে গাল গাদোতের বেশ সুনাম ছিল। পরবর্তী সময়ে আইন এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে আইডিসি হার্জলিয়া কলেজ থেকে নিজের ডিগ্রি সম্পন্ন করেন।

২০০৪ সালে আঠারো বছর বয়সে গাল গাদোত ইসরায়েলের সম্মানসূচক মিস ইসরায়েল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে জয়ের মুকুট ছিনিয়ে নেন। একই বছর ইকুয়েডরে অনুষ্ঠিত মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ইসরায়েলের প্রতিনিধিত্ব করেন। ২০০৬ সালে গাল গাদোতের বয়স যখন ২০-এর কোঠায়, তখন তিনি দু’বছরের জন্য ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনীতে যোগ দেন যুদ্ধ প্রশিক্ষক হিসেবে। এর পরের বছর ২০০৭ সালে জনপ্রিয় ম্যাগাজিন ম্যাক্সিমের ফিচারে তার নাম আসে ‘ওম্যান অফ দ্য আইডিএফ’ শিরোনামে এবং সেই সময়ই নিউ ইয়র্ক পোস্টে ফিচার ছাপা হয় তাকে নিয়ে। সামরিক বাহিনী থেকে বের হয়ে গাল গাদোত দুটি কাজ করার সিদ্ধান্ত নেন। প্রথমে তিনি আইন বিষয়ের ডিগ্রি নেয়ার জন্য পড়াশোনা শুরু করেন এবং শোবিজ দুনিয়ায় নিজেকে পুরোপুরিভাবে মেলে ধরেন। ২০০৭ সালে ‘বুবোত’ নামের ইসরায়েলি এক টেলিভিশন সিরিজে অভিনয়ের কাজও জুটে যায়।

একই বছর সেপ্টেম্বরে ইসরায়েলের নাগরিক এবং রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী ইয়ারুন ভারসানোকে বিয়ে করেন গাল গাদোত। এ সুখী দম্পতির দুটি কন্যাসন্তান আছে, ২০১১ সালে আলমা ভারসানো এবং ২০১৭ সালে মায়া ভারসানোর জন্ম হয়। আর এ দম্পতি ইসরায়েলের বিলাসবহুল হোটেলেরও মালিক। গাল গাদোত এবং ইয়ারুন ভারসানোর দেখা হয়েছিল ইসরায়েলের এক পার্টিতে। যদিও গাদোতের চেয়ে বয়সে ভারসানো প্রায় ১০ বছরের বড়, তবু দু’বছরের প্রণয় বিয়েতে পরিণত হয়। গাল গাদোত একজন মোটরসাইকেলপ্রেমী। বর্তমানে তিনি ডুকাটি মনস্টার এস২আর ২০০৬ মডেলের একটি মোটরসাইকেল চালান।

বিয়ের পরের বছর গাল গাদোত আর ইয়ারুন ভারসানো নিজেদের বিলাসবহুল হোটেল রাশিয়ান এক ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করে দেন এবং জীবনে সামনে কে কী করবেন তা নিয়ে চিন্তা করছিলেন। আর ঠিক তখনই জেমস বন্ডের কাস্টিং ডিরেক্টরের ফোন পান গাল গাদোত। জনপ্রিয় ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস মুভির চতুর্থ পর্বে গিজেলের ভূমিকায় অভিনয়ের সুযোগ পেয়ে যান। বিন্দুমাত্র দ্বিধা না করে ইয়ারুন ভারসানোর উৎসাহে গাল গাদোত হলিউডের বড় পর্দায় নিজের নাম লেখান ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াসের চতুর্থ পর্বে।

দর্শকপ্রিয়তার পাশাপাশি আলোচক এবং সমালোচকদের নজর কাড়তে সক্ষম হন গাল গাদোত। ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াসের চতুর্থ পর্বের অভিনয় দক্ষতায় আবারও পরিচালকের কাছ থেকে ডাক পান এবং একে একে পঞ্চম ও ষষ্ঠ পর্বেও অভিনয় করেন। ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াসের সঙ্গে চুক্তি শেষে গাল গাদোত পরের বছর একটি ইসরায়েলি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন এবং তার পরের বছর আবারও হলিউডে ফেরত আসেন ট্রিপল নাইন মুভিতে অভিনয় করে। আর ঠিক এরপরই গাল গাদোতের নাম বদলে যায় পুরো বিশ্বের কাছে- তাকে এখন সবাই চেনে এবং জানে ওয়ান্ডার ওম্যান নামে। জ্যাক স্নাইডার পরিচালিত ‘ব্যাটম্যান ভার্সেস সুপারম্যান : ডন অফ জাস্টিস’ মুভিতে প্রথমবারের মতো ওয়ান্ডার ওম্যানের চরিত্রে নিজেকে প্রকাশ করেন গাল গাদোত। ২০১৭ সালেই পেটি জেনকিংস বিশ্বব্যাপী দর্শকদের উপহার দেন ওয়ান্ডার ওম্যান মুভিটি। দুর্দান্ত অভিনয় দিয়ে হলিউডে নিজের অবস্থান পাকাপোক্ত করে ফেলেন গাল গাদোত। ওয়াল্ট ডিজনি অ্যানিমেশন স্টুডিওর ‘রালফ ব্রেকস দ্য ইন্টারনেট’ নামের অ্যানিমেশন মুভিতে সাং-এর চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×