চিত্রবিচিত্র

অদ্ভুত ৩ ক্যাকটাস

মরুভূমি যেমন অদ্ভুত জায়গা তেমনই বৈচিত্র্যময় এর উদ্ভিদ জগৎ। ৩টি অদ্ভুত আর বৈচিত্র্যময় ক্যাকটাস নিয়ে আজকের আয়োজন।

  একদিন প্রতিদিন ডেস্ক ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জাম্পিং কোলা

জাম্পিং কোলা নামের এ উদ্ভিদটি ‘টেডি বিয়ার কোলা’ নামেও পরিচিত। আমেরিকার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় মরুভূমিগুলোতে এ ক্যাকটাস উদ্ভিদটি দেখা যায়। প্রধান কাণ্ড থেকে অসংখ্য ছোটবড় শাখা কাণ্ড বের হয়, যেগুলো অত্যন্ত ঘন, তীক্ষ্ম কাঁটায় পরিপূর্ণ। এত বেশি কাঁটার কারণে এর দেহকাণ্ড দেখতে মোলায়েম মনে হয়। তবে প্রতিরক্ষার পাশাপাশি এর কাঁটাগুলো আরও একটি জরুরি কাজ করে, আর তা হল পানি সংগ্রহ। এমনকি পাতাবিহীন এ উদ্ভিদের পাতার কাজও করে এই কাঁটাগুলোই। প্রচণ্ড রোদে উদ্ভিদটির দেহ তাপমাত্রা সহনশীল পর্যায়ে ধরে রাখে এরা। জাম্পিং কোলা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে জন্মায় না। যেখানেই এরা জন্মে, একত্রে একাধিক উদ্ভিদের জন্ম হয় এবং ছোটখাটো একটি ঘন জঙ্গলের মতো হয়ে যায়। মে মাসে এ গাছে ফুল ধরে।

হিডনোরা আফ্রিকানা

দূর থেকে দেখে অনেকে কৃষ্ণচুড়াও মনে করতে পারেন। কাছে গেলে নতুন কোনো প্রজাতির ফাঙ্গাস মনে হতে পারে হিডনোরা আফ্রিকানাকে। আফ্রিকার মরুভূমিতে প্রাকৃতিকভাবে জন্মানো এ উদ্ভিদের কোনো পাতা নেই। যা আছে তা গাঢ় বাদামি রঙের কাণ্ড। এর লাল বা কমলা রঙের জন্য মৌসুমি ফুলের সময়ে এটি দেখতে সুন্দর লাগে। শুধু কাণ্ডনির্ভর এ উদ্ভিদের শেকড় বেশ গভীরে পৌঁছে। প্রতিকূল পরিস্থিতির জন্য প্রচুর পরিমাণ পানি জমা করে রাখে কাণ্ডের ভেতর। কাণ্ডের আবার অর্ধেকের বেশি অংশই মাটির নিচে থাকে। মরুভূমিতে অনেকেই ভুল করে হিডনোরার ফলকে আলু মনে করে খেয়ে ফেলেন। অবশ্য দেখতে আলুর মতো ফলটির স্বাদও প্রায় একই রকম এবং জন্মায়ও মাটির নিচেই।

সিলভার টর্চ

আর্জেন্টিনা আর বলিভিয়ার পর্বতাঞ্চলীয় মরুভূমিতে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় এই সিলভার টর্চ ক্যাকটাস। এর দেহাবয়ব অসংখ্য উলের মতো সূক্ষ্ম তন্তুসমৃদ্ধ হওয়ায় একে ‘উলি টর্চ’ ক্যাকটাসও বলা হয়। এর সরু, খাড়া, সবুজাভ ধূসর কাণ্ড ৩ মিটার পর্যন্ত লম্বা হলেও সেগুলোর ব্যাস সর্বোচ্চ ৬ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হয়। এটি প্রচুর সূর্যালোক সহ্য করলেও অধিক তাপমাত্রায় বেঁচে থাকতে পারে না। তাই সিলভার টর্চ ক্যাকটাস জন্মায়, যেখানে পর্যাপ্ত সূর্যালোক থাকলেও তাপমাত্রা অত বেশি নয়, আবার গ্রীষ্মকালে প্রচুর বৃষ্টিপাতও হয়। পর্যাপ্ত পানি আছে, এমন অঞ্চলে জন্মায় বলে এর দেহে অন্যান্য মরু উদ্ভিদের মতো পানি সংগ্রহের ব্যবস্থা বিবর্তিত হয়নি। ফ্রান্সে এই ক্যাকটাসের চাষ করা হয়। কারণ এর মূল থেকে তৈরি করা হয় বার্গেন্ডি নামের একপ্রকার মদ ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×