জীবনকথা

সুন্দরী চিত্রতারকা থেকে বিজ্ঞানী

  একদিন প্রতিদিন ডেস্ক ১০ মার্চ ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সুন্দরী চিত্রতারকা থেকে বিজ্ঞানী
চিত্রতারকা ও বিজ্ঞানী হেডউইগ এভা মারিয়া

১৯১৪ সালের ৯ নভেম্বরে অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরির ভিয়েনা শহরের এক ইহুদি পরিবারে জন্ম নিল এক ফুটফুটে মেয়ে। বাবা এমিল কেসলার আর মা গেরট্রুড কেসলার তার নাম রাখলেন হেডউইগ এভা মারিয়া। বাবা ব্যাংকের উচ্চপদস্থ কর্মচারী আর মা পিয়ানো বাদিকা। লেখাপড়ায় মন ছিল না সুন্দরী হেডউইগের। তার আকর্ষণ অভিনয়ে। মাত্র সতেরো বছর বয়সে তাকে জার্মান চিত্র প্রযোজক ম্যাক্স রাইনহার্ড নিয়ে গেলেন বার্লিন শহরে। অভিনয় শিক্ষা শেষে হেডউইগ ফিরে এলেন অস্ট্রিয়ায়। কাজ শুরু করলেন চিত্রনাট্য সহযোগী হিসেবে। সেখান থেকে নায়িকার ভূমিকায় উঠতে তার সময় লেগেছিল মাত্র এক বছর। পরে হলিউডের নায়িকা ‘হেডি লামার’ নামে খ্যাতি পেয়েছিলেন তিনি।

হলিউডের স্বর্ণযুগের চটকদার চিত্রতারকা হলেও তার কিছু স্বাতন্ত্র্য ছিল। তিনি শুধু সুন্দরী অভিনেত্রীই ছিলেন না, তার আবিষ্কারের ফলে আধুনিক মোবাইল ফোন তৈরি সম্ভব হয়েছে।

নায়িকা হিসেবে হেডউইগের প্রথম ছবি মুক্তি পায় চেকোস্লোভাকিয়া থেকে, ১৯৩২ সালে। ওই সময় জার্মানিতে হিটলার রাজনৈতিক ক্ষমতা প্রতিষ্ঠা করতে আরম্ভ করেছেন। আতঙ্কিত ইউরোপের ইহুদিরা নিরাপত্তার খোঁজে নিজ দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। বাঁচার তাগিদে হেডউইগের মা গেরট্র–ড খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করলেন। মেয়েকেও ইহুদি ধর্ম পরিত্যাগ করতে উৎসাহ দিলেন। এর কয়েক বছরের মধ্যে হেডউইগ আমেরিকায় অভিবাস গ্রহণ করে ‘হেডি লামার’ হয়ে হলিউডে অভিনয় শুরু করলেন। সেখানে তার প্রথম ছবি মুক্তি পায় ১৯৩৮ সালে। আমেরিকায় এসে হেডি নিরাপদ হলেন ঠিকই, কিন্তু ইউরোপে তখন ইহুদি নিধনযজ্ঞ চলছে। তিনি ঠিক করলেন অভিনয়ের পাশাপাশি এ যুদ্ধে আমেরিকার সামরিক বাহিনীকে সাহায্য করবেন। জার্মানির আর এক অভিবাসী সঙ্গীতজ্ঞ জর্জ অ্যান্থিয়েলের সঙ্গে হেডি আলোচনা করলেন নৌযুদ্ধে বিশেষ ফ্রিকোয়েন্সির সংকেত প্রচার করে শত্র“পক্ষের রেডিওযুক্ত টর্পেডোকে বিভ্রান্ত করার সম্ভাবনা নিয়ে। সেই সঙ্গে একইভাবে নিজেদের টর্পেডোও সুরক্ষিত রাখা যাবে। এ আলোচনা থেকেই অ্যান্থিয়েলের সঙ্গে হেডি গড়ে তুললেন নাৎসি সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্যে ‘সিক্রেট কমিউনিকেশন সিস্টেম’। প্রচার ও গ্রহণের সময়ে রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি বিভিন্ন এবং নিয়মবহির্ভূতভাবে পালটিয়ে তারা প্রায় অলঙ্ঘনীয় এক সংকেত-সারি সৃষ্টি করলেন। পিয়ানোর ৮৮টি চাবি সম্পূর্ণ অনিয়মিতভাবে ব্যবহার করে সঙ্গীতের ভিত্তিতে লামার ও অ্যান্থিয়েল আবিষ্কার করলেন ‘ফ্রিকোয়েন্সি হপিং’- যা পরে মোবাইল ফোনের মুখ্য বিল্ডিং ব্লক হয়ে দাঁড়াল।

১৯৪২ সালে লামার এবং অ্যান্থিয়েল এই নতুন বার্তা পদ্ধতির জন্য প্যাটেন্ট পেলেন। কিন্তু মার্কিন নৌবাহিনী প্রযুক্তিটি ব্যবহার করতে রাজি হল না। হয়তো এক সুন্দরী চিত্রতারকা ও এক সঙ্গীতজ্ঞের তৈরি পদ্ধতিতে তাদের খুব একটা আস্থা হয়নি। ১৯৬২ সালে কিউবান মিসাইল সংকটের সময় পদ্ধতিটি সাফল্যের সঙ্গে প্রথম ব্যবহার করা হয়।

একমাত্র জীবনের শেষ প্রান্তে পৌঁছে হেডি লামার তার যুগান্তকারী আবিষ্কারের জন্য সম্মান পান। ১৯৯৭ সালে ইলেক্ট্রনিক ফ্রন্টিয়ার ফাউন্ডেশন আধুনিক বার্তা আদান-প্রদান ব্যবস্থায় লামারের অবদানকে স্বীকৃতি দিয়ে ‘পাওনিয়ার’ ও ‘বাল্বি ন্যাস স্পিরিট অফ অ্যাচিভমেন্ট’ ব্রোঞ্জ পুরস্কার দেয়। ২০০০ সালে মৃত্যুর পর তাকে ‘ন্যাশনাল ইনভেন্টার্স হল অফ ফেম’-এ সদস্যপদ দেয়া হয়।

নায়িকা হেডি লামারকে একসময় হলিউড ‘পৃথিবীর সেরা সুন্দরী’ আখ্যা দিয়েছিল। কিন্তু তিনি ঠিক হলিউডি নায়িকার ছকে বাঁধা ছিলেন না- মদ খেতেন না, পার্টিতে যেতেন না। এখন বিজ্ঞানের জগতে হেডি লামারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান হিসেবে স্বীকৃত হয় ‘স্প্রেড স্পেকট্রাম রেডিও’ যা আজকের জিপিএস, ব্লুটুথ, ওয়াই-ফাই, সিডিএমএ প্রযুক্তিকে সমৃদ্ধ করেছে।

গুণী এই অভিনেত্রী এবং বিজ্ঞানী ২০০০ সালের ১৯ জানুয়ারি ৮৬ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। তাকে সমাধিস্থ করা হয়েছে ভিয়েনায়।

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.