গ্রহ তো নয় যেন আগুনের গোলা

  একদিন প্রতিদিন ডেস্ক ০৬ জুন ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এ যেন গ্রহ নয় একখণ্ড আগুনের গোলা। শুনতে অবাক লাগলেও সৌরজগতের বাইরে এমনই এক গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। ওই গ্রহে গরম লৌহবৃষ্টিও হয় বলে ধারণা জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের।

এটি এমন একটি সন্ধান যা সৌরজগতের বাইরে চরমভাবাপন্ন গ্রহগুলোতে জলবায়ুর অবস্থা পর্যালোচনা করতে বিজ্ঞানীদের আরও সাহায্য করবে বলে মনে করছেন তারা। অগ্নিকুণ্ডসদৃশ এ গ্রহটি বর্তমানে পৃথিবী থেকে ৬৪০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থান করছে।

দিনে তাপমাত্রা থাকে প্রায় ২ হাজার ৪০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সুইজারল্যান্ডের জেনেভা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, দৈত্যাকার ডাব্লুএএসপি-৭৬বি নামের এ গ্রহটিতে দিনের একটা সময়ে তাপমাত্রা ২ হাজার ৪০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে উঠে যায়। এর ফলে লোহা বা কোনো ধাতব জিনিস সহজেই গলে যেতে পারে।

মূল নক্ষত্র থেকে দূরত্ব কম হওয়াতেই এর শোষণ বেশি। বিজ্ঞানীদের ব্যাখ্যা, এ গ্রহটি এর মূল নক্ষত্রের থেকে কাছাকাছি অবস্থান করাতেই এই চরমভাবাপন্ন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে সেখানে। মূল নক্ষত্রকে একবার প্রদক্ষিণ করতে এটি সময় নেয় মাত্র ৪৩ ঘণ্টা। স্বভাবতই সূর্যের থেকে পৃথিবী যে পরিমাণ তাপ শোষণ করে এর থেকেও কয়েক গুণ বেশি তাপ এই গ্রহটি তার মূল নক্ষত্র থেকে শোষণ করে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। প্রতি সন্ধ্যায় হয় লৌহবৃষ্টি।

নেচার জার্নালে প্রকাশিত এ সমীক্ষায় উল্লেখ করা হয়েছে, রাতের দিকে প্রবল ঠাণ্ডা বাতাস গলে যাওয়া লোহাকে খানিক জমাট বাঁধতে সাহায্য করলেও সকাল হতে হতেই সেগুলো আবার ঘনীভূত হয়ে ফোঁটা ফোঁটা আকারে ঝরে পড়তে পারে। এ প্রসঙ্গে এই গবেষণাপত্রের সহ-লেখক সুইজারল্যান্ডের জেনেভা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডেভিড এহরেনেরিক বলেন, ‘সব কিছু বিচার করে কেউ বলতেই পারেন প্রতি সন্ধ্যায় এখানে বৃষ্টি হয়। কিন্তু সেটা অবশ্যই লৌহবৃষ্টি।’

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত