বিচিত্রিতা

মায়া সভ্যতায় রহস্যময় হত্যা

প্রকাশ : ২৯ এপ্রিল ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  আমান বাবু

জার্মানির বন বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক একবার মেক্সিকোর কাম্পেচেতে মায়া সভ্যতার শহর উক্সুলে খননে ব্যস্ত ছিলেন।

হঠাৎ তারা মানুষের তৈরি একটি গুহার সন্ধান পান যা এককালে জলাধার হিসেবে ব্যবহার হতো। সেই গুহার ভেতর তারা মানুষের ২৪টি কঙ্কাল খুঁজে পান।

অদ্ভুত ব্যাপার হল, সব কঙ্কালেরই মাথা মূল দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করা ছিল। অর্থাৎ শিরশ্ছেদের মাধ্যমে তাদের হত্যা করা হয়েছিল।

সেই সঙ্গে মৃত্যুর পর তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও কেটে এদিক সেদিক ছড়িয়ে-ছিটিয়ে দিয়েছিল মায়া সভ্যতার সেই লোকেরা।

গুহাজুড়েই ছড়ানো ছিল সেসব হাড়গোড়। কিছু কিছু কঙ্কালের আবার মাথা আর চোয়াল আলাদা হয়ে গিয়েছিল।

মৃত্যুর সময় নিহতদের বয়স ছিল ১৮ থেকে ৪২ বছরের মধ্যে। ২৪ জনের মধ্যে ২ জন ছিল নারী ও ১৩ জন পুরুষ। বাকিদের লিঙ্গ নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি।

এ আবিষ্কার থেকে প্রত্নতত্ত্ববিদরা বুঝতে পেরেছেন, মায়া সভ্যতার লোকেরা তাদের শত্রুদের নিধনের বেলায় এমন নৃশংস পথই অবলম্বন করতেন।

নিহতদের একজনের দাঁতে এক ধরনের মূল্যবান সবুজ পাথর পরানো ছিল, যা তার আভিজাত্যের ইঙ্গিত বহন করে।

কিন্তু সেই দুর্ভাগা ২৪ জনের প্রকৃত পরিচয় কিংবা তাদের ভাগ্যে এত নির্মম মৃত্যু নেমে আসার প্রকৃত কারণটা আজও অজানাই রয়ে গেছে।