চিত্রবিচিত্র

ইতিহাসের দুর্ধর্ষ চার যোদ্ধা

  যুগান্তর ডেস্ক    ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মানব সভ্যতার শুরু থেকেই পৃথিবীতে যুদ্ধ হচ্ছে। কালক্রমে কত সাম্রাজ্য ধ্বংস হয়েছে আর কত জাতির উদ্ভব ঘটেছে- তার কোনো হিসাব নেই। সময়ের বিবর্তনে যুদ্ধ ও যোদ্ধার ধরনও পাল্টেছে। পৃথিবীর বুকে এসেছে বহু সাহসী, চতুর, শক্তিমান ও দুর্ধর্ষ ভয়ঙ্কর যোদ্ধা। ইতিহাসখ্যাত চার যোদ্ধা নিয়ে লিখেছেন সালমান রিয়াজ

* নাইট

নাইটরা ছিলেন অশ্বারোহী ইউরোপীয় বীরযোদ্ধা। তাদের সারা শরীর বর্ম দিয়ে ঢাকা থাকত। তারা ছিলেন ধনী ও সবচেয়ে সম্মানিত যোদ্ধা। নিজেদের মিশন সম্পন্ন করার জন্য তাদের ছিল ঘোড়া ও প্রয়োজনীয় অস্ত্রশস্ত্র। তাদের হত্যা করা অনেক কঠিন ছিল। নাইট শুধু তারাই হতেন, যারা বীরের মতো যুদ্ধ করে টিকে থাকার মতো শক্তি ও মনোবলের অধিকারী। নাইটদের সারা জীবনই প্রশিক্ষণ চলত। বাল্যকাল থেকেই তাদের নাইট হওয়ার প্রশিক্ষণ দেয়া হতো। দীর্ঘ সময়ের প্রশিক্ষণের পর পূর্ণ বয়সে তারা নাইট হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করতেন।

* অ্যাপাচি

অ্যাপাচিরা ছিলেন আমেরিকার অধিবাসী। তাদের আমেরিকান নিনজাও বলা হয়। তারা অনেক ধূর্ত ছিলেন। নিঃশব্দে শত্রুর পেছনে গিয়ে কিছু বোঝার আগেই গলা কেটে হত্যা করতেন।

অ্যাপচিরা কখনই সামনাসামনি প্রতিপক্ষের ওপর হামলা করতেন না। আক্রমণ করতেন পেছন থেকে। তাদের অস্ত্র তৈরি হতো কাঠ ও হাড় দিয়ে। তারা ছুরি ও কুঠার নিক্ষেপে বিশেষ চৌকষ ছিলেন।

* নিনজা

নিনজারা গোপনে কাজ করতেন। তারা ছিলেন কৃষক। তড়িৎ গতিতে হত্যা ও পালিয়ে যাওয়ায় বিশেষ সক্ষমতাসম্পন্ন ছিলেন। নিনজাদের দক্ষতা নিখুঁত।

মার্শাল আর্টের পাশাপাশি দর্শন, আবহাওয়াবিদ্যা, মনোবিজ্ঞান, ভূগোল, অভিনয়, গুপ্তচরবিদ্যা ও সমরবিদ্যাও রপ্ত করতে হতো তাদের। পরিস্থিতি বুঝে তারা হালকা ও উপযুক্ত অস্ত্র ব্যবহার করতেন, যেমন- ব্লেড, চেন, দড়ি, বিষ, পাউডার ইত্যাদি। নিনজাদের পোশাক কালো হলেও রাতে অভিযানের জন্য ছিল নেভি ব্লু রঙের পোশাক। পোশাক পরিহিত অবস্থায় তাদের চোখ ছাড়া সবকিছু আবৃত থাকত।

* সামুরাই

সামুরাইদের ‘জাপানের নাইট’ বলা হয়। তারা ভারী অস্ত্রে সজ্জিত ও বর্ম দ্বারা আবৃত থাকতেন। তাদের বিশ্বাস ছিল, তলোয়ারই তার আত্মাকে ধারণ করে আছে। তাদের তরবারি এতই ধারালো ছিল, মানুষকে টুকরা করে দেয়ার জন্য এক কোপই যথেষ্ট। এত ধারালো অস্ত্র ইতিহাসে অন্য কোনো যোদ্ধারা ব্যবহার করেনি। যুদ্ধে জেতাই ছিল তাদের একমাত্র শপথ। কোনো সামুরাই লড়াইয়ে হেরে গেলে নিজের পেটে তরবারি ঢুকিয়ে আত্মহত্যা করতেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter