টেলিফোনে ফিসফিস

  কাজী মাহমুদুর রহমান ২৮ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সময় বদলে গেছে

ফিডব্যাকের একটা সুপারহিট অ্যালবাম বের হয়েছিল, বঙ্গাব্দ ১৪০০। সেই অ্যালবামে মাকসুদুল হকের লেখা একটি দারুণ গান ছিল, টেলিফোনে ফিসফিস। গানের কয়েকটি লাইন-

‘টেলিফোনে যখন ফিসফিস করে

কথা হয় দু’জনায়

মন্দ লোকে যদি আড়ি পেতে

শুনে ফেলে বল কী উপায়?’

প্রেমিকার সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ হয় না, বিরহে কাতর প্রেমিক টেলিফোনে ফিসফিস করে কথা বললেও মন্দ লোকে আড়ি পেতে শুনে ফেলতে পারে এ আশঙ্কা ব্যক্ত করেছেন সে কালের প্রেমিক মাকসুদ। এখন তো সময় বদলে গেছে, এসেছে খুল্লাম খুল্লাম প্রেমের যুগ। আড়ি পাতাও এখন আর ‘মন্দ লোকের’ কাজ নয়। এখন হরহামেশা আড়ি পাতা হচ্ছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেদারসে শেয়ার হচ্ছে। এমনকি এসব ফাঁস হয়ে যাওয়া কথোকপথন নিয়ে মিডিয়ায় টকশোতে আলোচনা করছেন বিদগ্ধ কথা শিল্পীরা। সুতরাং আড়ি পাতা এখন নৈতিকতার মানদণ্ডে কোনো মন্দ কাজ নয়, বরং সামাজিক দায়িত্ব বলেও কেউ কেউ মনে করছেন। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে গেছে আমাদের নৈতিকতার মান! সাম্প্রতিক সময়ে টেলিফোনে আড়ি পাতা বিষয়ে আলোচনার যিনি টক অব দ্যা শো সেই মাহমুদুর রহমান মান্না প্রশ্ন করেছেন,‘আমার সাইবার সিকিউরিটি কোথায়? আমি আমার স্ত্রী’র সঙ্গে কথা বলব, সেটা টেপ করে বাজারে ছেড়ে দেবেন? ইউনিভার্সিটির ছেলে যদি তার বান্ধবীর সঙ্গে আলাপ করে সেটাও পত্রিকায় দিয়ে দেবেন? কারও প্রাইভেসি যদি না থাকে তাহলে এই দেশ কী দেশ?’

বাদ যাবে না ট্রাম্পও!

শুধু বাংলাদেশে নয়। খোদ আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সেলফোনে নিয়মিতই আড়ি পাতছে চীন আর রাশিয়া। এমন খবর প্রকাশ করেছে নিউইয়র্ক টাইমস। সংবাদ মাধ্যমটি জানাচ্ছে, এ ব্যাপারে প্রেসিডেন্টকে বারবার সতর্ক করা হলেও তিনি তার পরামর্শকদের পাত্তা দিচ্ছেন না। অবশ্য চাইনিজরা এই সংবাদেও মজা লুটছে। তারা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে পরামর্শ দিয়েছে যেন তিনি আড়ি পাতা থেকে বাঁচতে হুয়াওয়ে বা জেডটিইর মতো চাইনিজ ফোন ব্যবহার করেন! এখন দেখার বিষয় প্রেসিডেন্ট কইয়ের তেলে কই ভাজতে রাজি হবেন? নাকি দুষ্টু লোকের মিষ্টি কথা ভেবে প্রত্যাখ্যান করবেন। অবশ্য আমেরিকানরা গোয়েন্দাবৃত্তিতে আড়ি পাতার বিষয়টাকে ব্যাপক গুরুত্ব দেয়ার কারণ আছে। খোদ মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার বিরুদ্ধে বিশ্বনেতাদের ফোনে আড়ি পাতার অভিযোগ তোলা হয়েছে অনেকবার। জার্মান চ্যান্সেলর পর্যন্ত বিষয়টা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। নিজেদের তৈরি করা ফাঁদে এখন নিজেরাই যদি ধরা খায় ওরা তবে আশ্চর্য হওয়ারও কিছু থাকবে না!

সাধু সাবধান

টেলিফোনে আড়ি পাতা কতটা নৈতিক সে বিষয়ে যতই তর্ক করা হোক না কেন ব্যাপারটা এখন একরকম গ্রহণযোগ্যতা পেয়ে গেছে। একজন বিচারপতির সঙ্গে একজন সাবেক রাষ্ট্রপতির টেলিফোনে সংলাপের কাহিনী ছাপা হয়েছিল ঢাকা থেকে প্রকাশিত এক সময়ের আলোচিত একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকায়। তাও আবার সরাসরি নয়, গল্পের আদলে, রূপকের আশ্রয়ে। তবুও আদালত অবমাননার দায়ে অভিযুক্ত হয়েছিলেন ওই পত্রিকার সম্পাদক। আর এখন আড়ি পাতা কথোকপথন বিষয়টা ডাল-ভাতের মতো হয়ে গেছে। তা থেকে পাওয়া যাচ্ছে ব্যাপক বিনোদন। কে কাকে ‘কাউয়ার্ড’ বললো কিংবা কে ‘গোট’ কেবা ‘কাউ’ সে কথা আমরা সহজেই জেনে যাচ্ছি, শেয়ার করে মজাও পাচ্ছি। তবে এই ফাঁস হওয়া সংলাপের ফাঁস সবার গলায় সমানভাবে লাগছে কি? সৌদি আরবের কথা স্মরণ করা যেতে পারে এ প্রসঙ্গে। মহান যুবরাজের সমালোচনা করলেন তো আপনি জামাল খাসোগি হয়ে গেলেন। বাংলাদেশে যারা ঐক্য-টইক্ক নিয়া মাতামাতি করবেন তারা আর যাই করেন দয়া করে পরকীয়া, পরচর্চা এসব করিবেন না। টেলিফোনে না, স্কাইপিতে না, এমনকি ফেসবুকেও না। সাধু সাবধান!

[email protected]

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×