ভিনদেশি মজার গল্প

ইচ্ছেপূরণ

প্রকাশ : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  আশরাফুল আলম পিনটু

এক দম্পতি ঠিক করল, তারা বিবাহবার্ষিকী পালন করবে। ৩৫তম বিবাহবার্ষিকী। তাদের বয়স ষাট বছরের কাছাকাছি। এ উপলক্ষে তারা একটা রেস্তোরাঁতে গেল। ছোটখাটো রেস্তোরাঁ। শান্ত নিরিবিলি। রোমান্টিক পরিবেশ। এক কোনায় টেবিলে বসল তারা। মোমের মৃদু আলো। হালকা সুর বাজছে। এমন সময় ছোট্ট এক পরি হাজির হল তাদের সামনে। পরি হেসে বলল, ‘তোমরা সত্যি আদর্শ দম্পতি। এত বছর একসঙ্গে কাটাচ্ছ। তোমাদের এমন জীবনযাপনে আমি খুব খুশি হয়েছি। বলো, তোমরা কী চাও? আমি তোমাদের দুজনের একটি করে ইচ্ছে পূরণ করব।’

পরির কথা শুনে বউ ভীষণ খুশি। আনন্দিত হয়ে বলে উঠল, ‘ওহ, তাই নাকি! যা চাইব তা-ই পাব?’

পরি জবাব দিল, ‘হ্যাঁ। যা চাইবে তা-ই পাবে। বলো, তুমি কী চাও?’

বউ বলল, ‘আমি আমার প্রিয় স্বামীকে নিয়ে দুনিয়াটা ঘুরে দেখতে চাই।’

পরি তার জাদুর কাঠি ঘোরালো। সঙ্গে সঙ্গে দুটো টিকিট চলে এলো। কুইন মেরি জাহাজের টিকিট। বউকে টিকিট দুটো দিয়ে দিল পরি।

খুবই চমকিত হল স্বামী। আনন্দও পেল খুব। অল্পক্ষণ ভাবল, বাহ্, ভালোই তো! খুবই রোমান্টিক। এমন সুযোগ জীবনে আর নাও আসতে পারে। আমি খুবই পছন্দের একটা জিনিস চাইব।’

এবার লোকটাকে পরি জিজ্ঞাসা করল, ‘বলো, তুমি কী চাও?’

স্বামীটি বলল, ‘আমার এমন চাওয়ার জন্য আগেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আমি চাই, আমার থেকে ৩০ বছর কম বয়সের একটা বউ!’

এ কথা শুনে বউ আর পরি খুবই বিব্রত। পরি কী করবে বুঝতে পারল না। কিন্তু কথাও তো ফেলতে পারছে না। প্রতিজ্ঞা মানে প্রতিজ্ঞা।

অবশেষে পরি হেসে বলল, ‘এ আর এমন কী কঠিন! তবে তাই হোক!’

পরি তার জাদুর কাঠি ঘোরালো। আর সঙ্গে সঙ্গে স্বামীর বয়স হয়ে গেল ৯২ বছর।