একজন কিপটে ধনী
jugantor
ভিনদেশি রসিকতা
একজন কিপটে ধনী

  আশরাফুল আলম পিনটু  

০৯ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এক শহরে ছিলেন এক ধনী লোক। খুবই ধনী। তার রয়েছে ব্যাংক ভরতি টাকা। ভালো ব্যবসাও আছে। আর ওই শহরেই ছিল একটি দাতব্য সংস্থা। বিভিন্ন ধনী লোক স্বেচ্ছায় টাকা সাহায্য করেন। তাদের দানের টাকায় চলে সংস্থাটি। কিন্তু এই সংস্থাটি কখনই কোনো অনুদান পায়নি ওই ধনী লোকের কাছ থেকে। নগদ টাকা-পয়সাও দান করেননি কখনই। কোনোরকম সাহায্যই করেননি লোকটি। শহরের প্রায় সব ধনী লোক নিজ ইচ্ছায় দান করেন। সাধারণ মানুষও দেন। কাউকে তেমন বলা লাগে না। কিন্তু এ লোকটির যেন কোনো আগ্রহই নেই এদিকে। বিষয়টি নিয়ে অনেকদিন থেকেই ভাবছেন দাতব্য সংস্থার পরিচালক। একদিন ভাবলেন ফোন করবেন ধনী লোকটিকে। ফোন করার আগে লোকটির টাকাপয়সা আর ব্যবসা-বাণিজ্যের খোঁজ নিলেন। তারপর একদিন ফোন করলেন ধনী লোকটিকে। পরিচয় দিয়ে বললেন-

পরিচালক : স্যার, আমরা জানি আপনি এ শহরের একজন ধনাঢ্য লোক। খোঁজ নিয়ে জেনেছি, ব্যাংকেও আপনার টাকা পয়সা রয়েছে।

ধনী লোক : আমার সম্পর্কে আর কী কী জেনেছেন?

পরিচালক : আমাদের জানামতে, আপনার ব্যাংক রেকর্ড অনুযায়ী আপনি গড়ে প্রতি বছরে ৫০০ হাজার ডলার উপার্জন করেছেন।

ধনী লোক : করেছি। তাতে সমস্যা কী?

পরিচালক : কোনো সমস্যা নেই, স্যার। শুধু বলতে চাইছি, আপনি অনেক টাকার মালিক তবু আমাদের দাতব্য সংস্থায় কোনো দান করেননি। আপনি কি অসহায় মানুষদের সহায়তা করতে চান না?

ধনী লোক : খোঁজ নিয়ে আর কিছু জানতে পারেননি?

পরিচালক : আর কি কিছু জানার আছে, স্যার?

ধনী লোক : খোঁজ নিলে আরও জানতে পারবেন- আমার মা অত্যন্ত অসুস্থ। তার চিকিৎসা খুবই ব্যয়বহুল।

পরিচালক : ওহ হো, আমার জানা ছিল না, স্যার!

ধনী লোক : আমার এক ভাই অন্ধ এবং বেকার। এছাড়া জানেন কি, আমার বোনের স্বামী মারা গেছেন চার বাচ্চা সন্তান রেখে?

পরিচালক : দুঃখিত, স্যার। এসব আমার জানা ছিল না!

ধনী লোক : এখন আপনিই বলুন, আমি যদি তাদেরই কোনো টাকা না দিয়ে থাকি তবে কেন আপনাকে কিছু দেব?

ভিনদেশি রসিকতা

একজন কিপটে ধনী

 আশরাফুল আলম পিনটু 
০৯ আগস্ট ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এক শহরে ছিলেন এক ধনী লোক। খুবই ধনী। তার রয়েছে ব্যাংক ভরতি টাকা। ভালো ব্যবসাও আছে। আর ওই শহরেই ছিল একটি দাতব্য সংস্থা। বিভিন্ন ধনী লোক স্বেচ্ছায় টাকা সাহায্য করেন। তাদের দানের টাকায় চলে সংস্থাটি। কিন্তু এই সংস্থাটি কখনই কোনো অনুদান পায়নি ওই ধনী লোকের কাছ থেকে। নগদ টাকা-পয়সাও দান করেননি কখনই। কোনোরকম সাহায্যই করেননি লোকটি। শহরের প্রায় সব ধনী লোক নিজ ইচ্ছায় দান করেন। সাধারণ মানুষও দেন। কাউকে তেমন বলা লাগে না। কিন্তু এ লোকটির যেন কোনো আগ্রহই নেই এদিকে। বিষয়টি নিয়ে অনেকদিন থেকেই ভাবছেন দাতব্য সংস্থার পরিচালক। একদিন ভাবলেন ফোন করবেন ধনী লোকটিকে। ফোন করার আগে লোকটির টাকাপয়সা আর ব্যবসা-বাণিজ্যের খোঁজ নিলেন। তারপর একদিন ফোন করলেন ধনী লোকটিকে। পরিচয় দিয়ে বললেন-

পরিচালক : স্যার, আমরা জানি আপনি এ শহরের একজন ধনাঢ্য লোক। খোঁজ নিয়ে জেনেছি, ব্যাংকেও আপনার টাকা পয়সা রয়েছে।

ধনী লোক : আমার সম্পর্কে আর কী কী জেনেছেন?

পরিচালক : আমাদের জানামতে, আপনার ব্যাংক রেকর্ড অনুযায়ী আপনি গড়ে প্রতি বছরে ৫০০ হাজার ডলার উপার্জন করেছেন।

ধনী লোক : করেছি। তাতে সমস্যা কী?

পরিচালক : কোনো সমস্যা নেই, স্যার। শুধু বলতে চাইছি, আপনি অনেক টাকার মালিক তবু আমাদের দাতব্য সংস্থায় কোনো দান করেননি। আপনি কি অসহায় মানুষদের সহায়তা করতে চান না?

ধনী লোক : খোঁজ নিয়ে আর কিছু জানতে পারেননি?

পরিচালক : আর কি কিছু জানার আছে, স্যার?

ধনী লোক : খোঁজ নিলে আরও জানতে পারবেন- আমার মা অত্যন্ত অসুস্থ। তার চিকিৎসা খুবই ব্যয়বহুল।

পরিচালক : ওহ হো, আমার জানা ছিল না, স্যার!

ধনী লোক : আমার এক ভাই অন্ধ এবং বেকার। এছাড়া জানেন কি, আমার বোনের স্বামী মারা গেছেন চার বাচ্চা সন্তান রেখে?

পরিচালক : দুঃখিত, স্যার। এসব আমার জানা ছিল না!

ধনী লোক : এখন আপনিই বলুন, আমি যদি তাদেরই কোনো টাকা না দিয়ে থাকি তবে কেন আপনাকে কিছু দেব?