পরদিন সকালে
jugantor
ভিনদেশি রসিকতা
পরদিন সকালে

  আশরাফুল আলম পিনটু  

১৮ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মদ খেয়ে গভীর রাতে বাড়ি ফিরল বব। টলতে টলতে সিঁড়ি বেয়ে উঠছিল। পা টিপে টিপে খুব সাবধানে। বউ ক্যাথরিন যেন না জেগে যায়। জাগলেই মদ খাওয়া নিয়ে ঝামেলা বাধাবে। ঝগড়া করবে।

কিন্তু সাবধান হলেও হোঁচট খেয়ে পড়ে গেল বব। একেবারে উপুড় হয়ে। হাতে থাকা হুইস্কির বোতল ভেঙে গেল। তাতে কেটে গেল তার কপাল আর গাল। রক্ত ঝরছিল সেখান থেকে।

ঠোঁট চেপে যন্ত্রণা সহ্য করল বব। কোনোমতে উঠে দাঁড়াল। তারপর ড্রয়িংরুমে এলো পা টেনে টেনে। দেওয়ালের আয়নায় চেহারা দেখল। তিন জায়গায় কেটে গেছে। বেসিনে মুখ ধুয়ে নিল। খুঁজে বের করল ফাস্ট এইড বক্স। আয়নায় দেখে দেখে ব্যান্ডেজ লাগাল কাটা জায়গায়। তারপর ঘরে গিয়ে চুপচাপ শুয়ে পড়ল।

পরদিন সকালে ঘুম ভাঙল ববের। একেবারে বউয়ের মুখোমুখি।

ঝগড়ার ভঙ্গিতে ক্যাথরিন বলল, ‘কাল রাতে আবার মদ খেয়েছ, তাই না!’

‘মানে! কী বলতে চাও তুমি?’ নিজেকে বাঁচাতে জোরের সঙ্গেই বলল বব।

‘চেঁচিয়ো না। যা সত্যি, তাই বলছি।’ বলল ক্যাথরিন।

‘কী সত্যি? কোনো প্রমাণ দিতে পারবে?’ বব আবার চেঁচাল।

ক্যাথরিন বলল, ‘পারব। সিঁড়িতে ভাঙা কাচ। ড্রইংরুমে রক্ত। এ ছাড়া তোমার মুখে কাটা দাগ।’

‘এতে কি প্রমাণ হয়, আমি মদ খেয়েছি? অন্যভাবেও তো কাটতে পারে!’ বলল বব।

‘তা পারে।’ জবাব দিল ক্যাথরিন, ‘তবে সবচেয়ে বড় প্রমাণ- ব্যান্ডেজগুলো মুখে না লাগিয়ে আয়নায় লাগিয়েছ!’

ভিনদেশি রসিকতা

পরদিন সকালে

 আশরাফুল আলম পিনটু 
১৮ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মদ খেয়ে গভীর রাতে বাড়ি ফিরল বব। টলতে টলতে সিঁড়ি বেয়ে উঠছিল। পা টিপে টিপে খুব সাবধানে। বউ ক্যাথরিন যেন না জেগে যায়। জাগলেই মদ খাওয়া নিয়ে ঝামেলা বাধাবে। ঝগড়া করবে।

কিন্তু সাবধান হলেও হোঁচট খেয়ে পড়ে গেল বব। একেবারে উপুড় হয়ে। হাতে থাকা হুইস্কির বোতল ভেঙে গেল। তাতে কেটে গেল তার কপাল আর গাল। রক্ত ঝরছিল সেখান থেকে।

ঠোঁট চেপে যন্ত্রণা সহ্য করল বব। কোনোমতে উঠে দাঁড়াল। তারপর ড্রয়িংরুমে এলো পা টেনে টেনে। দেওয়ালের আয়নায় চেহারা দেখল। তিন জায়গায় কেটে গেছে। বেসিনে মুখ ধুয়ে নিল। খুঁজে বের করল ফাস্ট এইড বক্স। আয়নায় দেখে দেখে ব্যান্ডেজ লাগাল কাটা জায়গায়। তারপর ঘরে গিয়ে চুপচাপ শুয়ে পড়ল।

পরদিন সকালে ঘুম ভাঙল ববের। একেবারে বউয়ের মুখোমুখি।

ঝগড়ার ভঙ্গিতে ক্যাথরিন বলল, ‘কাল রাতে আবার মদ খেয়েছ, তাই না!’

‘মানে! কী বলতে চাও তুমি?’ নিজেকে বাঁচাতে জোরের সঙ্গেই বলল বব।

‘চেঁচিয়ো না। যা সত্যি, তাই বলছি।’ বলল ক্যাথরিন।

‘কী সত্যি? কোনো প্রমাণ দিতে পারবে?’ বব আবার চেঁচাল।

ক্যাথরিন বলল, ‘পারব। সিঁড়িতে ভাঙা কাচ। ড্রইংরুমে রক্ত। এ ছাড়া তোমার মুখে কাটা দাগ।’

‘এতে কি প্রমাণ হয়, আমি মদ খেয়েছি? অন্যভাবেও তো কাটতে পারে!’ বলল বব।

‘তা পারে।’ জবাব দিল ক্যাথরিন, ‘তবে সবচেয়ে বড় প্রমাণ- ব্যান্ডেজগুলো মুখে না লাগিয়ে আয়নায় লাগিয়েছ!’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন