পেটুক সম্রাট
jugantor
চিরায়ত রস
পেটুক সম্রাট

  বিনোদন ডেস্ক  

১৬ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রাসাদের বারান্দার বসে একদিন সম্রাট আকবর বেগমকে নিয়ে আম খাচ্ছিলেন। আমের খোসা আর আঁটি জমা হচ্ছিল বেগমের পাশে। এমন সময় সেখানে এলেন বীরবল। সম্রাটের খাসমহলে তার অবাধ যাতায়াতের অনুমতি ছিল।

বীরবলকে দেখেই সম্রাট বললেন, ‘দেখো বীরবল, বেগম কী পেটুক! ওর পাশে কতগুলো আমের খোসা আর আঁটি, দেখেছ?’ বলেই তিনি খুব হাসতে লাগলেন।

এদিকে বেগম তো চটে লাল। বীরবল তা লক্ষ্য করে বললেন, ‘আসলে বিষয়ে হচ্ছে কি মহামান্য সম্রাট, সতীসাব্ধী স্ত্রীরা চিরদিনই স্বামীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে থাকেন। কাজেই বেগম সাহেবার কোনো দোষ নেই।’

‘তার মানে তুমি আমাকেই পেটুক বলতে চাইছ? কিন্তু অবস্থা দেখেও কি কিছু বুঝতে পারছ না বীরবল? ওর পাশে খোসা ও আঁটি জমেছে কতগুলো দেখো ভালো করে। কিন্তু আমার পাশে একটিও নেই।’ বললেন সম্রাট।

‘সে জন্যেই তো বলছি সম্রাট।’ বীরবল বলতে লাগলেন, ‘বেগম সাহেবা কেবল আমের রসসহ শাঁস খেয়েছেন। আর আপনি তো খোসা আর আঁটিও বাদ দেননি। যথার্থ পেটুকের মত সব চেটেপুটে খেয়েছেন! নয়তো আপনার খাওয়া আমের খোসা এবং আঁটি গেল কই?’

বেগম এবার আনন্দে চিৎকার করে উঠলেন, ‘ঠিক ধরেছ বীরবল, আমি সরিয়ে রেখেছি বলেই তো ওগুলো আর খেতে পারেনি।’

বীরবলের উপস্থিত বুদ্ধিতে সম্রাট একেবারে হতবুদ্ধি হয়ে গেলেন। বেগম আর বীরবল সম্রাটের অবস্থা দেখে হেসে উঠলেন এক সঙ্গে।

‘আসলে বিষয়ে হচ্ছে কি মহামান্য সম্রাট, সতীসাব্ধী স্ত্রীরা চিরদিনই স্বামীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে থাকেন। কাজেই বেগম সাহেবার কোনো দোষ নেই।’

চিরায়ত রস

পেটুক সম্রাট

 বিনোদন ডেস্ক 
১৬ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রাসাদের বারান্দার বসে একদিন সম্রাট আকবর বেগমকে নিয়ে আম খাচ্ছিলেন। আমের খোসা আর আঁটি জমা হচ্ছিল বেগমের পাশে। এমন সময় সেখানে এলেন বীরবল। সম্রাটের খাসমহলে তার অবাধ যাতায়াতের অনুমতি ছিল।

বীরবলকে দেখেই সম্রাট বললেন, ‘দেখো বীরবল, বেগম কী পেটুক! ওর পাশে কতগুলো আমের খোসা আর আঁটি, দেখেছ?’ বলেই তিনি খুব হাসতে লাগলেন।

এদিকে বেগম তো চটে লাল। বীরবল তা লক্ষ্য করে বললেন, ‘আসলে বিষয়ে হচ্ছে কি মহামান্য সম্রাট, সতীসাব্ধী স্ত্রীরা চিরদিনই স্বামীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে থাকেন। কাজেই বেগম সাহেবার কোনো দোষ নেই।’

‘তার মানে তুমি আমাকেই পেটুক বলতে চাইছ? কিন্তু অবস্থা দেখেও কি কিছু বুঝতে পারছ না বীরবল? ওর পাশে খোসা ও আঁটি জমেছে কতগুলো দেখো ভালো করে। কিন্তু আমার পাশে একটিও নেই।’ বললেন সম্রাট।

‘সে জন্যেই তো বলছি সম্রাট।’ বীরবল বলতে লাগলেন, ‘বেগম সাহেবা কেবল আমের রসসহ শাঁস খেয়েছেন। আর আপনি তো খোসা আর আঁটিও বাদ দেননি। যথার্থ পেটুকের মত সব চেটেপুটে খেয়েছেন! নয়তো আপনার খাওয়া আমের খোসা এবং আঁটি গেল কই?’

বেগম এবার আনন্দে চিৎকার করে উঠলেন, ‘ঠিক ধরেছ বীরবল, আমি সরিয়ে রেখেছি বলেই তো ওগুলো আর খেতে পারেনি।’

বীরবলের উপস্থিত বুদ্ধিতে সম্রাট একেবারে হতবুদ্ধি হয়ে গেলেন। বেগম আর বীরবল সম্রাটের অবস্থা দেখে হেসে উঠলেন এক সঙ্গে।

‘আসলে বিষয়ে হচ্ছে কি মহামান্য সম্রাট, সতীসাব্ধী স্ত্রীরা চিরদিনই স্বামীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে থাকেন। কাজেই বেগম সাহেবার কোনো দোষ নেই।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন