নবী বংশের নৌকা ভেঙে যায় কারবালায়

  মুহতাশিম কাশানী ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সালাম

কারবালার মরু ঝড়ে ভেঙে গেছে তরী হায়!

ধুলো মাটি আর রক্তে মিশে পড়ে আছে কারবালায়।

কালের চোখ কেঁদে যদি সারা হয় জন্য তাঁর

রক্ত স্রোত উপচে যেত সে অলিন্দে কারবালার।

গোলাপজল করেনি গ্রহণ কারবালার বাগিচায়

যা নিয়েছে কাল, সে তো অশ্রুঝরা, হায়!

পানিও দিতে হয়নি রাজি হায়রে কুফার জনগণ

কাবালার মেহমানদের এ কেমন রে আপ্যায়ন!

শয়তান আর বুনো পশু- তাদেরও তো নেই বারণ,

বিদায় নেন শুধু শাহে কারবালা হোসাইন পানি বিহন।

পিপাসু সে কান্নার রোল ওঠে আকাশের দিকে

‘বুক ফেটে যায় দাও পানি’ রব মরু কারবালা থেকে।

হায় রে এ কোন দৃশ্য দেখি, শরম পায়নি এ দুশমন

হোসাইনের খিমা ধ্বংস করতে চালায় ঘৃণ্য আক্রমণ!

আকাশের বুক সেদিন ছিল ভারী বেদন-যন্ত্রণায়

দুশমন ভয়ে ওঠে ফরিয়াদ হেরেমে খিমায়।

ইস! যদি ভেঙে পড়ত আকাশ সে ক্ষণ

মূল খুঁটি পড়ে গেলে হয় সে যেমন!

ইস! যদি পাহাড় থেকে আরেক পাহাড়ে যেত বয়ে

কালো বন্যার ঢলে মাটি আলকাতরা সম হয়ে!

ইস! আহলে বাইতের সে বুকফাটা কান্নার তপ্ত নিঃশ্বাস

যার আগুনে হতো জগতের সব শস্য বিনাশ!

ইস! সে মুহূর্তে যখন ঘটল এ অঘটন

আকাশ মাটির পর যেন স্থির পারদ তখন!

ইস! মুবারক দেহ তার যখন রাখা হয় মাটির ভেতরে

বের হয়ে যেত শরীর ছিঁড়ে প্রাণগুলো বিশ্বচরাচরে!

ইস! যখন নবী-বংশের নৌকাখানি ভেঙে যায়

ডুবে যেত সৃষ্টিজগৎ রক্তের দরিয়ায়!

প্রতিশোধের কথা থাকত না যদি রোজ হাশরে

এর বদলা দুনিয়া তখন নিত কেমন করে?

আলে নবী বিচারের ফরিয়াদ জানাবেন যখন

আরশের ভিত কেঁপে কেঁপে টলমল তখন।

ইরানের প্রখ্যাত মর্সিয়া শিল্পী কামাল উদ্দিন আলী মুহতাশিম কাশানীর জগৎখ্যাত এ মর্সিয়াটি নেয়া হয়েছে আশুরা সংকলন থেকে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×