তওবার রাত শবেবরাত

  মুফতি ইবরাহীম আনোয়ারী ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বান্দার পাপ হয়ে গেলে, তওবার নিয়তে দুই রাকাত নামাজ আদায় করার পর নিজের ভুল স্বীকার করে বলবে, হে আল্লাহ আমি আর গুনাহ করব না, এ গুনাহর জন্য আমি অনুতপ্ত, এখন থেকে আমি এ গুনাহ ছেড়ে দিয়েছি, ভবিষ্যতে আর গুনাহ করব না। এটাই হল খাঁটি তওবা। আমি সুদ খেয়েছি, ঘুষ খেয়েছি, মিথ্যা বলেছি, এ অন্যায় করেছি, হে আল্লাহ এসবের জন্য আমি অনুতপ্ত। আমি লজ্জিত। এভাবেই আল্লাহর দরবারে কেঁদে কেটে খাঁটি তওবা করতে হয়। কোরআনে একেই ‘তওবাতুন নাসুহা’ বলেছে।

তওবা করলাম ঠিকই; কিন্তু যে গুনাহ করলাম সে গুনাহের জন্য কোনো অনুতপ্ত হলাম না, গুনাহ না করার শপথ করলাম না- এমন তওবায় আল্লাহ রাগ হন। একজন কবি তার ফার্সি কবিতায় বলেছেন- ‘হে আল্লাহর বান্দা! তুমি আল্লাহর দরবারে তওবার পর তওবা করছ। যে গুনাহের জন্য তুমি তওবা করছ, সে গুনাতেই তুমি ডুবে আছ। এতে করে আল্লাহ অসন্তুষ্ট হচ্ছেন। আর তোমার মিথ্যা তওবা দেখে শয়তান খিলখিয়ে হাসে।’

হাদিস শরিফে এসেছে, ‘আল্লাহ রাব্বুল আলামিন শবেবরাতে বা মধ্য শাবানের রাতে আসমানে এসে বান্দাকে ডেকে ডেকে বলেন, তোমাদের মাঝে ক্ষমা চাওয়ার মতো কে আছ? আমার কাছে চাও, আমি ক্ষমা করে দেব। তোমাদের মাঝে তওবা করার মতো কে আছ? আমার কাছে তওবা কর। আমি তওবা কবুল করব। তোমাদের মাঝে রিজিক চাওয়ার মতো কে আছ? আমার কাছে চাও। আমি রিজিক দেব। (তিরমিজি শরিফ।)

বর্ণিত আছে, এক বুজুর্গ স্বপ্নে শয়তানকে দেখলেন। শয়তান খুবই চিন্তামগ্ন। বুজুর্গ জানতে চাইলেন, কী ব্যাপার তুমি এমন চিন্তামগ্ন কেন? শয়তান বলল, আমি আল্লাহর বান্দাকে অনেক কষ্টে গুনাহর সাগরে ডুবিয়ে নাকানি-চুবানি খাওয়াই। এক সময় সে তওবার মাধ্যমে আল্লাহর রহমতের দরিয়ায় ঝাঁপ দিয়ে পূতপবিত্র হয়ে জান্নাতি মানুষ হয়ে যায়। এতে আমি এমন কষ্ট পাই, যেন কেউ আমার মেরুদণ্ড ভেঙে দিল।

হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, বড়ই আজব ব্যাপার! যে মানুষটি কয়েক মুহূর্ত পরই মারা যাবে, অথচ সে দিব্যি বাজারে আড্ডা দিচ্ছে, হাসছে, পাপ কাজে মগ্ন রয়েছে। সে চিন্তাও করে না যে, তাকে কবরে যেতে হবে, তার তওবা করা উচিত। তাই আসুন, পাপ হয়ে গেলেই আমরা তওবা করি। মৃত্যুর আগেই আমরা কবরের জীবনের প্রস্তুতি গ্রহণ করি। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাদের খাঁটি তওবা করার তাওফিক দান করুন।

লেখক : খতিব ও সিনিয়র শিক্ষক, জামিয়া ইসলামিয়া বায়তুল করিম চট্টগ্রাম

আরও খবর
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত