শরিয়তের আলোকে করোনা রোগীর দাফন-কাফন

  আহনাফ আবদুল কাদির ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কোনো মুসলমান মৃত্যুবরণ করলে অন্যদের ওপর দায়িত্ব হচ্ছে গোসল দেয়া, দাফন-কাফন করা এবং তার জানাজার ব্যবস্থা করা। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা গেলে বা যে কোনো মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেও তার গোসল এবং কাফন-দাফন করা আবশ্যক। মৃতের দেহ থেকে জীবিতরা রোগে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ের অজুহাত দেখিয়ে একজন মুসলমানের গোসল ও কাফন-দাফন বাদ দেয়ার সুযোগ নেই। একজন মুসলমান হিসেবে অন্য মুসলমানের ওপর এটি আল্লাহ ও রাসূল (সা.) নির্দেশিত ধর্মীয় অধিকার।

হজরত আবু হুরায়া (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, একজন মুসলমানের কাছে আরেকজন মুসলমানের পাঁচটি অধিকার আছে। অধিকারগুলো হল- খুশি মনে তার সালামের জওয়াব দেয়া, অসুস্থ হলে তার সেবা করা, সে মারা গেলে তার জন্য জানাজার ব্যবস্থা করা, কোনো প্রয়োজনে ডাকলে সাড়া দেয়া, হাঁচির জওয়াবে দোয়া পড়া। (সহি বুখারি, কিতাবুল জানায়েজ, হাদিস : ১২৪০; সহি মুসলিম, কিতাবুস সালাম, হাদিস : ৫৪৮৭।)

আল্লাহর ওপর ভরসা রেখে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে করোনায় মৃতকে গোসল করাতে হবে। গোসলদানকারী ব্যক্তি হাতে গ্লাভস, মুখে মাস্ক, পুরো শরীর ঢেকে ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করে মৃতকে গোসল করাবেন। স্বাভাবিক সময়েও মৃতকে গোসল দেয়ার সময় হাতে কাপড় পেঁচিয়ে নেয়ার নির্দেশ শরিয়তে আছে।

যে ক্ষেত্রে মৃতকে গ্লাভস পরে বা কাপড় দিয়ে হাত ঢেকে গোসল দেয়া সম্ভব হবে না সে ক্ষেত্রে শুধু পানি ঢেলে যতটুকু সম্ভব সতর্কভাবে কাফন পরিয়ে আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশীরা মিলে দাফনের কাজ শেষ করবেন। মনে রাখতে হবে, মৃতকে গোসল করানো জীবিতদের ওপর ওয়াজিব। তাই কোনোভাবেই গোসল-জানাজা ছাড়া মৃতকে দাফন করা বা ফেলে রাখা শরিয়তসম্মত নয়।

লাশ ফুলে গেলে, ফেটে গেলে, বিকৃত হয়ে গেলে এবং শরিয়ত মতে গোসল করানো সম্ভব না হলে, সে ক্ষেত্রে যে কোনোভাবে লাশের ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত করে দিলেই আবশ্যক দায়িত্ব পালন হয়ে যাবে (মারাকিউল ফালাহ, পৃষ্ঠা ৫৭০)। এই ফতোয়ার আলোকে বলা যায়, ঠিকঠাক নিয়ম মেনে গোসল করাতে গেলে যদি গোসলদাতারা মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়ার সম্ভাবনা সুনিশ্চিতভাবে জানা যায়, সে ক্ষেত্রে যথাসম্ভব দূরত্ব বজায় রেখে পাইপ দিয়ে বা ভিন্ন উপায়ে মৃতের শরীরে পানি ঢেলে দিতে হবে। প্রয়োজনের তাগিদে মৃতকে যথাসম্ভব তাড়াতাড়ি দাফন করা যাবে। মৃতের মাধ্যমে ছোঁয়াচে ব্যাধি ছড়ানোর প্রবল সম্ভাবনা থাকলে খোলা মাঠে বেশি মানুষ নিয়ে জানাজা আদায় করা ঠিক হবে না। অল্প মানুষ নিয়ে বদ্ধ ঘরে কিংবা ছোট জায়গায় জানাজা পড়িয়ে দ্রুত দাফন করে ফেলতে হবে। (বাহরুর রায়েক, ২য় খণ্ড, ৩০০ পৃষ্ঠা।)

লেখক : শিক্ষক, মহামায়া হানাফিয়া উচ্চবিদ্যালয়, চাঁদপুর

আরও খবর
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত