কেউ হিন্দু কেউ মুসলমান একই মায়ের সন্তান

  শরীফ উদ্দিন পেশোয়ার ৩১ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পৃথিবীতে মত ও পথের ভিন্নতা রয়েছে। মত ও পথের পার্থক্যের অর্থ এই নয়, আপনাকে আমি ঘৃণা করব! আপনার বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াব কিংবা আপনাকে মুসলমান থেকে খারিজ ভাবব! মত ও পথের পার্থক্য থাকতেই পারে। মহান আল্লাহতায়ালা বড় সুন্দর ভাষায় বলেছেন, ‘লাকুম দিনুকুম ওয়ালিয়াদিন- তোমাদের ধর্ম-মত তোমাদের জন্য; আমাদের ধর্ম-মত আমাদের জন্য।’ আল্লাহতায়ালা আরও বলেন, ‘তাদের উপদেশ দাও সুন্দর ভাষায়, হেকমতের সঙ্গে।’ পবিত্র কোরআনের বিভিন্ন আয়াত থেকে জানা যায়, আল্লাহতায়ালা বিদ্বেষ পোষণকারী, গিবতকারী, ফিতনাবাজ ও হিংসুককে ভালোবাসেন না। আমরা দেখতে পাই, সংগঠন বিশেষ করে ইসলামপন্থীরা একদল আরেক দলকে; এক আলেম আরেক আলেমকে- ভিন্নমত ও পথকে সহ্য করতে পারছে না। একদলের আলেম আরেক দলের বা মতাদর্শের আলেমের ওয়াজ-নসিহতে বাধা পর্যন্ত সৃষ্টি করে।

আমরা বলি, অমুক এমন জামা পরেছে; এমন টুপি পরেছে বা এভাবে দাড়ি রেখেছে- সে আমাদের দলের নয়। তাকে আমরা মুসলমানই ভাবতে পারি না। আসলে কে কী পোশাক পরল বা কেমন দাড়ি রাখল তাতে কী আসে যায় যদি ভেতরটিই পরিশুদ্ধ না হয়। শেখ সাদী বলেন, ‘দলকাত বচে কার আইয়াদ ও তছবিহ ও মোরাক্কা, খোদরা আজ আমল হায়ে নেকুহিদাহ্ বরি দার। হাজত ব কোলাহে বরকি দাশতানাত নিস্ত। দরবেশ সেফাত বাশ ও কোলাহে তাতারি দার। কবিতাটির অর্থ হচ্ছে, তোমার নেংটি কিংবা লম্বা তালিযুক্ত দরবেশী পোশাক কোনো কাজে আসবে না। পশমি টুপি পরে দরবেশ সাজার দরকার নেই। গোনাহ থেকে বেঁচে থাক। দরবেশী চরিত্র গড়ে তোল। তাহলেই তুমি শুদ্ধ মানুষ হতে পারবে।

ইমাম গাজ্জালি বলেছেন, মানুষের দোষ গোপন রাখা ওয়াজিব। একজন আলেমের দোষ গোপন রাখা আরও বড় ওয়াজিব। একজন আলেমের দোষ ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ মানুষের মনে বিরূপ প্রভাব পড়বে। অথচ আজ আলেমরা আলেমদের বিরুদ্ধে ভয়ংকর সব কটু কথা বলে বেড়াচ্ছেন। কেউ যদি অন্তরের চোখে দেখেন, মাহফিলে নবী (সা.) হাজির হয়েছেন- তিনি দাঁড়াতেই পারেন। আর যারা দেখেননি তারা না হয় বসেই দরুদ পড়লেন। অনেকে বলেন নবী (সা.) নূরের তৈরি, অনেকে বলেন মাটির। সব মানুষের মাঝেই মাটি এবং নুরানি সত্তা রয়েছে। এসব নিয়ে ঝগড়াঝাঁটির কিছুই নেই।

কেউ কেউ আলেমদের খাটো করে কথা বলেন। এগুলোও ঠিক নয়। হাদিস শরিফে রাসূল (সা.) বলেছেন, ইবাদত গোজার মানুষের চেয়ে আলেমের মর্যাদা বেশি। আকাশের তারার ভিড়ে চাঁদ যেমন দামি, তেমনি হাজারও আবেদের ভিড়ে একজন জ্ঞানী মানুষের দাম অনেক বেশি। অন্য হাদিসে এসেছে, নিশ্চয় জ্ঞানীরা নবীদের ওয়ারিশ। (আবু দাউদ)। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেন, যারা জানে আর যারা জানে না তারা সমান নয়। এখন আমরা যদি আলেমদের ঘৃণা করি তাহলে ধর্ম বুঝব কাদের থেকে? আমরা সবার কথা-লেখা পড়ব ও শুনব। শুধু একপক্ষের দলিল শুনেই কোনো সিদ্ধান্ত নেব না। যাদের সঙ্গে আবু বকর, ওমার, উসমান, আলী ও ফাতেমাসহ আহলে বাইতের আদর্শ মিলে যায় আমরা তাদের অনুসরণ করব। আর যারা সালাতি জিন্দেগি যাপন করে না, সবসময় সত্য বলে না ও মিথ্যায় ডুবে থাকে তাদের আমরা বোঝানোর চেষ্টা করব। কিন্তু কখনই দ্বন্দ্বে জড়াব না। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেছেন, লা ইকরহা ফিদদিন। ধর্ম নিয়ে জোরাজুরি নেই। শাহ আব্দুল করিম বলতেন, ‘তুমিও মানুষ আমিও মানুষ, সকল এক মায়ের সন্তান। এসব নিয়ে দ্বন্দ্ব কেন, কেউ হিন্দু কেউ মুসলমান!’

লেখক : প্রাবন্ধিক

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত