সত্য কথা সোজাভাবে বল
jugantor
সত্য কথা সোজাভাবে বল

  মুফতি জাওয়াদ তাহের  

০৭ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুগ যুগ ধরে সংবাদ প্রচার ও বার্তা পাঠানোর বিভিন্ন পদ্ধতি চলে আসছে। সংবাদ প্রচার করা বা সাংবাদিকের যেমন মর্যাদা রয়েছে তেমনি রয়েছে তার জন্য সতর্কবাণী। সূরা সাবা’তে হুদহুদ পাখির সংবাদ প্রচারের ধরন বড় চমৎকারভাবে আলোচনা করা হয়েছে। সংবাদ কেমন হবে ও একজন সাংবাদিকের কী কী গুণাবলি থাকা দরকার- একটি পাখির মাধ্যমে জগৎবাসীকে শিখিয়েছেন আল্লাহতায়ালা। আল্লাহ বলেন, ‘তারপর হুদহুদ এসে বলল, ‘আমি সে সংবাদ জেনে এসেছি আপনি তা জানেননি। আমি সাবা থেকে আপনার জন্য সঠিক তথ্য নিয়ে এসেছি। আমি দেখেছি, একজন নারী রাজত্ব করছে। তাকে দেয়া হয়েছে সব কিছু। আর তার আছে এক বিশাল সিংহাসন। আমি তাকে এবং তার জনগণকে আল্লাহকে বাদ দিয়ে সূর্যকে সেজদা করতে দেখেছি। আর শয়তান তাদের কাজগুলো বিশেষ রং মেখে দিয়েছে। ফলে তারা কুফরি ও শিরকে আনন্দের সঙ্গে ডুবে আছে। তারা আল্লাহর হেদায়েত থেকে দূরে সরে আছে।’ (সূরা আন-নামল, আয়াত ২২-২৬)।

এ আয়াতের আলোকে একজন সাংবাদকর্মীর যে গুণগুলো থাকতেই হবে তা হল- ১. সংবাদটি নির্ভরযোগ্য ও সঠিক কিনা তা নিশ্চিত হতে হবে; ২. সংবাদটি প্রমাণ ও যুক্তিনির্ভর হতে হবে; ৩. সরেজমিন খবরের তথ্য সংগ্রহ করতে হবে; ৪. বিশ্লেষণধর্মী সমালোচনা থেকে রাজা-প্রজা কেউই বাদ যাবে না; ৪. সমস্যার গভীর পর্যালোচনার পাশাপাশি সম্ভাব্য সমাধানও তুলে ধরতে হবে।

কোনো সংবাদ যাচাই না করে তা প্রকাশ করা হারাম। কে কার আগে খবর প্রচার করে সুনাম কুড়াবে- এ নিয়ে গণমাধ্যমগুলোয় এক ধরনের অসুস্থ প্রতিযোগিতা দেখা যায়। যে কারণে অনেক ক্ষেত্রেই খবরের সত্যতা ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করা হয় না। এর ফলে গণমাধ্যম জনগণের কাছে নির্ভরযোগ্যতা হারিয়ে ফেলে। তাছাড়া যার ব্যাপারে সংবাদটি প্রচার করা হয়েছে তার জীবনেও এক ভয়ংকর অন্ধকার নেমে আসে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, ‘হে মুমিনরা! যদি কোনো পাপাচারী ব্যক্তি তোমাদের কাছে কোনো তথ্য বা খবর নিয়ে আসে তবে তোমরা গভীর তদন্ত করে দেখবে, যাতে না জেনে তোমরা কোনো সম্প্রদায়ের ক্ষতি করে না ফেল। এতে করে পরবর্তীতে তোমাদেরই দুঃখ প্রকাশ করতে হবে। (সূরা আল-হুজরাত, আয়াত ৬)।

এ আয়াতে সাংবাদিকতার একটি মূলনীতি বলা হয়েছে। কোনো খবর শুনলেই তা বিশ্বাস করা যাবে না। প্রথমে তা যাচাই-বাছাই করে তারপর তা পাঠকের সামনে পরিবেশন করতে হবে। নতুবা একটি ভুল সংবাদের জের ধরে রাষ্ট্র ও সমাজে ভয়াবহ বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে পারে। সূত্রের সত্যতা তদন্ত না করে খবর পরিবেশন করার ব্যাপারে রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘মিথ্যাবাদী হওয়ার জন্য এতটুকুই যথেষ্ট, শোনা কথা যাচাই-বাছাই না করে পরিবেশন করা।’ (মুসলিম, হাদিস নম্বর ৫)।

কোনো ধরনের কাটছাঁট না করে হুবহু যা ঘটেছে তাই প্রকাশ করা একজন সাংবাদকর্মীর নৈতিক দায়িত্ব। পাশাপাশি একজন সংবাদকর্মীকে নির্ভীক হওয়াও জরুরি। সত্য উচ্চারণ করতে কখনও ভয় পাওয়া চলবে না। এমনকি সত্যকে ঘুরিয়ে-পেঁচিয়ে বলা কিংবা আংশিক সত্য বলা একজন সংবাদকর্মীর জন্য জায়েজ নেই। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেন, ‘হে বিশ্বাসীরা! আল্লাহকে ভয় কর এবং সত্য কথা সোজাভাবে বল। (সূরা আল আহজাব, আয়াত ৭০)।

লেখক : সিনিয়র শিক্ষক জামিয়া বাবুস সালাম, ঢাকা

 

সত্য কথা সোজাভাবে বল

 মুফতি জাওয়াদ তাহের 
০৭ আগস্ট ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুগ যুগ ধরে সংবাদ প্রচার ও বার্তা পাঠানোর বিভিন্ন পদ্ধতি চলে আসছে। সংবাদ প্রচার করা বা সাংবাদিকের যেমন মর্যাদা রয়েছে তেমনি রয়েছে তার জন্য সতর্কবাণী। সূরা সাবা’তে হুদহুদ পাখির সংবাদ প্রচারের ধরন বড় চমৎকারভাবে আলোচনা করা হয়েছে। সংবাদ কেমন হবে ও একজন সাংবাদিকের কী কী গুণাবলি থাকা দরকার- একটি পাখির মাধ্যমে জগৎবাসীকে শিখিয়েছেন আল্লাহতায়ালা। আল্লাহ বলেন, ‘তারপর হুদহুদ এসে বলল, ‘আমি সে সংবাদ জেনে এসেছি আপনি তা জানেননি। আমি সাবা থেকে আপনার জন্য সঠিক তথ্য নিয়ে এসেছি। আমি দেখেছি, একজন নারী রাজত্ব করছে। তাকে দেয়া হয়েছে সব কিছু। আর তার আছে এক বিশাল সিংহাসন। আমি তাকে এবং তার জনগণকে আল্লাহকে বাদ দিয়ে সূর্যকে সেজদা করতে দেখেছি। আর শয়তান তাদের কাজগুলো বিশেষ রং মেখে দিয়েছে। ফলে তারা কুফরি ও শিরকে আনন্দের সঙ্গে ডুবে আছে। তারা আল্লাহর হেদায়েত থেকে দূরে সরে আছে।’ (সূরা আন-নামল, আয়াত ২২-২৬)।

এ আয়াতের আলোকে একজন সাংবাদকর্মীর যে গুণগুলো থাকতেই হবে তা হল- ১. সংবাদটি নির্ভরযোগ্য ও সঠিক কিনা তা নিশ্চিত হতে হবে; ২. সংবাদটি প্রমাণ ও যুক্তিনির্ভর হতে হবে; ৩. সরেজমিন খবরের তথ্য সংগ্রহ করতে হবে; ৪. বিশ্লেষণধর্মী সমালোচনা থেকে রাজা-প্রজা কেউই বাদ যাবে না; ৪. সমস্যার গভীর পর্যালোচনার পাশাপাশি সম্ভাব্য সমাধানও তুলে ধরতে হবে।

কোনো সংবাদ যাচাই না করে তা প্রকাশ করা হারাম। কে কার আগে খবর প্রচার করে সুনাম কুড়াবে- এ নিয়ে গণমাধ্যমগুলোয় এক ধরনের অসুস্থ প্রতিযোগিতা দেখা যায়। যে কারণে অনেক ক্ষেত্রেই খবরের সত্যতা ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করা হয় না। এর ফলে গণমাধ্যম জনগণের কাছে নির্ভরযোগ্যতা হারিয়ে ফেলে। তাছাড়া যার ব্যাপারে সংবাদটি প্রচার করা হয়েছে তার জীবনেও এক ভয়ংকর অন্ধকার নেমে আসে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, ‘হে মুমিনরা! যদি কোনো পাপাচারী ব্যক্তি তোমাদের কাছে কোনো তথ্য বা খবর নিয়ে আসে তবে তোমরা গভীর তদন্ত করে দেখবে, যাতে না জেনে তোমরা কোনো সম্প্রদায়ের ক্ষতি করে না ফেল। এতে করে পরবর্তীতে তোমাদেরই দুঃখ প্রকাশ করতে হবে। (সূরা আল-হুজরাত, আয়াত ৬)।

এ আয়াতে সাংবাদিকতার একটি মূলনীতি বলা হয়েছে। কোনো খবর শুনলেই তা বিশ্বাস করা যাবে না। প্রথমে তা যাচাই-বাছাই করে তারপর তা পাঠকের সামনে পরিবেশন করতে হবে। নতুবা একটি ভুল সংবাদের জের ধরে রাষ্ট্র ও সমাজে ভয়াবহ বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে পারে। সূত্রের সত্যতা তদন্ত না করে খবর পরিবেশন করার ব্যাপারে রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘মিথ্যাবাদী হওয়ার জন্য এতটুকুই যথেষ্ট, শোনা কথা যাচাই-বাছাই না করে পরিবেশন করা।’ (মুসলিম, হাদিস নম্বর ৫)।

কোনো ধরনের কাটছাঁট না করে হুবহু যা ঘটেছে তাই প্রকাশ করা একজন সাংবাদকর্মীর নৈতিক দায়িত্ব। পাশাপাশি একজন সংবাদকর্মীকে নির্ভীক হওয়াও জরুরি। সত্য উচ্চারণ করতে কখনও ভয় পাওয়া চলবে না। এমনকি সত্যকে ঘুরিয়ে-পেঁচিয়ে বলা কিংবা আংশিক সত্য বলা একজন সংবাদকর্মীর জন্য জায়েজ নেই। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলেন, ‘হে বিশ্বাসীরা! আল্লাহকে ভয় কর এবং সত্য কথা সোজাভাবে বল। (সূরা আল আহজাব, আয়াত ৭০)।

লেখক : সিনিয়র শিক্ষক জামিয়া বাবুস সালাম, ঢাকা