পরিবেশ আন্দোলন ছড়িয়ে দিন মসজিদ মাদ্রাসায়
jugantor
সাক্ষাৎকার
পরিবেশ আন্দোলন ছড়িয়ে দিন মসজিদ মাদ্রাসায়

  আল ফাতাহ মামুন  

২০ নভেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, প্রকৃতি-পরিবেশ এবং জীবনযাপনে পবিত্রতা ও পরিচ্ছন্নতায় আমরা খোদায়ি দেয়াল টপকে আসছি বহু দিন থেকেই।

জামালী তালিমুল কোরআন সোসাইটির চেয়ারম্যান এবং রূপায়ণ টাউন সেন্ট্রাল মসজিদের খতিব শাইখ মুহাম্মাদ জামাল উদ্দীন বলেন, বড় আফসোসের কথা হল, সাধারণ মানুষ তো বটেই ধর্মপ্রাণ মুসলমান-আলেম-ওলামাদের মাঝেও পরিবেশ সংরক্ষণ ও পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে চরম অবহেলা দেখে আসছি ছোট বেলা থেকেই।

ছাত্রাবস্থায় দেখেছি, মাদ্রাসার অভ্যন্তরীণ পরিবেশও নোংরা! এ কথা কোনোভাবেই অস্বীকার করা যায় না, আজো বাংলাদেশের অধিকাংশ মসজিদ-মাদ্রাসার অভ্যন্তরীণ পরিবেশ মানসম্মত পর্যায়ে পৌঁছেনি।

সবচেয়ে দুঃখ হয়, আমাদের ইমামরা তাদের মুসল্লিদের নিয়ে, মাদ্রাসাপ্রধানরা তাদের ছাত্রদের নিয়ে পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করতে পারেনি।

খতিবরা জুমার বয়ানে পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে আলোচনা করে নামাজ শেষে মুসল্লিদের নিয়ে ঝাড়ু হাতে বেরিয়ে পড়লে, আলেমরা কিতাবুত তাহারাত-পবিত্রতার অধ্যায় পাঠদান করে ছাত্রদের নিয়ে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নেমে গেলেই একটি সুস্থ ও সুন্দর বাংলাদেশ গড়া অতি সহজে সম্ভব।

শাইখ মুহাম্মাদ জামাল উদ্দীন আরও বলেন, আমাদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা হল- মানুষকে শিখিয়েছি নামাজ পড়তে হবে, রোজা রাখতে হবে ইত্যাদি। কিন্তু আমরা শেখাতে পারেনি গাছ লাগাতে হবে, পরিবেশ সংরক্ষণ করতে হবে, প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে।

রাসূল (সা.) বলেছেন, রাস্তা ময়লাকারীর প্রতি আল্লাহর অভিশাপ। এ হাদিস জনে জনে ছড়িয়ে দিতে পারলে বাংলাদেশের পথঘাট পৃথিবী সেরা হওয়ার গৌরব অর্জন করত।

রাজধানীর মিফতাহুল উলুম বাড্ডা মাদ্রাসার শিক্ষক মুফতি আবদুল মজিদ বলেন, প্রকৃতি-পরিবেশের সংরক্ষণ এবং ভারসাম্য রক্ষার ব্যাপারে ইসলামে এত বেশি জোর দেয়া হয়েছে যে, ফিকাহের প্রতিটি গ্রন্থ শুরুই হয়েছে কিতাবুত তাহারাত বা পবিত্রতার অধ্যায় দিয়ে।

একজন পরিচ্ছন্ন মানুষের পক্ষেই সম্ভব পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখা। ইসলাম বলছে, পবিত্র না হয়ে তুমি সালাতে দাঁড়াতে পারবে না। তোমার শরীর, পোশাক, স্থান পবিত্র হতেই হবে। একজন মুসলমান যখন প্রতিদিন পাঁচবার শরীর, পোশাক, স্থানের পবিত্রতার চর্চা করবে তার পক্ষে কী করে সম্ভব ঘর, সমাজ, রাষ্ট্র অপবিত্র-অপরিচ্ছন্ন রাখা!

দুঃখজনক হলেও সত্য, মসজিদের শহর ঢাকা বারবার অপরিচ্ছন্নতার শহরের তালিকায় প্রথম হয়েছে। এটা আমাদের জন্য চরম লজ্জার। মানুষকে বোঝাতে হবে, মানসিক, শারীরিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় সব ধরনের পরিচ্ছন্নতা-পবিত্রতা ইমানের অংশ।

লেখক : গণমাধ্যম কর্মী

Email: [email protected]

সাক্ষাৎকার

পরিবেশ আন্দোলন ছড়িয়ে দিন মসজিদ মাদ্রাসায়

 আল ফাতাহ মামুন 
২০ নভেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, প্রকৃতি-পরিবেশ এবং জীবনযাপনে পবিত্রতা ও পরিচ্ছন্নতায় আমরা খোদায়ি দেয়াল টপকে আসছি বহু দিন থেকেই।

জামালী তালিমুল কোরআন সোসাইটির চেয়ারম্যান এবং রূপায়ণ টাউন সেন্ট্রাল মসজিদের খতিব শাইখ মুহাম্মাদ জামাল উদ্দীন বলেন, বড় আফসোসের কথা হল, সাধারণ মানুষ তো বটেই ধর্মপ্রাণ মুসলমান-আলেম-ওলামাদের মাঝেও পরিবেশ সংরক্ষণ ও পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে চরম অবহেলা দেখে আসছি ছোট বেলা থেকেই।

ছাত্রাবস্থায় দেখেছি, মাদ্রাসার অভ্যন্তরীণ পরিবেশও নোংরা! এ কথা কোনোভাবেই অস্বীকার করা যায় না, আজো বাংলাদেশের অধিকাংশ মসজিদ-মাদ্রাসার অভ্যন্তরীণ পরিবেশ মানসম্মত পর্যায়ে পৌঁছেনি।

সবচেয়ে দুঃখ হয়, আমাদের ইমামরা তাদের মুসল্লিদের নিয়ে, মাদ্রাসাপ্রধানরা তাদের ছাত্রদের নিয়ে পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করতে পারেনি।

খতিবরা জুমার বয়ানে পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে আলোচনা করে নামাজ শেষে মুসল্লিদের নিয়ে ঝাড়ু হাতে বেরিয়ে পড়লে, আলেমরা কিতাবুত তাহারাত-পবিত্রতার অধ্যায় পাঠদান করে ছাত্রদের নিয়ে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নেমে গেলেই একটি সুস্থ ও সুন্দর বাংলাদেশ গড়া অতি সহজে সম্ভব।

শাইখ মুহাম্মাদ জামাল উদ্দীন আরও বলেন, আমাদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা হল- মানুষকে শিখিয়েছি নামাজ পড়তে হবে, রোজা রাখতে হবে ইত্যাদি। কিন্তু আমরা শেখাতে পারেনি গাছ লাগাতে হবে, পরিবেশ সংরক্ষণ করতে হবে, প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে।

রাসূল (সা.) বলেছেন, রাস্তা ময়লাকারীর প্রতি আল্লাহর অভিশাপ। এ হাদিস জনে জনে ছড়িয়ে দিতে পারলে বাংলাদেশের পথঘাট পৃথিবী সেরা হওয়ার গৌরব অর্জন করত।

রাজধানীর মিফতাহুল উলুম বাড্ডা মাদ্রাসার শিক্ষক মুফতি আবদুল মজিদ বলেন, প্রকৃতি-পরিবেশের সংরক্ষণ এবং ভারসাম্য রক্ষার ব্যাপারে ইসলামে এত বেশি জোর দেয়া হয়েছে যে, ফিকাহের প্রতিটি গ্রন্থ শুরুই হয়েছে কিতাবুত তাহারাত বা পবিত্রতার অধ্যায় দিয়ে।

একজন পরিচ্ছন্ন মানুষের পক্ষেই সম্ভব পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখা। ইসলাম বলছে, পবিত্র না হয়ে তুমি সালাতে দাঁড়াতে পারবে না। তোমার শরীর, পোশাক, স্থান পবিত্র হতেই হবে। একজন মুসলমান যখন প্রতিদিন পাঁচবার শরীর, পোশাক, স্থানের পবিত্রতার চর্চা করবে তার পক্ষে কী করে সম্ভব ঘর, সমাজ, রাষ্ট্র অপবিত্র-অপরিচ্ছন্ন রাখা!

দুঃখজনক হলেও সত্য, মসজিদের শহর ঢাকা বারবার অপরিচ্ছন্নতার শহরের তালিকায় প্রথম হয়েছে। এটা আমাদের জন্য চরম লজ্জার। মানুষকে বোঝাতে হবে, মানসিক, শারীরিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় সব ধরনের পরিচ্ছন্নতা-পবিত্রতা ইমানের অংশ।

লেখক : গণমাধ্যম কর্মী

Email: [email protected]