অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ও ড্রপশিপিং করে উপার্জন কি বৈধ?
jugantor
ইসলাম বিষয়ক প্রশ্নোত্তর
অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ও ড্রপশিপিং করে উপার্জন কি বৈধ?

  ইসলাম ও জীবন ডেস্ক  

০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আবু সালেহ

গফুরগাঁও, ময়মনসিংহ

প্রশ্ন : অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, ড্রপশিপিং এবং সিপিএ করে উপার্জন করা কি জায়েজ?

উত্তর : দেশি-বিদেশি নানা কোম্পানিতে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, ড্রপশিপিং এবং সিপিএ-এর মাধ্যমে আয় করার সুযোগ রয়েছে। অর্থাৎ কোম্পানির পণ্য নিজের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অথবা নিজে অ্যাড দিয়ে বা প্রমোট করে বিক্রি করা হয় এবং বিক্রীত প্রতিটি পণ্যের থেকে একটি নির্দিষ্ট কমিশন যিনি বিক্রি করে দিয়েছেন, তাকে প্রদান করা হয়। এভাবে কমিশন গ্রহণ করা জায়েজ আছে। তবে শর্ত হলো, পণ্যটি অবশ্যই হালাল পণ্য হতে হবে। যদি পণ্য বা সার্ভিসটি কোনোভাবে হারাম হয়ে থাকে তবে সেখান থেকে উপার্জন করা সম্পূর্ণ নাজায়েজ ও হারাম।

ইবনে ‘আব্বাস (রা.) বলেন, যদি কেউ বলে যে, তুমি এ কাপড়টি বিক্রি করে দাও। এত এত এর ওপর যা বেশি হয় তা তোমার, এতে কোনো দোষ নেই। ইবনু সিরিন (রহ.) বলেন, যদি কেউ বলে যে, এটা এত এত দামে বিক্রি করে দাও, লাভ যা হবে, তা তোমার, অথবা তা তোমার ও আমার মধ্যে সমান হারে ভাগ হবে, তবে এতে কোনো দোষ নেই। নবি (সা.) বলেছেন, মুসলিমগণ তাদের পরস্পরের শর্তানুযায়ী কাজ করবে।

তথ্যসূত্র : সহিহ বুখারি-১/৩০৩, রদ্দুল মুহতার ৯/৮৭ ফতোয়ায়ে তাতারখানিয়া ১৫/১৩৭।

ইসলাম বিষয়ক প্রশ্নোত্তর

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ও ড্রপশিপিং করে উপার্জন কি বৈধ?

 ইসলাম ও জীবন ডেস্ক 
০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আবু সালেহ

গফুরগাঁও, ময়মনসিংহ

প্রশ্ন : অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, ড্রপশিপিং এবং সিপিএ করে উপার্জন করা কি জায়েজ?

উত্তর : দেশি-বিদেশি নানা কোম্পানিতে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, ড্রপশিপিং এবং সিপিএ-এর মাধ্যমে আয় করার সুযোগ রয়েছে। অর্থাৎ কোম্পানির পণ্য নিজের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অথবা নিজে অ্যাড দিয়ে বা প্রমোট করে বিক্রি করা হয় এবং বিক্রীত প্রতিটি পণ্যের থেকে একটি নির্দিষ্ট কমিশন যিনি বিক্রি করে দিয়েছেন, তাকে প্রদান করা হয়। এভাবে কমিশন গ্রহণ করা জায়েজ আছে। তবে শর্ত হলো, পণ্যটি অবশ্যই হালাল পণ্য হতে হবে। যদি পণ্য বা সার্ভিসটি কোনোভাবে হারাম হয়ে থাকে তবে সেখান থেকে উপার্জন করা সম্পূর্ণ নাজায়েজ ও হারাম।

ইবনে ‘আব্বাস (রা.) বলেন, যদি কেউ বলে যে, তুমি এ কাপড়টি বিক্রি করে দাও। এত এত এর ওপর যা বেশি হয় তা তোমার, এতে কোনো দোষ নেই। ইবনু সিরিন (রহ.) বলেন, যদি কেউ বলে যে, এটা এত এত দামে বিক্রি করে দাও, লাভ যা হবে, তা তোমার, অথবা তা তোমার ও আমার মধ্যে সমান হারে ভাগ হবে, তবে এতে কোনো দোষ নেই। নবি (সা.) বলেছেন, মুসলিমগণ তাদের পরস্পরের শর্তানুযায়ী কাজ করবে।

তথ্যসূত্র : সহিহ বুখারি-১/৩০৩, রদ্দুল মুহতার ৯/৮৭ ফতোয়ায়ে তাতারখানিয়া ১৫/১৩৭।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন