মরুর দরবেশকে পাহারা দেয় ভয়ংকর সাপ

  আহমাদ উল্লাহ ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মরুর দরবেশকে পাহারা দেয় ভয়ংকর সাপ

তিনি ছিলেন অনেক বড় দরবেশ। আরব রাজ্যজুড়ে তার খ্যাতি। মাবুদ তাকে ভালোবাসেন। তাই তার সুনাম ছড়িয়ে দিয়েছেন সর্বত্র। এ সুনাম পছন্দ নয় একজনের। দাঁত কটমট করেন।

যখন-তখন দুই হাত মুঠো করেন। শূন্যে ছোড়েন দিলের গোস্যা। মন্ত্রী-উজিররা থরথর কাঁপে। ভয়ে যেন ফেটে যায় দিল। স্বভয়ে সবাই রুকু দিয়ে সালাম জানিয়ে বলে শান্ত হোন জাহাপনা।

স্বর্ণ আর হীরে মুক্তখচিত খলিফার সিংহাসন। খলিফা মনসুরের আজ সব তেঁতো লাগছে। এ জৌলুস। এ সিংহাসন সবই যেন বেকার। না এ হয় না। হতেই পারে না। এ রাজ্যের যত প্রাণী আমাকেই ভালোবাসবে কেবল। ছেঁড়া নেকড়া পরা দুর্বল এক দরবেশের নামদাম ছড়াবে কেন। আমার রাজ্যে তা হবে না। যাও এক্ষুণি।

দরবেশ সাদেককে ধরে নিয়ে আস। হত্যা করব তাকে। যত নামদাম মুছে দেব। মন্ত্রী ভয়ে আমতা আমতা করলেন। ইনিয়ে-বিনিয়ে বললেন। সে ঘর করে না দোর বাঁধে না। দূর নির্জনে থাকেন।

দিনমান খোদার খোঁজে মোরাকাবা করেন। বলছিলাম কী তার জন্য এই আদেশ.....বলতে না বলতেই খলিফা মনসুর গর্জে উঠলেন। বিরক্ত হয়ে হুকুম করলেন যা বলছি তাই কর। ধরে তাকে আনতেই হবে। এবার দৃঢ় কণ্ঠ হলেন মন্ত্রী। বললেন তাকে না আনলে হয় না!

চাকরি বাঁচাতে মন্ত্রীকে রওনা দিতে হল দরবেশের ছিন্ন-ভিন্ন ঝুপড়িতে। বাদশা তার জল্লাদের ডেকে হুকুম দিলেন। যখন দরবেশ জাফর সাদেক দরবারে পা রাখবে। আমি মাথার মুকুট খুলে ফেলব।

তক্ষুণি তোমরা সাদেকের মুণ্ডু কেটে ফেলবে। খানিক পর সিংহাসন ছেড়ে হঠাৎ দাঁড়িয়ে পড়লেন খলিফা মনসুর। দেখা গেল সভাকক্ষে পা রাখছেন দরবেশ সাদেক। আরবীয় বেড়ালের মতো মিউমিউ করে চার পা কচলে ছুটে গেলেন মনসুর। বিনীত ভঙ্গিতে তাকে অভ্যর্থনা জানালেন। সুন্দর নরম করে ধরে সিংহাসনে বসালেন।

খলিফা নিচে তার সামনে হাঁটু গেড়ে বসলেন। দুই হাত জড়ো করে অনুনয় করে দরবেশকে বললেন। হুজুর বলুন। কী সেবা করতে পারি আপনার। তক্ষুণি দাঁড়ালেন দরবেশ। দরজার দিকে পা বাড়িয়ে যেতে যেতে বললেন, আর কখনও বিরক্ত না করলেই আমার সেবা করা হবে।

খলিফা মনসুর ফটক পর্যন্ত হেঁটে তাকে বিদায় জানালেন। দরবেশ প্রাসাদ ছেড়ে বেরুলে অমনি খলিফা মনসুর সংজ্ঞা হারালেন। তিন তিন দিন। তিন তিন রাত কাটল। সংজ্ঞা হারা খলিফা।

তারপর স্বাভাবিক হলেন। অবস্থা ঠিক হলে মন্ত্রী স্বভয়ে জানতে চাইলেন, কী হয়েছিল খলিফা হুজুর। মনসুর বললেন, শোন তবে বলছি। দরবেশ যখন সভাকক্ষে পা রাখলেন। দেখলাম এক ভয়ংকর মরু সাপ।

ফণা তুলে তার পাশে পাশে এগিয়ে আসছে। আমাকে যেন বলছে। যদি তুমি দরবেশ সাদেকের ক্ষতি কর আমি তোমাকে এক ঢোকে গিলে খাব।

ভয়ে আমি দুনিয়া ভুলে গেলাম। মাফ চাইলাম দরবেশের পা জড়িয়ে। তিনি বেরিয়ে গেলে সংজ্ঞা হারালাম।

মাবুদ কোরআনে বলেছেন- যে আমার হয়ে যায়। আমিও তার হয়ে যাই। আমরা কি পারি না ছেলেবেলা থেকেই মানবসেবা করতে? ভালো কাজ করে করেই আমরাও হয়ে উঠতে পারি মাবুদের প্রিয়জন। তখন আমাদের জন্যও তিনি গায়বি পাহারাদার নিযুক্ত করবেন।

মহানবীর ৬ষ্ঠ বংশধর দরবেশ জাফর সাহেদেকের অমর উক্তিগুলো আজও স্মরণ করে পৃথিবীর মানুষ। তোমাদের জন্য ক’টি তুলে ধরলাম।

* সে সৌভাগ্যবান। যার শত্রু শিক্ষিত। * মিথ্যেবাদীর সঙ্গে বন্ধুত্ব করো না। তোমার সঙ্গে সে প্রতারণা করবে। * সঙ্গি করো না নির্বোধকে। এতে অমঙ্গল হবে তোমার। * কৃপণ থেকে দূরে থেকো। তোমার মূল্যবান সময় নষ্ট করবে সে। * হৃদয়হীনকে কাছে ডেকো না। অভাবে তোমাকে যন্ত্রণা দেবে। * যিনি জীবনকে জানতে জীবনের সঙ্গে লড়াই করেন, তিনি প্রভুর সঙ্গ লাভ করেন। * প্রভু যাকে ইচ্ছে তাকে যা খুশি তার হাত ভরে দান করেন। অকারণে ব্যাখ্যাহীন, এ সবই তার করুণা ধারা।

পৃথিবী খ্যাত সুফি গ্রন্থ

তাজকিরাতুল আউলিয়া থেকে

লেখক : সাংবাদিক ও শিশুসাহিত্যিক

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter