সনদের স্বীকৃতি এগিয়ে দেবে কওমি সন্তানদের

  যুগান্তর ডেস্ক    ০৫ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সনদের স্বীকৃতি এগিয়ে দেবে কওমি সন্তানদের
সাইফুজ্জামান শিখর, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব (পিএস)

মানুষ যখন খোশ হালতে থাকেন, তখন খোদাকে ভুলে যান। কিছু মানুষ থাকে, যারা শুকরিয়ার জীবন বেছে নেন। মানুষের পাশে দাঁড়ান।

দেশ ও জাতির সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেন। হয়ে ওঠেন আলোকিত মানুষ। সবার মুখে থাকে তার নাম। সাইফুজ্জামান শিখর তেমনই একজন আলোকিত মানুষ। তিনি প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব (পিএস)।

জাতির জনকের কন্যার ব্যক্তিগত সচিবের দায়িত্ব পালনের তওফিক অর্জনের জন্য মন-প্রাণ উজাড় করে শোকরিয়ার তাসবিহ জপ করেন তিনি সব সময়। কওমি সনদ প্রদানসহ বেশ কয়েকটি ধর্মীয় প্রকল্প অনুমোদনের পেছনে ছিল তার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভূমিকা।

আলোকিত মানুষ সাইফুজ্জামান শিখর উন্নয়নের আলো ছড়িয়েছেন নিজ গ্রামেও। মাগুরায় গড়ে তুলেছেন মসজিদ-মাদ্রাসা, এতিমখানা।

পাশে দাঁড়িয়েছেন দুস্থ-দরিদ্র মানুষের। এ ছাড়া মাগুরায় মেডিকেল কলেজ ও ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল নির্মাণ, আধুনিক স্টেডিয়াম, শেখ কামাল আইসিটি পার্ক, গরাই নদীতে সেতুর টেন্ডার, ৪ লেনের রাস্তা, পল্লী অবকাঠামোর ব্যাপক উন্নয়ন, শতভাগ বিদ্যুৎ, নবগঙ্গা ড্রেজিং, গরাই নদীর ভাঙন রোধে ৩৫০ কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়ন, বন্ধ টেক্সটাইল মিল চালু, গ্রামে গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিজ নির্মাণ, শালিখা উপজেলায় জুটমিল নির্মাণসহ আরও নেক উন্নয়ন আল্লাহপাক তার মাধ্যমে করিয়ে নিয়েছেন। ইসলাম ও জীবনের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় তিনি বলেছেন এসব কথা। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মোহাম্মদ ওমর ফারুক

যুগান্তর: প্রধানমন্ত্রীর পিএস হিসেবে দায়িত্ব পালনের অনুভূতি কী?

সাইফুজ্জামান : প্রথমেই আমি আল্লাহতায়ালার দরবারে শোকরিয়া আদায় করছি। তারপর প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই, তিনি আমাকে এ কাজের জন্য যোগ্য মনে করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর পিএসের দায়িত্ব পালন করে নিজেকে ধন্য মনে করছি। এ জন্য আমি পরওয়ারদেগারের কাছে শোকর গুজার করি।

যুগান্তর: সরকারের অন্যতম সাফল্য ‘কওমি মাদ্রাসা সনদের স্বীকৃতি’-এ সম্পর্কে আপনার মতামত কী?

সাইফুজ্জামান : এ দেশের মানুষ আলেম-ওলামাদের ভালোবাসেন। আলেমদের বড় একটা অংশ কওমি পরিবার থেকে উঠে আসা। মসজিদ-মাদ্রাসার ইমাম খতিব শিক্ষক মুয়াজ্জিনদের মধ্যে কওমি পরিবারের সন্তান বেশি। সনদ না থাকায় কওমি পরিবারগুলো অনেকটা পিছিয়ে ছিল। প্রধানমন্ত্রীর যুগান্তকারী সিদ্ধান্তের আলোকে কওমি মাদ্রাসা সনদ স্বীকৃতি পেয়েছে। আশা করি, কওমি পরিবারকে এখন আর পেছনে তাকাতে হবে না।

যুগান্তর : কওমি আলেমদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে গণসংবর্ধনা দেয়া হবে। বিষয়টি কীভাবে দেখছেন?

সাইফুজ্জামান : এটি অবশ্যই প্রশংসনীয় উদ্যোগ। প্রধানমন্ত্রী আলেমদের জন্য করেছেন। আলেমরা প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেবেন, ধন্যবাদ জানাবেন- এটি বড়ই সুখকর কথা।

যুগান্তর : এ স্বীকৃতির মাধ্যমে কি কওমি শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরির সুযোগ পাবেন?

সাইফুজ্জামান : অবশ্যই পাবেন। তবে এর জন্য পর্যায়ক্রমে এগোতে হবে। আস্তে আস্তে কওমি পড়ুয়ারা সব ধরনের চ্যালেঞ্জের মোকাবেলা করে নিজেদের যোগ্য হিসেবে প্রমাণ করবেন। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের চেয়ে কওমি শিক্ষার্থীরা বেশি পরিশ্রম করে এটা সবাই জানেন। তাই কওমি সন্তানদের কেউ পিছিয়ে রাখতে পারবে না।

যুগান্তর : ধর্মীয় সেক্টরে সরকারের সাফল্যগাথা সম্পর্কে বলুন।

সাইফুজ্জামান : সরকারের সাফল্যগাথা তো ব্যাপক। উল্লেখযোগ্য সাফল্য হল- ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, প্রত্যেক উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণ, প্রতিটি উপজেলায় ২টি করে দারুল আরকাম এবতেদায়ি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা, কওমি সনদের স্বীকৃতি প্রদানসহ আরও অনেক সাফল্যগাথা রয়েছে।

প্রশ্ন : যুগান্তরকে সময় দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।

সাইফুজ্জামান : ধন্যবাদ আপনাকেও।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter