বজ্রপাত : বৈরীপ্রকৃতির রূপ

  যুগান্তর ডেস্ক ২৫ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বজ্রপাত : বৈরীপ্রকৃতির রূপ

প্রকৃতির সবচেয়ে সুন্দর দৃশ্যগুলোর মধ্যে বজ্রপাত একটি। পাশাপাশি সবচেয়ে ভয়ঙ্কর প্রাকৃতিক ঘটনাগুলোর মধ্যেও এটি সেরা। পৃথিবীর সবদেশেই কম-বেশি বজ্রপাত দৃশ্যমান। তবে বাংলাদেশে তুলনামূলক বেশি। ভৌগোলিক অবস্থানই এর মূল কারণ।

বাংলাদেশের একদিকে বঙ্গোপসাগর, অপরদিকে ভারত মহাসাগর। সেখান থেকে বয়ে আসে গরম ও আর্দ্র বাতাস। আর হিমালয় থেকে বয়ে আসে ঠাণ্ডা বাতাস। এ ধরনের অস্থিতিশীল বাতাস থেকে তৈরি হয় বজ্রপাতের জন্য অনুকূল পরিবেশ।

প্রচণ্ড গরমে পুঞ্জীভূত জলীয় বাষ্প তৈরি করে বজ্রমেঘ। সাধারণত মার্চ থেকে জুন এবং অক্টোবর থেকে নভেম্বরের মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বজ্রঝড় হয়। বর্তমানে এটি ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ হিসেবে দেখা দিয়েছে।

সম্প্রতি বাংলাদেশে প্রাকৃতিক দুর্যোগে যত মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে তার একটি বড় অংশের মৃত্যুর জন্য দায়ী বজ্রপাত। বেশি শিকার হচ্ছে খোলা মাঠে কাজ করা কৃষক ও জেলেরা। বিশেষ করে হাওরাঞ্চলে খোলা জায়গায় মানুষ কাজ করার কারণে সেখানে হতাহতের ঘটনা তুলনামূলক বেশি ঘটছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আবহাওয়ার ধরনে পরিবর্তন আসা, আকাশে কালো মেঘের ঘনত্ব বেড়ে যাওয়া, লম্বা গাছের সংখ্যা কমে যাওয়া, যত্রতত্র মোবাইল ফোনের টাওয়ার বসানো এবং তাপমাত্রা বৃদ্ধি বজ্রপাতের ক্ষেত্রে অন্যতম কারণ।

কৃষিজমির মধ্যে অতীতে তাল বা খেজুরগাছ লাগিয়ে বজ্রপাতের হাত থেকে রক্ষার উদ্যোগ থাকলেও বর্তমানে সেসব গাছও কমে আসছে। বাংলাদেশের হাওর ও বিল অঞ্চল আর উত্তরের চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং দিনাজপুর অঞ্চলে বজ্রপাতে প্রাণহানির ঘটনা ঘটে সবচেয়ে বেশি।

বজ্রপাতের সময় উঁচু গাছপালা বা বিদ্যুতের খুঁটিতে বিদ্যুৎস্পর্শের আশঙ্কা বেশি থাকে। এ সময় গাছ বা খুঁটির কাছাকাছি থাকা নিরাপদ নয়। পাশাপাশি, ঘন ঘন বজ্রপাতের সময় খোলা বা উঁচু জায়গায় না থেকে দালানের নিচে আশ্রয় নেয়া উচিত।

ধাতব কল, সিঁড়ির রেলিং, পাইপ, জানালার গ্রিলসহ যে কোনো ধাতব পদার্থের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করতে হবে। মোবাইল ও ল্যান্ডফোন ব্যবহার থেকেও বিরত থাকার পাশাপাশি বৈদ্যুতিক সংযোগযুক্ত সব ধরনের যন্ত্রপাতি এড়িয়ে চলতে হবে। টিভি, ফ্রিজ ইত্যাদির প্লাগ খুলে রাখতে পারলে আরও ভালো হয়। জলাশয় থেকেও এ সময় সাবধান থাকা উচিত।

বজ্রপাত ঠেকানোর তাৎক্ষণিক কোনো প্রক্রিয়া না থাকলেও দীর্ঘমেয়াদি উদ্যোগ গ্রহণ করা যায়। বজ্রপাতের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে তৃণমূল পর্যায়ে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে করণীয় বিষয় পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্তির পাশাপাশি মিডিয়াতেও সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে প্রচার জরুরি। আর বেশি করে তাল খেজুরের মতো উচ্চতাসম্পন্ন বৃক্ষ রোপণের ক্ষেত্রে জোর দিতে হবে।

প্রকৃতি ও জীবন ডেস্ক

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×