ভেষজ গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ আকন্দ

  মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী ২২ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশের প্রায় সব জায়গায় আকন্দ গাছ জন্মায়। এশিয়ার উষ্ণ অঞ্চল এদের আদি নিবাস। তবে আফ্রিকাতেও এ গাছ পাওয়া যায়। আকন্দ মাঝারি ধরনের গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ। ইংরেজি নাম Crown Flower. উদ্ভিদ তাত্ত্বিক নাম Calotropis gigantea. আকন্দ গাছ উচ্চতায় গড়ে ২ থেকে ৮ মিটার হয়ে থাকে। কাণ্ড শক্ত, কচি ডাল সাদাটে রঙের ও লোমশযুক্ত। পাতার আকার-আকৃতি ৪ থেকে ৮ ইঞ্চি হয়ে থাকে। পাতার শিরা-উপশিরা স্পষ্ট, উপরিভাগ মসৃণ এবং পাতার নিচের অংশে তুলোর মতো সাদাটে লোমশযুক্ত থাকে। গাছের পাতা, পাতার বোঁটা ও শাখা-প্রশাখা ভাঙলে দুধের মতো সাদা আঠা বা কষ বের হয়। শ্বেত আকন্দ ও লাল আকন্দ নামে দু’ধরনের আকন্দ আমাদের দেশে জন্মাতে দেখা যায়। শ্বেত আকন্দের ফুলের রং হয় সাদা এবং লাল আকন্দের ফুলের রং হয় বেগুনি। আকন্দ গাছে প্রায় বছরজুড়ে ফুল ফুটতে দেখা যায়। তবে গ্রীষ্ম ও বর্ষাকাল ফুল ফোটার প্রকৃত সময়। অন্যান্য সময় কম ফুল ফোটে। ফুলের পাপড়ি পাঁচটি, মাঝে পাঁচটি খাঁজে বিভক্ত পুংদণ্ড ও গর্ভমুণ্ড অবস্থিত। প্রায় প্রতি শাখা-প্রশাখার অগ্রভাগের বোঁটায় থোকা থোকা ফুল ফোটে এবং পাতার কক্ষ থেকে ফুলের বোঁটা বের হয়। ফুল শেষে গাছে একাধিক ফল ধরে। ফলের রং সবুজ, অগ্রভাগ বাঁকা। ফল দেখতে অনেকটা ছোট পাখির মতো। ফলের ভেতর তুলা হয় এবং এর ভেতর কালচে রঙের বীজ থাকে। ফল পাকার মৌসুম জুলাই-আগস্ট মাস। বীজ, সাকার ও ডাল কাটিংয়ের মাধ্যমে আকন্দের বংশবিস্তার করা যায়। বহুগুণে গুণান্বিত আকন্দ গাছের ফুল, পাতা, আঠা, শিকড়, কাণ্ড বিভিন্ন চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। আকন্দ চুলের রোগ সারাতে, ব্যথা কমাতে, হাঁপানি ও বিষনাশে বিশেষ কার্যকরী। এছাড়া দাঁদ, মেছতার দাগ, কৃমি রোগ, অম্লনাশক, হজমশক্তি বৃদ্ধিতে, পেট ব্যথা দূর করতে ব্যবহৃত হয় আকন্দ গাছ। আমাদের দেশে রাস্তার ধার, বাঁধের ধার, পতিত জমি, পুকুর পাড়, পারিবারিক বাগান ও ভেষজ বাগানে আকন্দ চোখে পড়ে। এছাড়া ফসলি জমির আইলে জীবন্ত বেড়া হিসেবে অনেক চাষি আকন্দ গাছ রোপণ করে থাকেন। বীজ বা চারা রোপণের ২-৩ বছর পর থেকে গাছের পাতা, ফুল, শিকড়, কাণ্ড, আঠা ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করার উপযুক্ত হয়। সার্বিক বিবেচনায় আকন্দ গাছ মানুষ, প্রকৃতি ও পরিবেশের জন্য এক অনন্য উপকারী ভেষজ উদ্ভিদ।

লেখক : প্রকৃতিবিষয়ক লেখক ও কৃষিবিদ

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×