উড়তে না পারা ছোট পাখি
jugantor
উড়তে না পারা ছোট পাখি

  প্রকৃতি ও জীবন ডেস্ক  

২২ জুন ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মুক্ত বিহঙ্গ। কথাটা বেশিরভাগ পাখির ক্ষেত্রে সত্য হলেও কোনো কোনো পাখির ক্ষেত্রে নয়। যেসব পাখি আকাশে ডানা মেলে দূরের পথ পাড়ি দেয় এদের ক্ষেত্রে সেটা কিন্তু মানায় না। উড়তে না পারা এসব পাখির মধ্যে অন্যতম উট, ইমু, ক্যাসোয়ারীও। বড় আকারের হওয়ায় এরা বেশ পরিচিত। তবে উড়তে না পারা পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট আকারের পাখি হল- Inaccessible Island rail. দেখতে অনেকটা মুরগির বাচ্চার মতো। এদের বৈজ্ঞানিক নাম Atlantisia rogersi. গড় ওজন ৩৭ গ্রাম। দৈর্ঘ্য ৫.১ থেকে ৬.০ ইঞ্চি। এদের পিঠ ও ডানা গাঢ় বাদামি। পেটের দিকে ধূসর রঙের পালকে আবৃত। ঠোঁট খাটো, চোখ লাল। এদের আটলান্টিক মহাসাগরের দক্ষিণে অবস্থিত Inaccessible Island-এ পাওয়া যায়। দ্বীপের নামেই এ পাখির নামকরণ করা হয়েছে। অধিকাংশ সময় ঝোপঝাড় ও জলাধারে বিচরণ করলেও এদের দ্বীপের সব জায়গাতেই পাওয়া যায়। এরা বিভিন্ন ধরনের কীটপতঙ্গ, এমনকি উদ্ভিদের বীজ, ফল ও পাতা খেয়ে জীবনধারণ করে। এই পাখিগুলোকে দ্বীপের বাইরে অন্য কোথাও পাওয়া যায় না।

উড়তে না পারা ছোট পাখি

 প্রকৃতি ও জীবন ডেস্ক 
২২ জুন ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মুক্ত বিহঙ্গ। কথাটা বেশিরভাগ পাখির ক্ষেত্রে সত্য হলেও কোনো কোনো পাখির ক্ষেত্রে নয়। যেসব পাখি আকাশে ডানা মেলে দূরের পথ পাড়ি দেয় এদের ক্ষেত্রে সেটা কিন্তু মানায় না। উড়তে না পারা এসব পাখির মধ্যে অন্যতম উট, ইমু, ক্যাসোয়ারীও। বড় আকারের হওয়ায় এরা বেশ পরিচিত। তবে উড়তে না পারা পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট আকারের পাখি হল- Inaccessible Island rail. দেখতে অনেকটা মুরগির বাচ্চার মতো। এদের বৈজ্ঞানিক নাম Atlantisia rogersi. গড় ওজন ৩৭ গ্রাম। দৈর্ঘ্য ৫.১ থেকে ৬.০ ইঞ্চি। এদের পিঠ ও ডানা গাঢ় বাদামি। পেটের দিকে ধূসর রঙের পালকে আবৃত। ঠোঁট খাটো, চোখ লাল। এদের আটলান্টিক মহাসাগরের দক্ষিণে অবস্থিত Inaccessible Island-এ পাওয়া যায়। দ্বীপের নামেই এ পাখির নামকরণ করা হয়েছে। অধিকাংশ সময় ঝোপঝাড় ও জলাধারে বিচরণ করলেও এদের দ্বীপের সব জায়গাতেই পাওয়া যায়। এরা বিভিন্ন ধরনের কীটপতঙ্গ, এমনকি উদ্ভিদের বীজ, ফল ও পাতা খেয়ে জীবনধারণ করে। এই পাখিগুলোকে দ্বীপের বাইরে অন্য কোথাও পাওয়া যায় না।