দুর্লভ লাল মাছরাঙা

প্রকাশ : ১৮ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  ড. আনম আমিনুর রহমান

সুন্দরবনের কোকিলমনির পশুর নদীতে নোঙর করা ছোট্ট লঞ্চ থেকে নেমে ডিঙিতে করে সরু ক্ষেতখেরাখালে ঢুকলাম। দু’পাড়ে কেওড়াসহ বিভিন্ন প্রজাতির লোনা জলের গাছ। ডিঙির মাঝি ও লঞ্চের লোকজন খালটিকে আগুন জ্বলা খাল বলে পরিচয় করিয়ে দিল। খালে ঢোকার মুখেই কালাটুপি ও সাদাবুক মাছরাঙার দেখা পেলাম। এরপর ছোট নীল মাছরাঙা, সবুজাভ মাছরাঙা ও থোরমোচা মাছরাঙারও দেখা মিলল। ডিঙি তরতর করে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। দলের একজন ওর ক্যামেরার ভিউ ফাইন্ডারে সদ্য তোলা একটি পাখির ছবি আমাকে দেখাল। ছবি দেখেই বলে উঠলাম ‘আরে এ তো মেঘ না চাইতেই জল।’ দ্রুত মাঝিকে ডিঙি ঘোরাতে বললাম। খানিকটা পেছনে ফিরে কেওড়া গাছের ডালে শিকার করা কাঁকড়া মুখে ওকে স্থির হয়ে বসে থাকতে দেখলাম। আমরা প্রায় দশ মিনিট ধরে ওর ছবি তুললাম। দুর্লভ যে মাছরাঙার কথা বললাম ও নোনা জলবনের লাল মাছরাঙা। ইংরেজি নাম Ruddy Kingfisher. Alcedinidae পরিবারের পাখিটির বৈজ্ঞানিক নাম Halcyon coromanda.

লাল মাছরাঙার আকার মাঝারি, দৈর্ঘ্যে প্রায় ২৬ সেন্টিমিটার। গড় ওজন ৭৭ গ্রাম। এক নজরে দেখতে টকটকে লালচে পাখি। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির মাথা ও পিঠের রং গাঢ় লাল। গলা, বুক ও পেটের রং হালকা লাল। কোমড় হালকা নীল। ঠোঁটের গোড়া কালচে লাল ও অগ্রভাগ ফিকে লাল। চোখ কালচে-বাদামি। পা ও পায়ের পাতা প্রবাল-লাল। স্ত্রী ও পুরুষ দেখতে একই রকম হলেও পুরুষ মাছরাঙা বেশি উজ্জ্বল। অল্পবয়স্ক পাখির দেহের ওপরটা কালচে-বাদামি। দেহের নিচের অংশ লাল ও তাতে কালচে ডোরা দেখা যায়। কোমড় ও লেজের ওপরের ঢাকনি গাঢ় নীল। ঠোঁট কালচে ও অগ্রভাগ কমলা-লাল।

লাল মাছরাঙা সুন্দরবনের জলাশয় বা খালের আশপাশে বাস করে। তবে সূত্রমতে কুয়াকাটার টেংরাগিরি সংরক্ষিত নোনা জলের বনেও এদের দেখা যায়। সচরাচর একাকী বা জোড়ায় থাকে। পানির ওপরে ও কাদায় শিকার খোঁজে। মাছ, কাঁকড়া, ব্যাঙ, পোকামাকড় পছন্দ করে। এরা দ্রুত ডানা মেলে সোজাসুজি ওড়ে। তীব্র ও কাঁপাস্বরে ‘ট্রু... রু... রু... রু... রু... রু... রু...’ শব্দে ডাকে এবং ‘কুয়িররর... র... র... র... র...’ সুরে গান গায়।

মার্চ-এপ্রিল লাল মাছরাঙার প্রজননকাল। এসময় খালের খাড়া পাড় বা গাছের ডালে ৪৫ থেকে ১০০ সেন্টিমিটার লম্বা গর্ত খুঁড়ে বাসা বানায়। এরপর স্ত্রী মাছরাঙা ৪ থেকে ৫টি ডিম পাড়ে। ডিম ফোটে ১৭ থেকে ২২ দিনে।

লেখক : বন্যপ্রাণী জীববিজ্ঞানী ও প্রাণিচিকিৎসা বিশেষজ্ঞ, বন্যপ্রাণী প্রজনন ও সংরক্ষণ কেন্দ্র, বশেমুরকৃবি, সালনা, গাজীপুর