পোস্টার-লিফলেট ব্যানার-ফেস্টুন

  গাজী আবদুল মান্নান ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তফসিল ঘোষণার মধ্যে দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। সে জন্য প্রার্থী বা মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও প্রচারণার কার্যক্রম শুরু করেছেন। আর এ প্রচার কার্যক্রমের অন্যতম মাধ্যম হিসেবে সবাই পোস্টার, লিফলেট, ব্যানার বা ফেস্টুন সাঁটছেন সুবিধা মতো জায়গায়। তাই ছাপাখানা ও ব্যানার-ফেস্টুন তৈরির প্রতিষ্ঠানগুলোতে ব্যস্ততা বাড়ছে সংশ্লিষ্ট কর্মীদের। এমনটি দেখা গেল দেশের অন্যতম ছাপাখানার এলাকা বা বাণিজ্যিক কেন্দ্র বলে খ্যাত ঢাকার ফকিরাপুল। যেহেতু এখনও প্রার্থী বা মার্কা চূড়ান্ত হয়নি, তাই আপাতত ছাপাখানাগুলোতে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের পোস্টার ছাপার কাজই চলছে। এমনটাই দেখা মিলল ফকিরাপুলের কয়েকটি ছাপাখানায় গিয়ে।

ফকিরাপুলের বীর মুক্তিযোদ্ধা আবসুদ সালাম সড়কের এসএস প্রিন্টিংয়ের কর্ণধার মো. এ কে ফজলুল হক সুমন বলেন, সারা বছরই আমরা প্রিন্টিংয়ের কাজ করে থাকি। তবে বিভিন্ন উৎসব-পার্বণে কাজের চাহিদা থাকে বেশি। আর আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে কাজের চাহিদা আরও অনেক গুণ বেড়েছে। অবশ্য প্রার্থী বা মার্কা চূড়ান্ত না হওয়াতে এখনও কেবল শুভেচ্ছা পোস্টারই বেশি ছাপা হচ্ছে। ডিজাইন থেকে শুরু করে ছাপার সব কাজই আমরা করে থাকি। সাধারণত একটি পোস্টার ডিজাইন করতে খরচ পরে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা। ১ হাজার টি ডিমাই সাইজ (১৮x২৩ ইঞ্চি) সাদাকালো পোস্টার কাগজসহ ছাপতে খরচ পরবে ৩ হাজার থেকে ৩ হাজার ২০০ টাকা। আর একই কাগজে ২ হাজার লিফলেট করতেও খরচ পরবে একই।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে পোস্টার ছাপানোর জন্য কাগজের প্রতিষ্ঠানগুলোও বেশ জমজমাট। ফকিরাপুলের কাগজের ব্যাবসায়ী এস এ পেপারের কর্ণধার মো. সেলিম বলেন, দেশি অপসেট কাগজের মধ্যে বেশি চলছে বসুন্ধরা, পারটেক্স, সোনালিসহ বিভিন্ন কাগজ। এ সব কাগজেই পোস্টার ছাপার কাজ বেশি হচ্ছে। সারা বছরের তুলনায় আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে এখন কাগজের চাহিদা বাড়ছে।

কাগজের পোস্টারের পাশাপাশি এখন অনেকেই প্লাস্টিক জাতীয় পিভিসি কাপড়ের ব্যানার বা ফেস্টুন দিয়ে প্রচার কার্যক্রম করছেন। এটা ডিজিটাল মেশিনে প্রিন্ট হয় বলে দেখতে যেমন সুন্দর, তেমনি টেকসই।

পল্টনের ওয়ান সাইন লিমিটেডের ডিজাইনার মো. পলাশ আহমেদ বলেন, বাণিজ্যিক প্রচার-কার্যক্রমের জন্য সারা বছরই আমাদের কাজ থাকে। এছাড়া সারা বছরই রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা উৎসব-পার্বণসহ বিভিন্ন উপলক্ষে ব্যানার বা ফেস্টুন তৈরি করান। তবে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে কাজের চাপ বাড়ছে। বিভিন্ন মানের পিভিসি হয়ে থাকে। প্রকার ভেদে এসব পিভিসি দিয়ে ফেস্টুন বা ব্যানার তৈরির খরচ প্রতি স্কয়ার ফিট ১২ থেকে ২০ টাকা। এর মধ্যে একটা পিভিসি আছে পেছনের পাশ সাদা থাকে, আরেকটা আছে পেছনের পাশ কালো থাকে। পেছনের পাশ কালো যেটি, সেটির খরচ একটু বেশি পরে। আর ফেস্টুনের সাইজ সাধারণত ৩ বাই ৪; ৩ বাই ৫; ৪ বাই ৬ ফুট হয়ে থাকে। তবে ব্যানার-ফেস্টুন যে যেমন ইচ্ছা সাইজের করতে পারেন। ফেস্টুন কাঠের ফ্রেমে যেমন করা যায়, তেমনি প্লাস্টিকের পাইপ দিয়েও করা য়ায়। কাঠের ফ্রেম আর প্লাস্টিকের পাইপের দাম আলাদা দিতে হয়। কাঠ ও পাইপের ধরণ ভেদে দাম আলাদা হয়ে থাকে।

ফকিরাপুল ছাড়াও পুরানা পল্টন এলাকায় অনেক ছাপাখানা আছে। এছাড়া বাংলা বাজারেও পাবেন অনেক ছাপাখানা।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×