পোশাকের রঙে বিজয়ের উৎসব

  লাইফস্টাইল ডেস্ক ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পোশাকের রঙে বিজয়ের উৎসব
পোশাকের রঙে বিজয়ের উৎসব । ছবি সংগৃহীত

দেশের ফ্যাশন হাউসগুলো পোশাক ডিজাইনে বাংলাদেশের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসসহ নানা বিষয় পোশাকে তুলে ধরে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করে আসছে। ডিজাইনাররা বিশেষ দিন ও উৎসবগুলোকে সর্বদাই রাঙিয়ে তোলেন সময়োপযোগী পোশাকের মাধ্যমে। বিজয় দিবস, এ দিনটি কষ্টের, আনন্দের এবং অর্জনের। এ দিনটিকে উদ্যাপন করি শহীদদের স্মরণ করে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দিয়ে।

তাই এ দিনটিকে ঘিরে ফ্যাশন হাউসগুলোর আয়োজন থাকে ব্যাপক। ফ্যাশন হাউসগুলো নতুন নতুন পোশাক ডিজাইন করে এ দিনটিকে অন্যরকম একটি মাত্রা দিয়ে থাকে। এ আয়োজনকে সবার সামনে তুলে ধরতে ফ্যাশন উদ্যোগ (Fashion Entrepreneurs Association of Bangladesh)

লাল-সবুজের পোশাক নিয়ে একটি বিশেষ আয়োজন করেছে। এবারের আয়োজনে পোশাকে লাল-সবুজ রং প্রাধান্য পেয়েছে। পোশাক ডিজাইনে তুলে ধরা হয়েছে বিজয় দিবসের চেতনা।

অঞ্জন’স

অঞ্জন’স সব সময়ই পোশাক ডিজাইন ও চিন্তাভাবনায় দেশীয় ঐতিহ্য ও গর্ব করার মতো বিষয়গুলোকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয় দিবস আমাদের জীবনে একটি বিশেষ গর্ব করার মতো বিষয়। তাই মহান বিজয় দিবসকে কেন্দ্র করে প্রতিবারের মতো অঞ্জন’স এবারও বিজয়ের পোশাক নিয়ে বিশেষ আয়োজন করেছে। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক ডাকটিকিট, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক কবিতা, ছবি, আমাদের জাতীয় ফুল শাপলা ও স্মৃতিসৌধ এবারের আয়োজনের অনুপ্রেরণা হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। আমাদের পতাকার রঙ লাল ও সবুজ রঙ পোশাক ডিজাইনে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে। এবারের আয়োজনে শাড়ি, পাঞ্জাবি, মেয়েদের টপস, সালোয়ার-কামিজ, টি-শার্ট পাওয়া যাবে। এছাড়া শিশু-কিশোরদের জন্য থাকছে পাঞ্জাবি, শাড়ি, টি-শার্ট, ফ্রক ও সালোয়ার-কামিজ। মহান বিজয়ের এ দিনটিকে সুন্দরভাবে উদযাপন করার জন্য পোশাকগুলোর মূল্যও তুলনামূলকভাবে কম রাখা হয়েছে।

মুনমুন’স

১৬ ডিসেম্বর আমাদের মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মুনমুন’স এবার নিয়ে এসেছে মেয়েদের কুর্তি বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে। এছাড়া মুনমুন’স-এ অর্ডার দিয়েও ডিজাইনার কুর্তি, পাঞ্জাবি, শাড়ি করিয়ে নেয়া যাবে। তবে এ সুযোগ ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত রাখা হয়েছে। ঠিকানা : বেইলি টাওয়ার শপিং কমপ্লেক্স (নিচতলা), নারায়ণগঞ্জ।

নন্দন কুটির

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে অবধারিতভাবে ফিরে আসে লাল-সবুজ রং। ডিসেম্বর মাসে আমাদের প্রিয় এ বাংলাদেশে নানা কিছুতে লাল-সবুজ রং জীবন্ত হয়ে ওঠে যেন! আর পোশাকে তার প্রতিফলন তীব্রভাবে দেখতে পাই আমরা। তাইতো বিজয় দিবসের চেতনার সঙ্গে মিল রেখে দেশীয় উপকরণ দিয়ে নন্দন কুটির লাল-সবুজ পোশাক তৈরি করে থাকে প্রতি বছর এ বিজয়ের মাসে। শুধু লাল-সবুজ রঙই নয়, পোশাকের নানা দেশীয় উপাদান ব্যবহার করে বিজয়ের পোশাক তৈরি করে নন্দন কুটির। বরাবরের মতো এবারও নন্দন কুটিরের বিজয়ের পোশাকগুলো পরিবেশবান্ধব।

অন্যরকম

প্রতিটি উৎসব ও বিশেষ দিনকে কেন্দ্র করে ‘অন্যরকম’ সব সময়ই বিশেষ আয়োজন করে থাকে। এবারের বিজয় দিবসকে সামনে রেখে নতুন ডিজাইনে সবুজের বুকে লাল শাড়ি, ফতুয়া, সালোয়ার-কামিজ, পাঞ্জাবি ও লাল-সবুজ চাদর নিয়ে বিজয়ের সঙ্গে সঙ্গে শীতকে সামনে রেখে ‘অন্যরকম’।

মেঘ

নিয়মিত আয়োজনে থাকছে লাল আর সবুজকে ঘিরে নতুন নতুন সব ডিজাইন। একই ডিজাইনে পাওয়া যাবে পাঞ্জাবি-কামিজ-ফতুয়া এবং টি-শার্ট। আমরা আশা করছি, লাল-সবুজের রঙে ‘মেঘ’-এর সঙ্গে আপনি ছিলেন, আছেন

এবং সব সময় থাকবেন।

নিপুণ

শুরু থেকে নিপুণ আজ অবধি দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে প্রত্যেকটা ইভেন্টকে সামনে রেখে নতুন নতুন ডিজাইনের পোশাকে আউটলেটগুলো সমৃদ্ধ করে। এবারও বিজয় দিবসকে সামনে রেখে লাল ও সবুজ রংকে প্রাধান্য দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ফতুয়া, শার্ট, পাঞ্জাবি, শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, কুর্তিসহ বিভিন্ন পোশাক। মোটিভের ক্ষেত্রে বেছে নেয়া হয়েছে ক্যালিগ্রাফি এবং ফ্লোরাল মোটিভ। মিডিয়া হিসেবে স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক প্রিন্ট, হাতের কাজ ব্যবহার করা হয়েছে।

রঙ বাংলাদেশ

স্বাধীনতার গান ও বাংলাদেশের পতাকার বিষয়কে এবার ধরা হয়েছে কাপড়ের ক্যানভাসে। মূল রং হিসেবে বেছে নেয়া হয়েছে লাল ও পতাকার সবুজ আর সহকারী রং হিসেবে আছে সবুজের সেড, সাদা, টিয়া, গোল্ডেন হলুদ। কেবল বড়দের নয়, প্রতিটি উপলক্ষে ছোটদের পোশাককে সমান গুরুত্ব দিয়ে থাকে বলেই বাচ্চাদের সংগ্রহও হয় বিশেষভাবে আকর্ষণীয়। পোশাকের নকশাকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে নানা ভ্যালু অ্যাডেড মিডিয়ার ব্যবহারে। এর মধ্যে রয়েছে স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক প্রিন্ট, এম্ব্রয়ডারি, হাতের কাজ, গ্লাসওয়ার্ক ইত্যাদি।

মিয়া বিবি

প্রকৃতির লাল-সবুজ রং নিয়ে এবারের বিজয়ের সবার জন্য মিয়া বিবির পক্ষ থেকে এনডি, সুতি ও হাফ সিল্ক শাড়ির ওপর সুতার কাজ ও এপ্লিক এম্ব্রয়ডারি ও সুতার জুল কাজ করা। পাঞ্জাবি, ফতুয়া ও সালোয়ার-কামিজে বিজয়ের ছোঁয়া।

সাদাকালো

ভাস্কর সৈয়দ আবদুল্লাহ খালিদের ভাস্কর্য ‘অপরাজেয় বাংলার’ এবং মুক্তিযুদ্ধের উজ্জীবনী গান ‘একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি’ বিষয় দুটির নান্দনিক সংমিশ্রণে সাদাকালো এবারের বিজয় দিবস সাজিয়েছে সাদা আর কালোতে। স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক প্রিন্টের মাধ্যম ব্যবহার করে তৈরি হয়েছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, মেয়েদের কুর্তা আর পাঞ্জাবি। www.facebook.com/sadakalobangladesh

বিয়ন্ড সাদাকালো

মুক্তিযুদ্ধকালীন বহুল প্রচারিত গান ‘একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি’ এবং ভাস্কর সৈয়দ আবদুল্লাহ খালিদের ভাস্কর্য ‘অপরাজেয় বাংলা’- এ দুই বিষয়কে উপজীব্য করে বিজয় দিবস উপলক্ষে বিয়ন্ড-সাদাকালো এবার আয়োজন করেছে লাল-সবুজে বিয়ন্ড-সাদাকালো। তৈরি হয়েছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, পাঞ্জাবি, মেয়েদের কুর্তা ও টপস। স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক, এম্ব্রয়ডারি যার কাজের প্রধান মাধ্যম হয়েছে। সব পোশাক পাওয়া যাবে বসুন্ধরা দেশীদশ চত্বর, গাজীপুর, কুমিল্লা এবং অনলাইনে।

মডেল : বারিশ, মৌসুমী, তর্ষা, তাসনিয়া, নিধি ফালোয়া, জিতু, সিন, নাফিস, মুনিয়া ফটোগ্রাফার : আনোয়ার হোসেন এনাম কোরিওগ্রাফার : এডলফ খান

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×