টি-শার্টে স্বাধীন বাংলা

আরামদায়ক পোশাক হিসেবে টি-শার্টের জনপ্রিয়তা সব সময়ের। বিভিন্ন দিবসভিত্তিক নকশা করা টি-শার্ট এখন তরুণ-তরুণীর কাছে বেশ জনপ্রিয়। তারই ধারাবাহিকতায় স্বাধীনতা দিবসকে কেন্দ্র করে নকশা করা হয়েছে নতুন টি-শার্টে। জানাচ্ছেন-

  আফরোজা আক্তার ১৯ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হালকা কাপড়ের আরামদায়ক টি-শার্ট বা গোল গলার গেঞ্জি। সম্ভবত বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি পরিধেয় পোশাকও এটি। কিশোর থেকে শুরু করে তরুণ, যুবক, মধ্য বয়স সব সময়ের স্বস্তির পোশাক হিসেবে টি-শার্টের সমাদর যুগে যুগে। হোক তা প্রচণ্ড গরম কিংবা হিমেল শীত। টি-শার্ট সরল নকশা ও আরামদায়ক ফেব্রিকের জন্য সবার প্রিয়। কাপড়ের ভিন্নতা দিয়ে টি-শার্টে এখন ভিন্নতা আনছে অনেক ব্র্যান্ড। কটন এবং নিট কাপড়ের টি-শার্ট সব সময়ই আরামদায়ক। আর জিন্স বা গ্যাবার্ডিন প্যান্টের সঙ্গে সহজে মানিয়ে যায় বলেও এটা তরুণদের বেশ পছন্দের।

টি-শার্টে আঁকা নকশা বা বার্তায় ফুঠে ওঠে পরিধানকারীর রুচি, ফ্যাশনবোধ কিংবা সাংস্কৃতিক পরিচয়। টি-শার্ট আবার প্রচারণা ও প্রতিবাদের মাধ্যম হিসেবেও বেশ জনপ্রিয়। রাস্তায় বের হলে দেখা যায়, মানুষের গায়ের টি-শার্টগুলো নানা কথা বলছে। আর বিশেষ বিষয়কে বা দিবসকে ফুটিয়ে তুলতেও সব থেকে ভালো ক্যানভাস হিসেবে কাজ করে টি-শার্ট। সেজন্য স্বাধীনতা দিবসকে ঘিরে দেশীয় বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসগুলো এনেছে নানা নকশার টি-শার্ট। লাল-সবুজ রঙের এসব টি-শার্টের নকশায় উঠে এসেছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও গৌরবের কথা। উঠে এসেছে প্রিয় দেশের পতাকা, রঙ, কবিতার লাইন, গানের কলি। স্বাধীনতার মাসে পোশাক হিসেবে তাই টি-শার্টের চাহিদা বাড়ছে। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে কিছু কিছু ফ্যাশন হাউসের টি-শার্টের নকশায় দেশের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, মুক্তিযুদ্ধ, দেশের বীর সন্তানদের ছবি, তাদের বীরত্বগাঁথা, দেশের ইতিহাস, গুণী শিল্পীর চিত্রকর্মসহ দেশ এবং স্বাধীনতার নানা মোটিফ স্থান পেয়েছে। বিষয় হিসেবে এসেছে সাভার জাতীয় স্মৃতি সৌধ, ‘সংশপ্তক’ ও ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ এর পোস্টারও। কোনো কোনো টি-শার্টে রয়েছে খবরের কাগজ থেকে নেয়া যুদ্ধের খবরের ছাপ। কোনোটায় লাল-সবুজ পালতোলা নৌকা।

আজিজ সুপার মার্কেটে কেনাকাটা করতে এসেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে নিজের ও ছোট ভাইয়ের জন্য কিনেছেন স্বাধীনতায় উজ্জীবিত বাণী লেখা দুটি টি-শার্ট।

তিনি বলেন, ‘প্রতিটি উপলক্ষের একটি নিজস্ব ভাব থাকে। তার সঙ্গে মিলিয়ে পোশাক পরলে আরও বেশি একাত্ম হওয়া যায়। মুক্তিযুদ্ধ আমাদের অংহকার। তাই স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে দেশাত্মবোধক একটি পোশাক অঙ্গে জড়াতে পারলে বেশ ভালো লাগে। আর মুক্তিযুদ্ধের ক্যানভাস ফুটিয়ে তুলতে টি-শার্টের চেয়ে আর ভালো কিবা হতে পারে! কারণ টি-শার্ট আরামদায়ক আর দাম কম হওয়ায় চট করে কিনেও ফেলা যায়।’

বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস ঘুরে দেখা যায়, স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে নিত্য উপহারের টি-শার্টে উপস্থাপিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের প্রসঙ্গ। প্রতি বছরের মতো ফ্যাশন হাউস মেঘে মুক্তিযুদ্ধকে প্রাধান্য দিয়ে তৈরি করা হয়েছে টি-শার্ট। লাল-সবুজ রঙের এসব টি-শার্টের নকশায় বরাবরের মতোই রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবগাঁথা বিভিন্ন বাণী, মুক্তিযোদ্ধাদের ছবি, দেশাত্মবোধক নানা চিত্র। বড়দের পাশাপাশি মেঘ ছোটদের প্রাধান্য দিয়েও তৈরি করেছে টি-শার্ট। স্বাধীনতা দিবসকে সামনে রেখে ফ্যাশন হাউস সূইসুতো টি-শার্টে তুলে ধরা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের মোটিফ। কাপড়ের মান ভালো হওয়ায় পরতেও আরামদায়ক।

আজিজ সুপার মার্কেটের অনেক ফ্যাশন হাউসে পাওয়া যাচ্ছে লাল-সবুজ টি-শার্ট। ‘একটি ফুলকে বাঁচাব বলে যুদ্ধ করি’, ‘এক নদী রক্ত পেরিয়ে’, ‘জন্ম আমার ধন্য হলো’- মুক্তিযুদ্ধের এসব গানের কথা আর সেই সময়কার নানা স্লোগান, চিত্রকর্ম, জাতীয় ফুল, পতাকা ইত্যাদি উঠে এসেছে আজিজ সুপার মার্কেটের বিভিন্ন শো-রুমের টি-শার্ট। একইভাবে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক টি-শার্ট পাওয়া যাচ্ছে যমুনা ফিউচার পার্ক, দেশি দশ, টুইন টাওয়ার, বঙ্গবাজার, ধানমণ্ডি হকার্সসহ বিভিন্ন মার্কেটেও।

টি-শার্টের ক্যানভাসেও এবার ফুটে উঠুক প্রিয় স্বাধীনতা, প্রিয় মাতৃভূমি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×