অফিসিয়াল পোশাক

ঋতু বদলের সঙ্গে সঙ্গে প্রকৃতিও তার রং বদলে ফেলে। আর আধুনিক সভ্যতায় প্রতিনিয়তই ঘটে নানা পরিবর্তন। আধুনিকতার সঙ্গে ফ্যাশনের সম্পর্কটা খুবই গভীর। কেননা ফ্যাশন সৌন্দর্যেরই প্রতীক।

  একে রাসেল ২৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিজের সৌন্দর্যকে আকর্ষণীয়ভাবে ফুটিয়ে তুলতেই মানুষ মূলত ফ্যাশনকে অনুসরণ করে। তাই ফ্যাশন পরিবর্তনের প্রভাব পড়ে পোশাকেও। নিজেকে পরিপাটি রাখার জন্য পছন্দসই পোশাক পরতে চান সব ফ্যাশনেবলরাই। কথায় আছে ড্রেস মেকস এ ম্যান পারফেক্ট। একজন মানুষের ভালোলাগা, রুচিবোধ, স্মার্টনেস- মোটকথা ব্যক্তিত্ববোধ সব কিছুই প্রকাশ পায় তার পোশাকে। তাই ফ্যাশনেবল প্রতিটি ব্যক্তির কাছেই পোশাক বিষয়টা অনেক গুরুত্ব বহন করে। যে কোনো প্রোগ্রামে বা মিটিং কিংবা ঘুরতে গেলে সবার আগে নজর রাখতে হয় পোশাকের দিকে। বিশেষ করে অফিসিয়াল পোশাকটা হতে হবে খুবই স্মার্ট। ফরমাল ড্রেসআপ অফিসিয়াল পোশাক হলেও এটি এখন দৈনন্দিন পোশাকের রূপ নিয়েছে। তবে ফ্যাশনের পরিবর্তনটা হয় খুবই বেশি। আজ যে পোশাকটি সবাই পছন্দ করছে, কাল সেটি পছন্দ নাও করতে পারে। আবার কিছু কিছু ফ্যাশন আছে, যেগুলো খুব একটা বদলায় না। যেমন ফরমাল ওয়্যার। অন্যান্য শার্ট-প্যান্টের ডিজাইন কিংবা ফ্যাশনে কিছুদিন পরপর পরিবর্তন এলেও ফরমাল শার্ট-প্যান্ট এখনও সেই আগের মতোই রয়ে গেছে। আর এটাই ফরমাল ওয়্যারের আসল সৌন্দর্য এবং বৈশিষ্ট্য। এ জন্যই কর্পোরেট অফিসের চাকরিজীবীরা পুরোপুরি নির্ভর করেন এমন পোশাকের ওপর। তাই ফরমাল পোশাকের কদর সব সময় একই রকম থাকে। তবে ফরমাল পোশাক মানেই যে সাদাসিধে কাপড়ের ঢিলেঢালা শার্ট, এমন প্রচলন এখন আর নেই। কারণ এখন ফরমাল শার্টের কাপড়ও হয়ে থাকে অনেক বেশি কালারফুল এবং চোখে পড়ার মতো। আর এসব শার্টের সেলাই এবং ডিজাইনও হয় আধুনিক, রুচিসম্মত। যা শুধু চাকরিজীবীদেরই নয়, অন্যদেরও ফরমাল শার্ট ব্যবহার করার ব্যাপারে উৎসাহী করছে। ফলে এখন সব ফ্যাশনেবলরাই ফরমাল পোশাকের দিকে নজর দিচ্ছেন। বর্তমানে ছেলেদের পোশাকের ক্ষেত্রে ফরমাল থাকার ঝোঁকটা একটু বেশিই দেখা যাচ্ছে। নিজেকে পরিপাটি, গুছিয়ে রাখার প্রবণতা বেড়ে যাচ্ছে দিন দিন। তাই ফিটিং প্যান্টস ও শার্টস বর্তমানে ফ্যাশনের একটি বড় অংশ।

কেননা ফরমাল পোশাকেও বর্তমানে আধুনিকতার ছোঁয়া লাগিয়ে দিয়েছে আমাদের দেশের ফ্যাশন হাউসগুলো। পোশাকের কার্টিং-প্যার্টানেও দেখা দেয় নানা বৈচিত্র্যতা। তবে এ ক্ষেত্রে আবহাওয়া উপযোগী পোশাকের গুরুত্বটা ফ্যাশনপ্রেমীদেরও কাছে একেবারেই কম না। কাপড়ের ধরন, কাটিং, প্যার্টান, ডিজাইনে বৈচিত্র্যতার পাশাপাশি পোশাকটি আবহাওয়া উপযোগী কিনা সে দিকটাতেও লক্ষ্য রাখেন ফ্যাশনেবলরা। এর কারণ হল পোশাক শুধু ফ্যাশনের জন্যই না। আরামদায়কও হতে হবে। এজন্য গরমে সাধারণত সবাই সুতি কাপড়কেই প্রাধান্য দেন বেশি। এক কালার বা চেক শার্ট যাই হোক না কেন তা যেন হয় আরামদায়ক। কাপড়ের কালার হিসেবে সাদা, কালো, হালকা নেভি ব্লু - এ কালারগুলো ফ্যাশনপ্রিয়দের নজরে একটু বেশিই থাকে। তবে কালার যাই হোক পোশাকটা হতে হবে ফ্যাশনেবল এবং আরামদায়ক। ফরমাল পোশাকের বিষয়ে কথা হয় দেশের খ্যাতিমান প্রতিষ্ঠান ইজি ফ্যাশন হাউসের কর্ণধার তৌহিদ চৌধুরীর সঙ্গে তিনি জানান, ফ্যাশনে প্রতিনিয়তই পরিবর্তন আসে। আর ইজি সব সময়ই নিত্য-নতুন ফ্যাশন নিয়ে কাজ করে। ডিজাইন, কাটিং, প্যার্টানে ভিন্নতা থাকে ইজির পোশাকে। আধুনিকতার ছোঁয়া থাকে ফরমাল পোশাকেও। ফলে সব বয়সের ফ্যাশনপ্রেমীরাই এখন ফরমাল পোশাকের দিকে ঝুঁকছেন। আবার শুধু অফিসিয়াল পোশাক হিসেবেই এখন আর কেউ ফরমাল পোশাক পরছেন তাও ঠিক নয়। যে কোনো জমকালো অনুষ্ঠানেও বর্তমানে ফরমাল পোশাক পরতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন অনেক ফ্যাশনেবলরা।

দর দাম : ১ হাজার টাকা থেকে ৪ হাজার টাকার মধ্যে যে কোনো ব্রান্ডের কাপড় পেতে পারেন। আবার নন-ব্রান্ডের কাপড় পাবেন ৩০০ থেকে ১ হাজার টাকার মধ্যে।

কোথায় পাবেন : ইজি, আর্টিস্টি, ক্যাটস আই, ম্যানজ ক্লাব, মনসুন রেইন, ট্রেন্ডস, ওয়েস্টেকস, রেক্স, লার্ক, প্লাস পয়েন্ট, দর্জি বাড়িসহ যে কোনো ফ্যাশন্স হাউসে। এছাড়াও নিউমার্কেট, আজিজ সুপার মার্কেট, চাঁদনীচক, গুলিস্তানসহ রাজধানীর যে কোনো মার্কেটে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×