বর্ষার আগমনী এ সময়ের কদম ফুল

  লাইফস্টাইল ডেস্ক ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কদম ফুল।
কদম ফুল। ছবি সংগৃহীত

আকাশজুড়ে কখনও কালো মেঘের ঘনঘটা কিংবা এক চিলতে রোদের মুখ কালো মেঘের ভিড়ে অথবা হঠাৎ করেই মুষলধারায় বৃষ্টি! জ্যৈষ্ঠের প্রখর রোদের পরে এমন প্রশান্তিই বলে দেয় বর্ষাকালের আগমন বার্তা। আষাঢ়-শ্রাবণ মূলত এ দুই মাস বর্ষাকাল।

বর্ষার আগমন যখন চারপাশে, তখন তার সঙ্গী হতে গাছে গাছে দেখা মিলে আরেক অতিথির। গ্রীষ্মের প্রখরতা কমাতে যখন আম, জামসহ নানা ফলের ঘ্রাণে মুখর চারপাশ, তার পরই আগমন ঘটে বর্ষার সঙ্গী কদম ফুলের।

সরু সবুজ পাতার ডালে ডালে গোলাকার মাংসলো পুষ্পাধার আর তার থেকে বের হওয়া সরু হলুদ পাপড়ির মুখে সাদা অংশ কদমকে সাজিয়ে তুলেছে ভিন্নভাবে। একটি ফুলের মাঝে এত ভিন্নতার ছোঁয়াতে কদমকে করে তুলেছে আরও গ্রহণযোগ্য।

কদম গাছের ফুল ছাড়া আরও রয়েছে ফল। এ ফলগুলো দেখতে অনেকটা লেবুর মতো। কদম গাছের পাতা শীতকালে ঝরে যায় আর কচি সবুজ পাতা নিয়ে আগমন ঘটে বসন্তের। কদম ফুলের আছে আরও অনেক নাম। ললনাপ্রিয়, সুরভী, কর্ণপূরক, মেঘাগমপ্রিয়, বৃত্তপুষ্প ছাড়াও নীপ মানে পরিচিত এ কদম ফুল। কদমের একেকটি গাছ ৪০ থেকে ৫০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। এর সবুজ ঝরঝরে পাতার মাঝে থাকা গোলাকার কদম ফুল বর্ষা øানে আরও রূপসী হয়ে উঠে। কদম ফুল ছাড়া কদম গাছও বেশ উপকারী।

কদমের গাছ থেকে যেমন জ্বরের ওষুধ তৈরি করা হয় তেমনি এ গাছ দ্রুত বাড়ে বিধায় একে জ্বালানি কাঠ হিসেবেও ব্যবহার করা হয়। অন্যদিকে কদম ফুল উষ্ণ জায়গায় দ্রুত বাড়ে বিধায় বাংলাদেশ ছাড়া ভারত এবং চীনে এর দেখা মিলে। কদমের আরেকটি সংস্কৃত নাম আছে।

এ গাছকে তাই কদম্ব বলেও অনেকে চিনে। যার অর্থ ‘যা বিরহীকে দুঃখী করে’! আবিধানিক অর্থ এমন হলেও মূলত কমদ ফুল প্রকৃতির সঙ্গে মানুষের মাঝেও সুখ ছড়িয়ে দেয়। তাইতো একরাশ কদম ফুল ছাড়া বর্ষা বার্তা জানাতেও আছে কৃপণতা। কদমের এ রূপের কারণের একে যুগে যুগে কবিরা তাদের কবিতার মাঝে অলঙ্কার হিসেবে সাজিয়েছে। আর লিখে গিয়েছেন ‘বাদল-দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান, আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান’।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×