ফিঞ্চপ্রেমীদের মিলনমেলা

  মুহাম্মদ শফিকুর রহমান ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ছোট্ট পাখি ফিঞ্চ। অনেকটা চড়–ই পাখির মতো। বাহারি রং তার শরীরে। ফুড়ুৎ ফাড়ুৎ ওড়াউড়ি করে। এদের চঞ্চলতা দেখারমতো। সারা বিশ্বে এ পাখি জনপ্রিয়। যত ধরনের খাঁচার পাখি আছে, খাঁচায় বংশ বৃদ্ধি করে, ফিঞ্চ তার মধ্যে অন্যতম। আফ্রিকান এবং অস্ট্রেলিয়ান- এই দু’জায়গার ফিঞ্চ সুন্দর। ফিঞ্চ বিভিন্ন প্রজাতির হয়। যেমন জেব্রা ফিঞ্চ, গোল্ডিয়ান ফিঞ্চ, আউল ফিঞ্চ, লং টেইল ফিঞ্চ, ওয়াক্রবিল ফিঞ্চ ইত্যাদি। বাংলাদেশেও ফিঞ্চ পাখি জনপ্রিয়। অনেকে খাঁচায় পালন করেন। ছোট্ট এ পাখিতে দেশীয় ব্রিডাররা অনেক বড় সাফল্য অর্জন করেছেন, যা দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। সফল ব্রিডারদের একজন আবদুল হান্নান দিনার। বাড়ি মানিকগঞ্জ। উচ্চশিক্ষিত। শখে পাখি পালন করেন। নিজ বাড়িতেই পাখির সংগ্রহশালা তার। বিভিন্ন প্রজাতির অসংখ্য পাখি তার পক্ষীশালায়। তার বাবা আবদুর রউফ পাখি পুষতেন। সেখান থেকেই দিনারের পাখি প্রেমের শুরু।

ওয়েস্ট্রার্ন ব্লু বিল। ছোট মন কেড়ে নেয়ার মতো একটি পাখি। এ পাখি ব্রিড করানো (ডিম বাচ্চা) দুঃসাধ্য কাজ। অনেকেই অনেকবার চেষ্টা করে বিফল হয়েছেন। দিনার সম্প্রতি ওয়েস্ট্রার্ন ব্লু বিল ব্রিড করতে সফল হয়েছেন। তার ঘর আলো করে ওয়েস্ট্রার্ন ব্লু বিল দুটি বাচ্চা করে। এশিয়া মহাদেশে তার আগে কেউ এ পাখির বাচ্চা করতে সফল হয়নি। যতদূর জানা যায়, গোটা পৃথিবীতে হাতেগোনা দু-একজন মানুষ সফল হয়েছেন। আট মাস আগের কথা। আমদানিকারকের কাছ থেকে তিনি ওয়েস্ট্রার্ন ব্লু বিল পাখি সংগ্রহ করেন। নানাজন নানা কথা বলেছিল। এ পাখি ব্রিড করবে নাকি? শুধুই টাকা নষ্ট। দিনার কারও কথাই কান দিলেন না। হোক পোষা পাখি। তাতে কি। যত্ন আত্তি করলেন। ভালোবাসলেন সন্তানের মতোই। পাখি ঘরে তিনি বিশ্বমানের পরিবেশ নিশ্চিত করেছেন। ভালো খাবার দিতে কমতি করেননি এতটুকুও। কিছুদিনের মধ্যে ওয়েস্ট্রার্ন ব্লু বিল বেবি করে। দিনারের চোখে মুখে হাসি ফুটে ওঠে। দুর্ভাগ্যবশতঃ বাচ্চাগুলো মারা যায়। এরপর আবার ডিম দেয় পাখি। ডিমের মধ্যেই বাচ্চার করুণ মৃত্যু হয়। দিনার লড়াকু সৈনিক। তিনি জানতেন, ধৈর্য ধরলে সফলতা আসবেই। আট মাসের মাথায় ওয়েস্ট্রার্ন ব্লু বিল বাচ্চা দেয় দুটি। অবশ্য ডিম পেরেছিল তিনটি। পোষা পাখির ইতিহাসে দিনারের নাম উঠে যায়। দেশের জন্য বিরল সম্মান বয়ে আনেন তিনি। অবশ্য ফিঞ্চ পাখিতে তার সফলতা নতুন নয়। দেশের মধ্যে সবচেয়ে দুর্লভ, আকর্ষণীয় পাখির সংগ্রহশালা তার। ওয়েস্ট্রার্ন ব্লু বিল, ডাইবসকিস টুইনস্পট, পার্পেল গ্র্যানাডিয়ার, লাভেন্ডার, ব্রোঞ্জ ম্যানকিন, ব্লু বিল ফায়ার ফিঞ্চ, ব্ল্যাক ফেস ব্ল্যাক ব্রেস্ট ডমিনেন্ট সিলভার জেব্রা, ক্রেসটেড গ্রিজেল জেব্রা ফিঞ্চ বাংলাদেশে একমাত্র তিনিই ডিম বাচ্চা করতে সফল হন।

ওরেঞ্জ চিকড ওয়াক্রবিল, ব্লু ক্যাপড কর্ডন ব্লিউ, থ্রি বি জেব্রা ফিঞ্চ, ক্রেসটেড পার্ল বেঙ্গলিজ, লুটিনো স্টার ফিঞ্চ, ক্রেস্টেড সেল্ফ চকোলেট বেঙ্গলিজ বাংলাদেশে প্রথম ব্রিড করান তিনি। পরে আরও অনেকে ব্রিড করাতে সফল হন।

নাজিম হাসান জিয়াদ। খুলনার ছেলে। পড়াশোনা করেন নৌ বাহিনী কলেজে। সে ওরেঞ্জ চিকড ওয়াক্রবিল ব্রিড করাতে সক্ষম হয়েছে। সবচেয়ে কম বয়সী ওয়াক্রবিল ব্রিডার। এত কম বয়সে কেউ এ পাখি ব্রিড করাতে পেরেছে এমনটা জানা যায় না। তার সংগ্রহেও বিভিন্ন প্রজাতির পাখি রয়েছে।

গত ২১ জুলাই ২০১৯। মিরপুরের বড়বাগে এ ধরনের অসংখ্য সফল ফিঞ্চ ব্রিডাররা একত্রিত হন। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে তারা আসেন। নিজেদের মধ্যে মতবিনিময় করেন। ফেসবুকে চেনা-জানা হয় বটে। তবে সামনাসামনি দেখা হল। খুব ভালো লাগছে বলল মো. ওমর ফারুক। সে জেব্রা ফিঞ্চের বিখ্যাত ব্রিডার। অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে ফিঞ্চ নিয়ে সেমিনার হয়। সেখানে ফিঞ্চের টেক কেয়ার, ব্রিডিং, খাবার, পরিচ্ছন্নতা, এক্রিবিউশন ও রেগুলার সাইজ জেব্রা চিহ্নিতকরণ, প্রতিযোগিতার জন্য পাখি প্রস্তুত করা, ওয়াক্রবিলসহ নানা আফ্রিকান ফিঞ্চ ব্রিডিং পদ্ধতি, খাঁচায় সঠিক সেটআপ ইত্যাদি বিষয়ে বক্তব্য রাখেন সানজিদ ইসলাম সারদ, জুনাইদ ইসলাম, চিন্ময় সেন দীপ, নাজিম হাসান জিয়াদ, মো. ওমর ফারুক প্রমুখ। পাখি নিয়ে প্রশ্নোত্তরের জবাব দেন মো. মোশাররফ, আবদুল হান্নান দিনার, সাকিব, রিমন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ফিঞ্চ ফটো অনলাইন কম্পিটিশন ২০১৮-এর বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। ওই প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হলেন সাবরিনা সিলভিয়া, ফার্স্ট রানার্সআপ সজীব, সেকেন্ড রানার্সআপ নাজিম হাসান জিয়াদ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×