ঈদের আমেজ বাড়াতে মসলা

  ফারিন সুমাইয়া ০৬ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঈদের আমেজ বাড়াতে মসলা।
ঈদের আমেজ বাড়াতে মসলা। ছবি সংগৃহীত

খাবারে স্বাদ বাড়াতে মসলার জুড়ি নেই। বিভিন্ন খাবারের স্বাদ ভিন্ন থেকে ভিন্নতর হওয়ার কারণ এই মসলা। তাই ঈদের উৎসবের আনন্দকে বাড়াতে খাবারের টেবিলে যেমন থাকে নানা পদের খাবার তেমনি তাতে লুকিয়ে থাকে নানা রকম মসলার সংমিশ্রণ।

তবে বর্তমানে রূপ পাওয়া এই মসলা একটি সময় ছিল কেবল প্রসাধনীর অংশ। খ্রিস্টপূর্বাব্দে সেই সময়ের তরুণীরা তাদের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে এই মসলার ব্যবহার করতেন। তবে সময়ের আবর্তনে সেই মসলা ব্যবহার করা হয় খাবারের রূপ অর্থাৎ স্বাদের ভিন্নতা আনতে।

খাবারের ধরন এবং স্বাদ দুই নির্ভর করে আপনি কেমন মসলা ব্যবহার করবেন। তবে ঝাল জাতীয় খাবারের ক্ষেত্রে মসলা নির্ধারণ করা সহজ। অন্যদিকে মসলার আগমন ঘটে পর্তুগিজদের হাত ধরে। এরপর ধীরে ধীরে ভারতবর্ষে মসলার যাত্রা শুরু করে। আর এসব মসলার মধ্যে উল্লেখযোগ্য মসলা হচ্ছে লবঙ্গ, দারুচিনি, এলাচ। বর্তমান সময়ে আরও অনেক ধরনের মসলার দেখা মিলে।

মসলার ব্যবহার সবচেয়ে বেশি চোখে পড়ে মাংস রান্নার ক্ষেত্রে। এছাড়া নানা ধরনের বিরিয়ানি, কাবাব, কোরমার ক্ষেত্রে নানা বৈচিত্র্যময় মসলার দেখা মিলে হেঁশেলে। এসব মসলার মধ্যে আছে আদা, রসুন, বড় এলাচ, দারুচিনি, লবঙ্গ, তেজপাতা, স্টার মসলা, সাদা গোল মরিচ, কালো গোলমরিচ, মৌরি, হিং, জোয়ান, মেথি, চারমগজ, জায়ফল, জয়ত্রি, ত্রিফলা, চুঁইঝাল, হলুদ, মরিচ, ধনিয়া, কালঞ্জি, আমচুরসহ আরও নানা পদের মসলা।

এসব মসলার মধ্যে জয়ফল, জয়ত্রি মূলত ইন্দোনেশিয়ান মসলা, স্টার মসলা কোরিয়া, জাপান, তাইওয়ান আর অন্যদিকে কালঞ্জি, আমচুর ভারতীয় উপমহাদেশীয় মসলা। এসব মসলার কোনো একটি খাবারের ঘনত্ব বাড়াতে সাহায্য করে আবার কোনটি ঝালের মাত্রা তীব্র করে খাবারে বৈচিত্র্য আনে। খাবারের রঙের ক্ষেত্রেও মসলার গুরুত্ব অনেক। অনেকেই খাবারে রঙের ভিন্নতা আনতে জাফরান ব্যবহার করে থাকেন।

তবে জাফরান বিরিয়ানি জাতীয় খাবারের ক্ষেত্রে বেশি ব্যবহার করা হয়। তবে অতিরিক্ত মসলার ব্যবহারে খাবারে স্বাদ অনেকাংশে কমে যায়। তাই খাবারে স্বাদ সঠিক রাখতে মসলা নির্বাচন করার সঙ্গে সঙ্গে তার পরিমাপ ঠিক রাখাও জরুরি।

অন্যদিকে এসব মসলা ছাড়াও আরও আছে পাঁচফোঁড়ন, কাশ্মীরি মরিচ, কালো এলাচ, রাইসহ আরও অনেক মসলা। এসব মসলা দেশ এবং সংস্কৃতি ভেদে খাবারে আনে ভিন্নতার ছোঁয়া আর স্বাদের দিক থেকে খাবারকে করে তুলে অতুলনীয়।

কোথায় পাব :

চকবাজার, কারওয়ান বাজার, ঠাটারি বাজার, টঙ্গী বাজারে পাওয়া যাবে এসব মসলা অথবা আপনার আশপাশের যে কোনো সুপারশপে।

দাম :

বড় এলাচির দাম পড়বে ১৮০০ টাকা কেজি দরে, স্টার মসলা ১০০ গ্রাম ১০৯ টাকা, লবঙ্গ ১২০০ টাকা কেজি, গোলমরিচ ১১০০ টাকা, ছোট এলাচ ১২০০ টাকা, দারুচিনি ৫০০ টাকার মধ্যে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×